মুয়াজ্জিনের আযানের জাওয়াব ও তার ফযিলত: | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস

 মুয়াজ্জিনের আযানের জাওয়াব ও তার ফযিলত:


আযান ও ইকামত শ্রবণকারীর জন্য সুন্নত হচ্ছে মুয়াজ্জিনের সাথে সাথে আস্তে আস্তে তার অনুরূপ বাক্য উচ্চারণ করা, শুধু হাইআলাহ ব্যতীত, তখন বলবে: «لا حول ولا قوة إلا بالله» অতঃপর নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের উপর দরূদ ও আযানের পরবর্তী দোয়া পড়বে। এতে সন্দেহ নেই নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার উম্মতের জন্য আযান ও তার পরবর্তী সময় পাঁচ প্রকার জিকির বৈধ করেছেন, যেমন:


১. শ্রবণকারী মুয়াজ্জিনের ন্যায় বাক্যগুলো বলবে, শুধু«حي على الصلاة، وحي على الفلاح»،  ব্যতীত, তখন বলবে,«لا حول ولا قوة إلا بالله»؛ আবু সায়িদ খুদরি রাদিয়াল্লাহু  আনহু থেকে বর্ণিত, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম‎‎ বলেছেন:


«إذا سمعتم النداء فقولوا مثل ما يقول المؤذِّن».


“যখন তোমরা আযান শ্রবণ কর, তখন মুয়াজ্জিনের ন্যায় অনুরূপ শব্দ বল”।[61] ওমর ইব্‌ন খাত্তাব রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন: রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম‎‎ বলেছেন: “যখন মুয়াজ্জিন বলে: الله أكبر الله أكبرُ،  অতঃপর তোমাদের কেউ বলে: الله أكبر الله أكبرُ،  যখন মুয়াজ্জিন বলে: أشهد أن لا إله إلا الله অতঃপর তোমাদের কেউ বলে: أشهد أن لا إله إلا الله যখন মুয়াজ্জিন বলে: أشهد أن محمدًا رسول الله،  অতঃপর তোমাদের কেউ বলে: أشهد أن محمدًا رسول الله،  যখন মুয়াজ্জিন বলে: حيَّ على الصلاة، অতঃপর তোমাদের কেউ বলে: لا حول ولا قوة إلا بالله،  যখন মুয়াজ্জিন বলে: حي على الفلاح،   অতঃপর তোমাদের কেউ বলে: لا حول ولا قوة إلا بالله،  যখন মুয়াজ্জিন বলে: الله أكبر الله أكبر،  অতঃপর তোমাদের কেউ বলে: الله أكبر الله أكبر،  যখন মুয়াজ্জিন বলে: لا إله إلا الله،  অতঃপর তোমাদের কেউ অন্তর থেকে বলে: لا إله إلا الله،  সে জান্নাতে প্রবেশ করবে”।[62]


২. মুয়াজ্জিনের তাশাহুদ বা কালিমায়ে শাহাদাত বলার পর বলা:


وأنا أشهد أن لا إله إلا الله وحده لا شريك له، وأن محمدًا عبده ورسوله، رضيت بالله ربًّا، وبمحمدٍ رسولاً، وبالإسلام دينًا،


কারণ সাদ ইব্‌ন আবু ওয়াক্কাস রাদিয়াল্লাহু আনহু রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে বর্ণনা করেন: “যে ব্যক্তি মুয়াজ্জিনকে‎ বলতে শোনে বলে:


«أشهد أن لا إله إلا الله وحده لا شريك له، وأن محمدًا عبده ورسوله، رضيت بالله ربًّا، وبمحمد رسولاً، وبالإسلام دينًا،».


তার পাপ মোচ করা হয়”। অন্য বর্ণনায় আছে: “মুয়াজ্জিনকে‎ বলতে শোনে বলে: وأنا أشهد… (তার পাপ মোচন করা হবে)।[63]


৩. মুয়াজ্জিনের উত্তর শেষ করে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের‎‎ উপর দরূদ পড়বে। আব্দুল্লাহ ইব্‌ন আমর ইব্নুল আস রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বলতে শুনেছেন:


«إذا سمعتم المؤذن فقولوا مثل ما يقول، ثم صلُّوا علي؛ فإنه من صلَّى عليّ صلاة صلى الله عليه بها عشرًا، ثم سلوا الله لي الوسيلة؛ فإنها منزلةٌ في الجنة لا تنبغي إلا لعبدٍ من عباد الله، وأرجو أن أكون أنا هو، فمن سأل لي الوسيلة حلت عليه الشفاعة».


“যখন মুয়াজ্জিনের আওয়াজ শ্রবণ কর, তখন তার ন্যায় তোমরাও বল, অতঃপর আমার উপর দরূদ পাঠ কর, কারণ আমার উপর যে একবার দরূদ পাঠ করবে আল্লাহ তার উপর দশবার দরূদ প্রেরণ করবেন। অতঃপর আমার জন্য ওসিলা প্রার্থনা কর, ওসিলা জান্নাতের একটি বিশেষ মর্যাদা যার ভাগীদার শুধু একজন বান্দাই হবে, আমি আশা করছি সে ব্যক্তিটি হবো আমিই। আমার জন্য যে ওসিলা প্রার্থনা করবে, তার জন্য আমার শাফায়াৎ ওয়াজিব হয়ে যাবে”।[64]


৪. নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের‎‎ উপর দরূদ পাঠ করে জাবের রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত দোয়া পাঠ করবে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের‎‎ বলেছেন: “যে ব্যক্তি আযান শ্রবণ করে বলে:


«اللهم ربَّ هذه الدعوة التامة، والصلاة القائمة، آتِ محمدًا الوسيلة والفضيلة، وابعثه مقامًا محمودًا الذي وعدته»


কিয়ামতের দিন তার জন্য আমার শাফায়াৎ বৈধ হয়ে যাবে”।[65]


বায়হাকির বর্ণনায় আরো একটু অতিরিক্ত বর্ণিত আছে[66]:


«… إنك لا تخلف الميعاد».


৫. অতঃপর নিজের জন্য দোয়া করবে, আল্লাহর অনুগ্রহ প্রার্থনা করবে, কারণ এ দোয়া কবুল করা হয়। আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন:


«الدعوة لا ترد بين الأذان والإقامة فادعوا».


“আযান ও ইকামতের মাঝখানের দোয়া প্রত্যাখ্যান করা হয় না, অতএব এ সময় তোমরা দোয়া কর”।[67]

[61] বুখারি: (৬১১), মুসলিম: (৩৮৩)


[62] মুসলিম: (৩৮৫)


[63] মুসলিম: (৩৮৬)


[64] মুসলিম: (৩৮৪)


[65] বুখারি: (৬১৪)


[66] বায়হাকি: (১/৪১০), তুহফাতুল আখইয়ার গ্রন্থে: (পৃ.৩৮) হাদিসের সনদটি বায হাসান বলেছেন।


[67] আহমদ: (৩/২২৫), আবু দাউদ: (৫২১), তিরমিযি: (২১২), আল-বানি ইরওয়াউল গালিল: (১/২৬২) এ হাদিসটি সহিহ বলেছেন।