২০ রাকাত তারাবীহ সমর্থনে দলীল সমূহ











২০ রাকাত তারাবীহ সমর্থনে দলীল সমূহ
দলিল-
হযরতসাঈব ইবনে ইয়াযীদ (রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু) বলেন, “খলীফা হযরতউমর ফারূক (রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু)-এর আমলে(রমযান মাসে) মুসলমান সমাজ২০ রাকআত (তারাবীহ) নামাযএবং বিতরের নামাযওপড়তেন।
ইমাম বায়হাকী প্রণীতমারেফত-উস-সুনান ওয়াল্আসার’, ৪র্থ খণ্ড, ৪২ পৃষ্ঠা, হাদীসনং ৫৪০৯
হাদিসের মান সম্পর্কে 
  • ইমাম বায়হাকী (রহ:) অপর এক সনদে অনুরূপ একখানি রওয়ায়াত লিপিবদ্ধ করেছেন।
  • হযরত সাঈব ইবনে ইয়াযীদ (রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু) বলেন,
খলীফাহযরত উমর ইবনেআল-খাত্তাব (রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু)-এর শাসনামলে রমযানমাসে মুসলমানগণ ২০রাকআত (তারাবীহ) নামাযপড়তেন।তিনি আরওবলেন, “তাঁরা মিঈন পাঠকরতেন এবং খলীফাহযরত উসমান ইবনেআফফান (রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু)-এর শাসনামলে (নামাযে) দণ্ডায়মান থাকার অসুবিধা থেকেস্বস্তির জন্যে তাঁরানিজেদের লাঠির ওপরভর দিয়ে দাঁড়াতেন।
ইমাম বায়হাকী রচিতসুনান আল-কুবরা’, ২য় খণ্ড, ৬৯৮- পৃষ্ঠা, হাদীস নং ৪৬১৭
ইমামনববী (রহ:) বলেন,
এটির সনদ সহীহ।
— ‘আল-খুলাসাতুল আহকাম’, হাদীস নং ১৯৬১
  • ইমাম বদরুদ্দীন আয়নী (রহ:) বলেন,
ইমামবায়হাকী (রহ:) সহীহসনদে সাহাবী হযরতসাঈব ইবনে এয়াযীদ (রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু) থেকে বর্ণনা করেছেনযে খলীফা হযরতউমর ফারূক (রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু)-এর শাসনামলে মুসলমান সমাজ২০ রাকআত (তারাবীহ) নামাযপড়তেন এবং তাখলীফা হযরত উসমান(রাদ্বিয়াল্লাহুতায়ালা আনহু)-এর শাসনামলেও প্রচলিত ছিল।
— ’উমদাতুল ক্কারী শরহেসহীহ আল-বোখারী’, ৫ম খণ্ড, ২৬৪পৃষ্ঠা; দারুল ফিকর, বৈরুত, লেবানন হতেপ্রকাশিত
  •  
সালাফীআলেমআল-মোবারকপুরীও এইহাদীসটির সনদকেসহীহবলেছে এবং এরপক্ষে ইমাম নববী(রহ:)-এর সমর্থনের কথাউদ্ধৃত করেছে।
— ’তোহফাতুল আহওয়াযী’, ৩য়খণ্ড, ৪৫৩ পৃষ্ঠা; দারুল ফিকর, বৈরুত, লেবানন থেকে প্রকাশিত
ইমামনববী (রহ:) বলেন,
এই সনদে সকলরাবী তথা বর্ণনাকারীসিকাবা নির্ভরযোগ্য।
— ‘আসার আল-সুনান’, :৫৪

দলিল-
ইয়াহইয়া আমার(ইমাম মালেক) কাছেমালেক হতে বর্ণনাকরেন যে এয়াযীদ ইবনেরুমান বলেছেন, খলীফাহযরত উমর ইবনেআল-খাত্তাব (রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু)-এর শাসনামলে মুসলমানবৃন্দ রমযানমাসের (প্রতি) রাতে২৩ রাকআত (তারাবীহ ২০ বিতর ) নামায পড়তেন।
ইমাম মালেক প্রণীতমুয়াত্তা মালেক’, সালাতঅধ্যায়, মা জা ফীকায়ামে রমযান, ১মখণ্ড, ১৫৯ পৃষ্ঠা, হাদীস নং ৩৮০

দলিল-
হযরতআবদুল আযীয বিনরাফিহতে বর্ণিত, তিনি বলেন: “হযরতউবাই ইবনে কাআব(রাদ্বিয়াল্লাহুতায়ালা আনহু) মদীনা মোনাওয়ারায় রমযানমাসে ২০ রাকআত(তারাবীহ) নামাযের জামাতে ইমামতিকরতেন।
মোসান্নাফে ইবনে আবিশায়বা, ৫ম খণ্ড, ২২৪ পৃষ্ঠা, ৭৭৬৬নং হাদীস

দলিল-
আবদুররহমান সুলামী বর্ণনাকরেন যে হয়রতআলী (কাররামাল্লাহু ওয়াযহু) রমযানমাসে কুরআন মজীদতেলাওয়াতকারীহাফেযদের ডেকে তাদেরমধ্যে একজনকে ২০রাকআত (তারাবীহ) নামাযপড়াতে বলেছিলেন এবংনিজে বিতরের নামাযেইমামতি করতেন।
ইমাম বায়হাকী কৃতসুনান আল-কুবরা’, ২য় খণ্ড, ৬৯৯পৃষ্ঠা, হাদীস নং৪৬২০
দলিল-
হযরতহাসান বসরী (রহ:) বলেন: “খলীফা উমরফারূক (রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু) রমযান মাসের (তারাবীহ) নামাযেহযরত উবাই ইবনেকা (রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম)-এর ইমামতিতে মানুষদেরকে জামাতে কাতারবদ্ধ করেনএবং তিনি (ইবনেকা) ২০রাকআত নামায পড়ান।
— ‘সিয়ার আল-লম ওয়ালনুবালাহ’, ১ম খণ্ড, ৪০০- পৃষ্ঠা, হযরত উবাই ইবনেকা (রা:)-এর জীবনী
ইমামনববী (রহ:) ওপরেরবর্ণনা সম্পর্কে বলেন:
এরসনদ সহীহ।
— ‘আল-খুলাসাত আল-আহকাম’, হাদীসনং ১৯৬১

দলিল-
হযরতআবূল হাসনা বর্ণনাকরেন যে হযরতআলী (কাররামাল্লাহু ওয়াযহু) জনৈকব্যক্তিকে রমযান মাসে২০ রাকআত (তারাবীহ) নামাযেইমামতি করার নির্দেশ দেন।
— ’মোসান্নাফে ইবনে আবিশায়বা’, ৫ম খণ্ড, ২২৩ পৃষ্ঠা, হাদীসনং ৭৭৬৩

দলিল- 
হযরতনাফেইবনে উমর(রাদ্বিয়াল্লাহুতায়ালা আনহু) থেকে ওয়াকীবর্ণনাকরেন, তিনি বলেন: “হযরত ইবনে আবিমুলাইকা (রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম) রমযান মাসে আমাদেরজামাতের ২০রাকআত (তারাবীহ) নামাযেইমামতি করতেন।
মোসান্নাফে ইবনে আবিশায়বা, ৫ম খণ্ড, ২২৩ পৃষ্ঠা, হাদীসনং ৭৭৬৫

দলিল- 
হযরতইবনে আব্বাস (রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম) বর্ণনা করেন যেমহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহিওয়াসাল্লাম রমযান মাসে(প্রতি রাতে) নিজেনিজে ২০ রাকআত(তারাবীহ) নামায আদায়করতেন এবং এরপর রাকআত বেতরেরনামাযও পড়তেন।
— ‘সুনান আল-বায়হাকী, হাদীসনং ১২১০২

দলিল  
হযরতইবনে আব্বাস (রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু) বর্ণনা করেন যেরাসূলে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহিওয়াসাল্লাম রমযান মাসে২০ রাকআত (তারাবীহ) নামাযআদায় করতেন এবংএরপর রাকাতবেতরের নামাযও আদায়করতেন।
— ’মোসান্নাফে ইবনে আবিশায়বা’, ২য় খণ্ড, হাদীস নং ৭৬৯২

দলিল ১০ 
হযরতআয়েশা (আলাইহিস সালাম) থেকে বর্ণিত, বিশ্বনবী সাল্লাল্লাহু আলাইহিওয়াসাল্লাম দুই রাতে২০ রাকআত নামাযমানুষের সাথে আদায়করেন; কিন্তু তিনিতৃতীয় রাতে আরবের হননি। তিনিবলেন, আমি আশংকাকরি যে এটিতোমাদের (সাহাবা--কেরামের) প্রতিআবার বাধ্যতামূলক নাহয়ে যায়।
ইবনে ইবনে হাজরআসকালানী (রহ:) কৃতআল-তালখীস আল-হাবীর’, ২য়খণ্ড, হাদীস নং৫৪০
বি:দ্র: ইমাম ইবনে হাজরআসকালানী (রহ:) এইহাদীস উদ্ধৃত করারপরে বলেন,
সকলমোহাদ্দেসীন (হাদীসের বিশারদ) হযরত আয়েশা (আলাইহিস সালাম) হতে এই বর্ণনার নির্ভরযোগ্যতার ব্যাপারে ঐকমত্যপোষণ করেন, তবেরাকআতের সংখ্যার ক্ষেত্রে নয়।

দলিল ১১ 
আল-হারিস (রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু) বর্ণনা করেন যেতিনি রমযান মাসে২০ রাকআত তারাবীহ নামাযআদায় করতেন, আর রাকআত বেতরেরনামাযেও ইমামতি করতেনএবং রুকূর আগেকুনুত পড়তেন।
মুসান্নাফে ইবনে আবিশায়বাহ, ৫ম খণ্ড, ২২৪ পৃষ্ঠা, হাদীসনং ৭৭৬৭

দলিল ১২ 
হযরতআবূ আল-বখতারী(রাদ্বিয়াল্লাহুতায়ালা আনহু) থেকে বর্ণিত যেতিনি রমযান মাসেজামাআতে তারভিয়াত’ (অর্থাৎ, ২০ রাকআত তারাবীহ) নামাযের এবং রাকাত বেতরেরনামাযের ইমামতি করতেন।
মুসান্নাফে ইবনে আবিশায়বাহ, ৫ম খণ্ড, ২২৪ পৃষ্ঠা, হাদীসনং ৭৭৬৮
বি:দ্র: তারাবীহ নামাযে প্রতি রাকআতে একতারভিহ’ (বিশ্রামের সময়) পাঁচতারভিহাতহলো *=২০রাকআত।

দলিল ১৩ 
হযরতআতাইবনে রুবাহ(রাদ্বিয়াল্লাহুতায়ালা আনহু) বলেন: আমি সবসময়- মানুষদেরকে ২৩রাকআত (তারাবীহ) পড়তেদেখেছি, যাতেঅন্তর্ভুক্ত ছিল বেতরেরনামায।
মুসান্নাফে ইবনে আবিশায়বাহ, ৫ম খণ্ড, ২২৪ পৃষ্ঠা, হাদীসনং ৭৭৭০

দলিল ১৪ 
হযরতশায়তার ইবনে শাকীহতে প্রমাণিত যেতিনি রমযান মাসে২০ রাকআত তারাবীহ নামাযের জামাআতে এবংবেতরের নামাযেও ইমামতিকরতেন।
মুসান্নাফে ইবনে আবিশায়বা, ৫ম খণ্ড, ২২২ পৃষ্ঠা, হাদীসনং ৭৭৬২

দলিল ১৫ 
হযরতসাঈদ বিন উবাইদবর্ণনা করেন যেহযরত আলী বিনরাবিয়াহ (রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু) তাঁদেরকে তারভিহাত (২০রাকআত তারাবীহ) নামাযেএবং রাকআতবেতরের নামাযেও ইমামতিকরতেন।
মুসান্নাফে ইবনে আবিশায়বাহ, ৫ম খণ্ড, ২২৪ পৃষ্ঠা, হাদীসনং ৭৭৭২

দলিল ১৬ 
ইবনেকুদামাহ (রহ:) ২০রাকআত তারাবীহ নামাযের পক্ষেযেএজমাহয়েছে, সে সম্পর্কে প্রমাণপেশ করতে গিয়েলিখেন:
আবূআবদিল্লাহ (ইমাম আহমদহাম্বল)-এর দৃষ্টিতে প্রতিষ্ঠিত দলিলহলো ২০ রাকআত(তারাবীহ); ব্যাপারে একইমত পোষণ করেনসর্ব-হযরত সুফিয়ান সাওরী(রহ:), ইমাম আবূহানিফা (রহ:) ইমাম শাফেঈ (রহ:) ইমামমালেক (রহ:)-এরমতে এটি ৩৬রাকআত। তিনি মদীনাবাসীর রীতিঅনুসরণ করেন। কেননা, সালেহ বলেন তিনিসেখানকার মানুষকে দেখেছিলেন ৪১রাকআত কেয়ামুল্ লাইল(তারাবীহ) পালন করতে, যার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত ছিল রাকআত বেতরেরনামায। কিন্তু আমাদেরপ্রামাণ্য দলিল হচ্ছেখলীফা হযরত উমরফারূক (রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু) মানুষদেরকে সমবেত করেহযরত ইবনে কা (রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু)-এর ইমামতিতে ২০রাকআত তারাবীহনামায জামাআতে আদায়করিয়েছেন। হযরত হাসসান(রাদ্বিয়াল্লাহুতায়ালা আনহু)-এর সূত্রেএও বর্ণিত হয়েছেযে খলীফা হযরতউমর (রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু) এভাবে ২০ রাতহযরত উবাই ইবনেকা (রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু)-এর ইমামতিতে মানুষদেরকে জামাঅাতে নামাযআদায় করিয়েছিলেন; আরতিনি (হযরত কা) রমযানের নিসফে(ওই সময়) শেষদশ দিন তারাবীহ নিজেরঘরে পড়তেন। এইবর্ণনা ইমাম আবূদাউদ (রহ:) হযরত সাইব ইবনেএয়াযীদ (রা:)-এরপ্রদত্ত। ইমাম মালেক(রহ:) এয়াযীদ ইবনেরুমান থেকে এওবর্ণনা করেছেন যে, খলীফা হযরত উমর(রাদ্বিয়াল্লাহুতায়ালা আনহু)-এর শাসনামলে মানুষেরা ২৩রাকআত তারাবীহ আদায়করতেন, যার মধ্যেঅন্তর্ভুক্ত ছিল রাকআত বিতর।
ইবনেকুদামাহ আরও লিখেন:
হযরতআলী (কাররামাল্লাহু ওয়াযহু) হতেএও বর্ণিত হয়েছেযে তিনি জনৈকব্যক্তিকে ২০ রাকআততারাবীহ জামাআতে ইমামতিকরতে নির্দেশ দিয়েছিলেন। অতএব, ২০ রাকআত তারাবীহব্যাপারে এজমাপ্রতিষ্ঠিত হয়েগিয়েছে। অধিকন্তু, সালেহযে মদীনাবাসীদেরকে ৪১রাকআত নামায পড়তেদেখেছিলেন, সে সম্পর্কে বলবো, সালেহ দুর্বল এবংআমরা জানি না৪১ রাকআতের এইবর্ণনা কে দিয়েছিলেন। হতেপারে যে সালেহকিছু মানুষকে ৪১রাকআত পড়তে দেখেছিলেন, কিন্তুএটি তো হুজ্জাত (প্রামাণ্য দলিল) হতে পারে না।আমরা যদি ধরেওনেই যে মদীনাবাসী ৪১রাকআত তারাবীহ (বেতরের রাকআত-সহ) পড়তেন, তবুও হযরতউমর (রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু)-এর নির্দেশ, যাতাঁর সময়কার সকলসাহাবা--কেরাম(রাদ্বিয়াল্লাহুতায়ালা আনহুমগন) অনুসরণকরেছিলেন, তা-অধিকতর অনুসরণযোগ্য। কয়েকজন উলামাবলেন যে মদীনাবাসী মুসলমানগণ ৩৬রাকআত তারাবীহ পড়তেনযাতে মক্কাবাসী মুসলমানদের সাথেতা মিলে যায়; কেননা, মক্কাবাসীরা প্রতিরাকআত পড়ার পরতাওয়াফ করতেন এবংএভাবে তাঁরা বার তাওয়াফ করতেন।মদীনাবাসী মুসলমানগণ ওইসময়ের মধ্যে (অর্থাৎ, একেক তওয়াফে) রাকআত আদায় করেনিতেন (নওয়াফিল)কিন্তু আমরা যেহেতুজানি যে সাহাবা--কেরাম(রাদ্বিয়াল্লাহুতায়ালা আনহুম) ২০ রাকআত তারাবীহ পড়েছেন, সেহেতুআমাদের তা-মান্য করা আবশ্যক।
ইবনে কুদামাহ প্রণীতআল-মুগনী, ২য়খণ্ড, ৬০৪ পৃষ্ঠা

দলিল ১৭ 
আল-গুনিয়াতুত্ তালেবীন গ্রন্থে লেখাআছে:
আল-গুনিয়াতুত্ তালেবীন, ২য়খণ্ড, ২৫ পৃষ্ঠা

দলিল ১৮ 
ইমামবোখারী (রহ:) তাঁরআল-কুনাপুস্তকে রওয়ায়াত করেন:
হযরতআবূ আল-খুসাইব(রাদ্বিয়াল্লাহুতায়ালা আনহু) বর্ণনা করেন যেহযরত সুওয়াইদ বিনগাফালাহ (রা:) সবসময়- রমযানমাসে আমাদেরকে নিয়েজামাআতে ২০ রাকআততারাবীহ নামাযে ইমামতিকরতেন।
আল-কুনা, ২য়খণ্ড, হাদীস নং২৩৪

দলিল ১৯ 
ইয়াজিদ ইবনেরুমান (রাঃ) থেকেবর্ণিত তিনি বলেনঃ- হযরত উমর (রাঃ) এর যুগে সাহাবারা বিতিরসহ তেইশ রাকাততারাবীহ পড়তেন
মুয়াত্তা মালেক খঃ১পৃঃ ১১৫

এতএব উপরের এতসবদলিলাজিল্লাহ দ্বারা প্রমানিত হলোযে তারাবির নামাজ২০ রাকাত পড়া সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য মতামততাই এখন যদিকেউ রাকাতপড়ে তাহলে আল্লাহু রাব্বুল আলামিন ভালো জানেনতার ফায়ছালা তিনিকিভাবে করবেন। নিশ্চইযারা সাহাবা (রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম) গনের বিপক্ষে নিজেরমনগড়া মতামত রাসুলসাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পছন্দকরবেন না আরযা তিনি অপছন্দকরবেন তা আল্লাহ্রাব্বুল আলামিন অপছন্দ করেন


Previous Next

نموذج الاتصال