কাঁকড়া খাওয়া কি ইসলামী শরীয়তে জায়েজ? | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস

 (ড.মুহাম্মদ আনোয়ার হোসাইন) 

--------------------------------------------------

সওয়ালঃ- কাঁকড়া খাওয়া কি ইসলামী শরীয়তে জায়েজ? 

জওয়াবঃ- মালেকী মাজহাব ছাড়া  অপরাপর তিন মাজহাব হানাফী,শাফেয়ী,হাম্বলী মাযহাবের ইমামগনের মতে কাঁকড়া খাওয়া ইসলামী শরীয়তে নাজায়েজ তথা হারাম। 

সমুদ্রের মাছ ছাড়া অন্যান্য প্রানী খাওয়া নিষেধ। কাঁকড়া কোন মাছ নয়  বা মাছের সদৃশ্যও নয়। কাঁকড়া জলে ও স্থলে উভয় জায়গায় বসবাস করতে পারে। কিন্তু মাছ কিন্তু শুধুমাত্র জলে বাস করতে সক্ষম। সুতারাং কাঁকড়া যেহেতু মাছ নয় সেহেতু খাওয়া হারাম। 

তাছাড়াও কাঁকড়ার শরীরে এমন কিছু বিষাক্ত পদার্থ আছে যা মানুষের শরীরের জন্য মারাত্নক ক্ষতিকর। অনেক সময় কাঁকড়া খেলে মানুষের জীবনও বিপন্ন হতে পারে। তাই ইসলামী শরীয়ত তা নিষিদ্ধ করেছে। তবে কোন রোগ সারাবার জন্য যদি  ধার্মীক ডাক্তার ঔষধ হিসেবে সাজেস্ট করে তাহলে সাময়িক ভাবে খাওয়া যাবে। 

আমাদের দেশের ইয়াং জেনারেশনকে রাস্তার পাশের ভ্যানগাড়ী থেকে অথবা সাইনিজ রেষ্টুরেন্টে বসে খুব মজা করে কাঁকড়া খাইতে দেখা যায়। অথচ ইসলামী শরীয়তে তা নিষেধ। 

[আহকামে শরীয়ত কৃত -ইমাম আহমদ রেযা খান(রহঃ), হায়াতুল হায়াওয়ান কৃত-কামাল উদ্দীন দামেরী(রহঃ)]