মুহূর্ত্বের মধ্যেই কোটি কোটি সওয়াবের ভান্ডার | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস

মুহূর্ত্বের মধ্যেই কোটি কোটি সওয়াবের ভান্ডার
____________________

আসুন হাদিসের আলোকে গবেষণা করে কিছু আমলের সওয়াব ও তার সাথে বোনাস সওয়াব সম্পর্কে জেনে নেই। আল্লাহ পাক পরম করুণাময়, সকল আমলের প্রতিদান তাঁর থেকেই, ইনশাআল্লাহ।
🖋গবেষণায়ঃ মাসুম বিল্লাহ সানি

(I) ২০ মিনিটে ১৪০০০ বার আল-কুরআন খতমের সওয়াব।
(II) ১ বার বিসমিল্লাহ পাঠে ১৩ লক্ষ ৩০ হাজার টি নেকীর সওয়াব।
(III) একটি আয়াত পাঠে ৩৭ লক্ষ ৮০ হাজার নেকী।

20 মিনিটে 20 খতম আল-কুরআনের সওয়াবঃ
➖➖➖➖➖➖
⛔ সুরা ফাতিহা ৩ বার পড়লে ২ খতমের সওয়াব হয়। (তফসীরে মাযহারী ১ম, পৃ ১৫)

⛔ আয়তুল কুরসী ৪ বার পড়লে ১ খতমের সওয়াব। (তফসীরে মাযহারী ২য় খন্ড, পৃ ৩১)

⛔ সুরা ইখলাস ৩ বার পড়লে ১ খতমের সওয়াব হয়। (সহিহ বুখারী ২য়, পৃ ৬৫০) 

⛔ সুরা ইয়াসিন ১ বার পড়লে ১০ খতম এর সওয়াব হয়। (সহিহ তিরমিযি ২য়, পৃ ১১৬)

⛔ সুরা কাফিরুন ৪ বার পড়লে খতমের সওয়াব হয়। (সহিহ তিরমিযি ২য়, পৃ ১১৭)

⛔ সুরা যিলযাল ২ বার পড়লে ১ খতমের সওয়াব হয়। (সহিহ তিরমিযি ২য়, পৃ ১১৭)

⛔ সুরা ক্বদর ৪ বার পড়লে ১ খতমের সওয়াব হয়। (দুররে মনসুর ৬ষ্ট, পৃ ৬৮০)

⛔ সুরা নাসর ৪ বার পড়লে ১ খতমের সওয়াব হয়। (সহিহ তিরমিযি ২য়, পৃ ১১৭)

⛔ সুরা আদিয়াত ২ বার পড়লে ১ খতমের সওয়াব হয়। (দুররে মনসুর ৬ষ্ট, পৃ ৬৯৫)

⛔ সুরা তাকাসুর ১ বার পাঠ করলে ১০০০ আয়াত পাঠের সমান সওয়াব হয়। (বায়হাকী, মিশকাত ১ম, পৃ ১৯০)

⛔ দুরুদে লাকী ১ বার পড়লে ১ লক্ষ বার দুরুদ পাঠের সমান সওয়াব হয়।

⛔ ২০ লক্ষ নেকীর দোয়া :
" লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াহদাহু লা-শারিকা'লাহু আহাদান সামাদান লাম ইয়ালিদ ওয়া লাম ইউ লাদ ওয়া লাম ইয়া কুল্লাহু কুফুয়ান আহাদ।"

পরিশেষেঃ 
যত বেশি পড়বেন তত বেশি সওয়াব। আপনার উসীলায় অন্য কেউ আমল করলে আপনেও সওয়াবের ভাগিদার হবেন।

⛔ "যে ব্যক্তি কল্যাণ ও সৎকাজের সুপারিশ করবে, সে তা থেকে অংশ পাবে (সুরা নিসা : ৮৫)

10 - 700 গুণ সওয়াবঃ
➖➖➖➖➖➖➖
⛔ রাসুল (ﷺ) বলেন ‘আল্লাহ তাআলা বলেন, আদম সন্তানের প্রত্যেক আমল তার নিজের জন্য; তাতে তার সওয়াব ১০ থেকে ৭০০ গুণ বাড়িয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু রোযা নয়। রোযা হল আমার জন্য। আর আমি নিজে তার প্রতিদান দেব।’’ (বুখারী ও মুসলিম)

⛔ রাসূলে পাক (ﷺ) ইরশাদ করেন-
▪ যে নামাজে দাড়িয়ে কুরআন তেলাওয়াত করবে সে প্রতি হরফের বিনিময়ে ১০০টি নেকী লাভ করবে,
▪ যে নামাজে বসে বসে কুরআন তেলাওয়াত করবে সে প্রতি হরফের বিনিময়ে ৫০টি নেকী লাভ করবে,
▪ নামাজের বাইরে অজু সহকারে যে কোরআন তেলাওয়াত করবে সে প্রতি হরফের বিনিময়ে ২৫টি নেকী লাভ করবে,
▪ আর নামাজের বাইরে অজু ছাড়া যে কুরআন তেলাওয়াত করবে সে প্রতি হরফের বিনিময়ে ১০টি নেকী লাভ করবে।
হাদিস বর্ণনা করেছেনঃ
🔯 হযরত আলী (রা.), 🔯 ইবনে মাসউদ (রা.) [তিরমীজি, দারেমী, ইমাম গাজ্জালিঃ এহইয়াউল উলুম]

Calculation 1 :
➖➖➖➖➖
ইনশাআল্লাহ আল্লাহ চাইলে মাত্র ২০ মিনিটেও পেতে পারেনঃ
📌 [২০ খতম❌৭০০ গুন সওয়াব = ১৪০০০ বার খতমের সওয়াব।] (সুবহানআল্লাহ)

Calculation 2 :
➖➖➖➖➖
📌 নামাজের মধ্যে "বিসমিল্লাহ হির রাহমানির রাহিম" শুধুমাত্র ১ বার পাঠ করলে ইনশাআল্লাহ আল্লাহ পাক চাইলে ১৩৩০০০০টি নেকী দিতে পারেন। যেমনঃ
[১৯টি হরফ❌১০০=১৯০০ টি নেকীর সওয়াব।] (সুবহানআল্লাহ)
[১৯০০❌৭০০ গুন সওয়াব] = ১৩৩০০০০ টি নেকীর সওয়াব।] (সুবহানআল্লাহ)

Calculation 3 :
➖➖➖➖➖
ইনশাআল্লাহ আল্লাহ পাক চাইলে একটি আয়াত পাঠে ৩৭ লক্ষ ৮০ হাজার নেকী দিতে পারেন। যেমনঃ

সুরা-আর রাহমানের একটি আয়াতঃ
⛔ ফাবিআইয়্যি আলা---ই রাব্বি কুমাতো কাজ্জিবান।
(সুরা আর-রাহমান)
অর্থ : তবে তোমরা তোমাদের রবের কোন অনুগ্রহকে অস্বীকার করবে?

⛔ এই আয়াত উক্ত সুরায় কত বার আছে? কত হরফ? কত সওয়াব?
▪ এই আয়াতটি সুরা আর-রহমানে ৩০ বার পুনরাবৃত্তি হয়েছে।
▪ উক্ত আয়াতে ১৮ টি হরফ আছে।
▪ সুতরাং আয়াতটি ১ বার পড়লে ইনশাআল্লাহ ৩০ বার পড়া হয়ে যাবে।
▪ যেহেতু আল-কোরআন তেলাওয়াতে প্রতি হরফের বিনিময়ে আল্লাহ ১০টি নেকী দিবেন।
[তিরমিযী হা/২৯১০; মুসতাদরাকে হাকেম হা/২০৯২;
মিশকাত হা/২১৩৮, হাদীছ ছহীহ।]

◾১৮ (হরফ)❌১০ (নেকী)❌৩০ (বার) = ৫৪০০ নেকী। (সুবাহানাল্লাহ)
◾৫৪০০ নেকী❌৭০০ গুন সওয়াব = ৩৭ লক্ষ ৮০ হাজার নেকীর সওয়াব। (সুবহানআল্লাহ)