কাফনে নারীকে কয়টি কাপড় পরাতে হবে?

কাফনে নারীকে কয়টি কাপড় পরাতে হবে?

ইসলামী শরীয়ত বহুক্ষেত্রেই নারী ও পুরুষের ইবাদতের বিধিান ভিন্ন ভিন্ন নির্ধারণ করেছে।

মাযহাব চতুষ্টয় (হানাফী, মালিকী, শাফীয়ী, হাম্বালী) এর ইজমা হচ্ছে মাইয়্যেত মহিলা হলে তাঁকে পাঁচ টুকরা কাপড়ে আবৃত করে দাফন করা হবে।
[দেখুন- বাদাঈ আল-সানাঈ’ (২/৩২৫); মাওয়াহিব আল-জালীল (২/২৬৬); আল-মাজমু’ (৫/১৬১); আল-মুগনী (৩/৩৯০) এবং আল-মুহাল্লা (৫/১২০)]।

ইবনে আল-মুনজীর বলেনঃ সংখ্যাগরিষ্ট উলামায়ে ক্বিরামের অভিমত হচ্ছে মাইয়্যেত মহিলার কাফন পাঁচ কাপড়ে হবে।
[সূত্রঃ আল-মুগনী ৩/৩৯১, ফিকাহুস সুন্নাহ ১খন্ড ৬৩৩পৃ.]।

কাফনের জন্য এমন পরিমান কাপড় হওয়া উচিত যাতে মৃত ব্যক্তির সমস্ত সতর ঢেকে যায়। তবে পুরুষের জন্য তিন কাপড়ে কাফন দেওয়া মুস্তাহাব। এবং নারীদের পাঁচ কাপড়ে কাফন দেওয়া মুস্তাহাব।
[সূত্রঃ আলমুলাখ্ খাসলু ফিকহী ১/২০৯-২১০পৃ.]।

কাজেই জীবিত অবস্থার ন্যায় মৃত নারীর বেলায় নারী ও পুরুষের কাফনের বিধান আলাদা।
পুরুষকে তিনটি কাপড়ে কাফন দেয়া গেলেও নারীকে দিতে হবে পাঁচটি কাপড়ে।
যথাঃ
১. ইযার, যা দিয়ে তার নিম্নাংশ আবৃত করা হয়।
২. উড়না; এটা থাকবে হবে মাথার উপর।
৩. জামা; এটা থাকবে তার শরীরের উপর।
৪-৫. থাকবে দু’টি লেফাফা; যা দিয়ে তার পূর্ণ শরীরকে ঢেকে দেওয়া হবে।
ইহা মালিকী, শাফিয়ী, হাম্বালী মাযহাবেরও অভিমত।
[সূত্রঃ মাওয়াহিব আল-জালীল (২/২৬৬), আল মাজমু’ (৫/১৬২) এবং আল-মুগনী (৩/৩৯২)]।

হযরত লায়লা সাকাফিয়্যাহ [রাদ্বিয়াল্লাহু আনহা] বর্ণনা করেন- হযরত উম্মে কুলসুম [রাদ্বিয়াল্লাহু আনহা] বিনতে রাসূলে কারিম (صلى الله عليه و آله وسلم) মারা গেলে যাঁরা তাঁকে গোসল দেয়, আমি তাঁদের একজন ছিলাম। রাসূলে কারিম [صلى الله عليه و آله وسلم] আমাদেরকে প্রথম যা দিয়ে ছিলেন, তা ছিলো ইযার, এরপর জামা, এরপর উড়না, এরপর লেফাফা। আমরা এগুলোকে আরেকটি কাপড় দিয়ে আচ্ছাদিত করে দেই।
[দেখুন- আবু দাউদ হা/ ৩১৫৭]।
ইমাম শাওকানী বলেন- হাদীস প্রমাণ করে যে, নারীর কাফনের জন্য বিধান হচ্ছে ইযার, জামা, উড়না, চাদর ও লেফাফা।

ঈরওয়া আল গালীলে পথভ্রষ্ট মিথ্যাবাদী আলবানী যাকে ওহাবীরা মুহাদ্দিস মান্য করে তারা তার রায় গ্রহণ করে সে মুবারক হাদিসটিকে দ্বঈফ রায় দিয়ে হাদিসটি রাসূলে কারিম (صلى الله عليه و آله وسلم) এঁর হাদিস হওয়া সত্ত্বেও তা পালনে অসম্মতি জানিয়েছে। অথচ হযরত উম্মে আতিয়্যা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহা থেকে বর্ণিত ইবনে জাওজীর বর্ণনায় হাদিসটির সমর্থনকারী রয়েছে, যাতে তিনি বলেনঃ আমরা তাঁকে পাঁচ কাপড়ে আবৃত করে ছিলাম, আর জীবিত মহিলার ন্যায়ই তাঁকে আবৃত করেছিলাম।
আল-আল-হাফিজ অাল আস্কালানী বলেনঃ হাদিসটির সনদ সহীহ।
[সূত্রঃ ফাতহুল বারী ৩/১৫৯]।

ইবনে কুদামা বলেনঃ
মাইয়্যেত মহিলাকে এইরুপে আবৃত করা মুসতাহাব, কেননা জীবিত মহিলা জীবিতকালে জীবিত পুরুষের চেয়ে বেশী আবৃত থাকে। এর কারন হল মহিলার ‘আওরাহ পুরুষের চেয়ে ব্যাপক বিস্তৃত, কাজেই মৃত্যুর পরেও মহিলার 'আওরাহ অনুরুপই থাকে বিধায় ভিন্নতা রক্ষিত হবে।
[দেখুন- আল-মুগনী (৩/৩৯১)]।
আরও দেখুন- হিদায়া, দুররে মুখতার, আলমগীরী, ক্বাজী খান, ফাতহুল কাদীর ইত্যাদি প্রাচীন ফাতওয়া গ্রন্থসমূহ।
_________

এ প্রসঙ্গে মিথ্যুক তদুপরি অপব্যাখ্যাকারী নসিরুদ্দীন আলবানী মনেগড়ে তথা মনগড়া বলেছেঃ
‘এতে (নারীদের কাফনের ক্ষেত্রে) কোন সন্দেহ নেই যে, মহিলারা এ ব্যাপারে পুরুষের ন্যায়। কারণ পুরুষ হল মুল। যেমন রাসূল (ছাঃ) এর কথা দ্বারা বুঝা যায়। মহিলারা মূলত পুরুষদেরই অংশ বা খন্ড। (আলবানী বলেছে) কাজেই নারী পুরুষের পার্থক্য না করে তিন কাপড়ে কাফন দিতে হবে'।

প্রিয় পাঠক, মিথ্যুক আলবানী মাইয়্যেত মহিলার কাফনের কাপড়ের ক্ষেত্রে উলামায়ে ক্বিরামের ইজমাকে প্রত্যাখ্যান করে ওহাবী বিধান সাব্যস্থ করার জন্যে অপ্রাসঙ্গিকভাবে অন্য প্রসঙ্গের কথা এখানে আলোচনায় উদাহরন দেখিয়েছে যে "রাসূল (ছাঃ) এর কথা দ্বারা বুঝা যায়। মহিলারা মূলত পুরুষদেরই অংশ বা খন্ড"।
তার উক্ত অপ্রাসঙ্গিক উদাহরন দ্বারা কাফন পরিধান করানোর ক্ষেত্রে মহিলা পুরুষের অনুরুপ হওয়া কখনো প্রমানিত হয় না।
[দেখুন- আলবানীর টেম্পারিং করা মিশকাত হা/৪৪১, আলবানীর সিলসিলা যঈফাহ হা/৫৮৪৪এর আলোচনা দ্রঃ]।

Previous Next

نموذج الاتصال