হাকিকতে নূরে মুহাম্মদী (ﷺ)- ২য় পর্ব | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস

হাকিকতে নূরে মুহাম্মদী (صلى الله عليه و آله و سلم)

●■ □ মাহবুবে খোদা আল্লাহর প্রথম সৃষ্টি নূরঃ
আল্লাহর হাবিব সৃষ্ট নূর এবং তাঁর নূর দ্বারা আল্লাহ পাক কুল কায়েনাত সৃষ্টি করেছেন। একাদশ শতাব্দীর মুজাদ্দিদ আল্লামা শেখ আব্দুল হক মোহাদ্দিসে দেহলভী আলাইহির রহমত নিজ مدارج النبوة ‘মাদারিজুন নবুয়ত’ শীর্ষক কিতাবের ২/২ পৃষ্ঠায় উল্লেখ করেছেন -
بدانکہ اول مخلوقات وواسطۂ صدور کائنات وواسطۂ خلق عالم وآدم نور محمدست صلی اللہ علیہ وسلم- چنانکہ درحدیث صحیح وارد شدہ کہ اول ما خلق اللہ نوری وسائرمکونات علوی وسفلی ازان نور وازان جوھر پاک پیدا شدہ ازارواح واشباح وعرش وکرسی ولوح وقلم وبہشت ودوزخ وملک وفلک وانس وجن وآسمان وزمین وبحار وجبال واشجار وسائر مخلوقات ودرکیفیت صدور این کثرت ازان وحدت وبروز وظھور مخلوقات ازان جوھر عبارات وتغيرات غر
يب آوردہ اند وحدیث اول ما خلق اللہ العقل نزد محققین ومحدثین بصحت نرسیدہ وحدیث اول ما خلق اللہ القلم نیزگفتہ اند کہ مراد بعد العرش والماءاست کہ واقع شدہ است وکان عرشہ علی الماء الخ-
ভাবার্থ: এ এক চিরন্তন বাস্তবতা যে, নূরে মোহাম্মদী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হচ্ছেন সমগ্র সৃষ্টির প্রথম, সমস্ত কায়েনাতের ওসিলা, বিশ্বজগৎ এবং হযরত আদম আলাইহিস সালাম-এর সৃষ্টির মাধ্যম হচ্ছে নূরে মোহাম্মদী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম। সহিহ হাদিস শরীফে এসেছে, রাসূলে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এরশাদ করেছেন - اول ما خلق الله نورى ‘আউয়ালু মা খালাকাল্লাহু নুরী’
অর্থাৎ, আল্লাহতা’য়ালা সমস্ত মাখলুক সৃষ্টির পূর্বে আমার নূর মোবারক সৃষ্টি করেছেন এবং ঊর্ধ্ব ও অধঃজগতের সবকিছুই নূর নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর নূর মোবারক থেকে সৃষ্ট। তাঁর পবিত্র নূরী জাওহার থেকে সৃষ্টি হয়েছে রূহসমূহ, আরশ, কুরসি, লওহ, কলম, বেহেশত, দোযখ, ফেরেশতা, ইনসান, জিন, আসমান, জমিন, সাগর, পাহাড়, গাছ, বৃক্ষ এবং কুল মাখলুকাত। এ সকল কিছুর প্রকাশ ও বিকাশ ঘটেছে তাঁরই ওসিলায়। সেই হাকিকতের প্রকাশে বিজ্ঞ বিজ্ঞ আলেমগণ বিস্ময়কর ও সূক্ষ বর্ণনা পেশ করেছেন।’
এক রেওয়ায়েতে এসেছে -اول ما خلق الله العقل ‘আউয়ালু মা খালাকাল্লাহুল আকলু’; আল্লাহতা’য়ালা সর্বপ্রথম আকল সৃষ্টি করেছেন। তবে এই হাদিস মুহাক্কিক ও মুহাদ্দিসগণের মতে সহিহ-এর স্তরে পৌঁছেনি। অন্য রেওয়ায়েতে রয়েছে - اول ما خلق الله القلم ‘আউয়ালু মা খালাকাল্লাহু কলম’ সর্বপ্রথম আল্লাহতা’য়ালা কলম সৃষ্টি করেছেন। এ হাদিসটির অর্থ মুহাদ্দিসগণ এভাবে করেছেন যে, আরশ ও পানি সৃষ্টির পরে প্রথমে কলম সৃষ্টি করেছেন। আবার কোনো কোনো হাদিসের ব্যাখ্যায় এ রকম এসেছে যে, পানি সৃষ্টি হয়েছিল আরশের পূর্বে وكان عرشه على الماء
এর পরপরই আল্লামা শেখ আব্দুল হক মুহাদ্দিসে দেহলভী আলাইহির রহমত বলেন, হাদিস শরীফে এসেছে, যখন কলম সৃষ্টির পর আল্লাহতা’য়ালা তাকে বললেন লেখো, তখন কলম বললো, কী লেখবো? আল্লাহতা’য়ালা বললেন, ما كان وما يكون الى الابد ‘মা কানা ওয়ামা ইয়াকুনু ইলাল আবাদ’ অতীত এবং ভবিষ্যতের সবকিছু লিখো। এতে স্পষ্টভাবে প্রমাণিত হল যে, কলম সৃষ্টির পূর্বেও কিছু সৃষ্টি হয়ে ছিল। আলেমগণ বলেন, আরশ, কুরসি এবং রূহসমূহ সৃষ্টির পূর্বে নূর নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নূর মোবারক প্রকাশ্য জগতে এসেছে। ما كان ‘মা কানা’ যা কিছু হয়েছিল এ অর্থই বহন করে। তা হলো নূরে মুহাম্মদীর হাল ও সিফাতসমূহ। কেননা, সমগ্র জগতের মধ্যে নূরে মুহাম্মদী অগ্রগণ্যতা সুসাব্যস্ত اول ما خلق الله نورى অপরদিকে وما يكون ‘ওমা ইয়াকুনু’-এর অর্থ হলো, পৃথিবীর পরবর্তীতে প্রকাশিতব্য সকল কিছু। আলমে জহুর বা বাহ্যিকজগতে রাসূলে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নবুওয়ত প্রমাণিত ছিল। যেমন আল্লাহর হাবিব বলেছেন, كنت نبيا وادم بين الروح والجسد অর্থ: আমি ওই সময়ও নবী ছিলাম, যখন আদম আলাইহিস সালাম আত্মা ও দেহের মাঝামাঝিতে ছিলেন। (মাদারিজুন নবুয়ত- ২-৩ পৃষ্ঠা)
আল্লামা শেখ আব্দুল হক মুহাদ্দিসে দেহলভী আলাইহির রহমত হাদিসের মাধ্যমে উল্লেখ করেছেন -

ودر اخبار آمدہ است کہ چون مخلوق شد نور انحضرت وبیرون آمدازوی انوار انبیاء علیہم السلام امرکرد اورا پروردگار تعالی کہ نظر کند بجانب انوار ایشان پس نظر کرد آنحضرت وپوشید انوار ایشاں را گفتندای پروردگار ما این کیست کہ پوشید نوروی انوار ما را گفت اللہ تعالی این نور محمد بن عبد اللہ است اگر ایمان آرید بوے میگرادنم شمارا انبیاء گفتند ایمان آوردیم یارب بوے وبہ نبوت وی پس گفت رب العزت جل جلالہ گواہ شدم برشمادانیست معنی قول حق سبحانہ تعالی واذا اخذ اللہ میثاق النبیین لما اتیتکم من کتاب رحکمۃ الایۃ- مدارج النبوۃ ص ۳/ ۲
ভাবার্থ: ‘হাদিস শরীফে এসেছে, যখন নূরে মোস্তফা সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে সৃষ্টি করা হলো এবং তাঁর নূর থেকে (আল্লাহর হাবিবের নূর থেকে) সকল নবীগণ আলাইহিমুস সালাম-এর নূরসমূহ বের করা হলো, তখন আল্লাহতায়ালা নূরে মোস্তফা আলাইহিস সালামকে বললেন, ওই নূরসমূহের প্রতি দৃষ্টিপাত করুন। তিনি তাই করলেন। ফলে তাঁর নূর সকল নূরের ওপর প্রাধান্য বিস্তার করলো এবং অন্যান্য নূর হয়ে গেল আলোকবিহীন। তাঁরা নিবেদন করলেন, হে পরওয়ারদিগারে আলম! তা কার নূর, যা আমাদের সকলের নূরকে ম্লান করে দিলো? আল্লাহতা’য়ালা ইরশাদ করলেন, এ নূর মোহাম্মদ ইবনে আব্দুল্লাহর। তোমরা যদি তাঁর প্রতি ঈমান আনো, তবে আমি তোমাদেরকে নবী বানাবো। সকলেই সমস্বরে বললেন, হে আমাদের রব! আমরা তাঁর প্রতি ও তাঁর নবুয়তের প্রতি ঈমান আনলাম। আল্লাহতা’য়ালা অতঃপর বলেন, আমি তোমাদের এ কথার সাক্ষী রইলাম। এদিকে ইঙ্গিত করেই কোরআন মজীদের এক আয়াতে কারীমায় বলা হয়েছে -
واذ اخذ الله ميثاق النبيين لما اتيتكم من كتاب و حكمة الخ
অর্থাৎ, আল্লাহ যখন নবীগণের কাছ থেকে এই মর্মে অঙ্গীকার গ্রহণ করলেন যে, আমি তোমাদেরকে কিতাব ও হিকমত দান করবো। (মাদারিজুন নবুয়ত, ২-৩ পৃষ্ঠা)
তাফসিরে রুহুল মায়ানী ৩য় জিল্দ ৮ পারা ৭১ পৃষ্ঠায় উল্লেখ রয়েছে -

(وانا اول المسلمين ۱٦۳) وقيل: هذا اشارة الى قوله عليه الصلوة والسلام- اول ما خلق الله تعالى نورى-
অর্থাৎ, আলোচ্য আয়াতে কারীমার তাফসিরে রাসূলে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর اول ما خلق الله نورى ’সর্বপ্রথম আল্লাহতা’য়ালা আমার নূর সৃষ্টি করেছেন’ বাণীতে এ দিকেই ইঙ্গিত করা হয়েছে।
تفسير روح البيان
‘তাফসিরে রুহুল বয়ান’ ৩য় জিলদের সূরায়ে আনআম ১২৯ পৃষ্ঠায় আশ শায়খ ইসমাঈল হক্কী বরছয়ী আলাইহির রহমত (ওফাত ১১৩৭ হিজরি) বলেন -

(وانا اول المسلمين) يعنى اول من استسلك عند الايجاد لامركن وعند قبول فيض المحبة لقوله (يحبهم ويحبونه) والاستلام للمحبة فى قوله يحبونه دل عليه قوله عليه السلام (اول ما خلق الله نورى)
অর্থাৎ, وانا اول المسملين ’আমি সর্বপ্রথম মুসলমান’ - এর অর্থ হলো, সর্বপ্রথম সৃষ্টি করার সময় আল্লাহতা’য়ালার আদেশ كن ‘কুন’ ’হয়ে যাও’কে আমি সর্বপ্রথম মেনে নিয়েছি। অনুরূপভাবে, মহব্বতের ফয়েজ গ্রহণ করার সময় আমি-ই সর্বপ্রথম তা গ্রহণ করেছি। কারণ আল্লাহতা’য়ালা এরশাদ করেন, তিনি তাঁদের মহব্বত করেন। আর তাঁরাও আল্লাহকে মহব্বত করেন। এ মহব্বতে ফয়েজ গ্রহণের বেলায় নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম প্রথম, যা তাঁর বাণী ‘আল্লাহ তা’য়ালা আমার নূরকে সর্বপ্রথম সৃষ্টি করেছেন’ প্রমাণ করছে।
শেখ আব্দুল হক মোহাদ্দিসে দেহলভী আলাইহির রহমত বলেন -

فضيلت اعلی واکمال وی صلی اللہ علیہ وسلم وآلہ وسلم آنست کہ پرور دگار تعالی روح اورا پیشتر ازارواح خلائق پیدا کردہ وارواح سائر مکونات را از روح وے منشعب گردایندہ ہمہ را از نوروی آفریدہ ووی صلی اللہ علیہ وسلم وآلہ وسلم نبی بودہ وآدم ھنوزمیاں روح وجسد بود کما رواہ الترمذی عن ابیھریرۃ رضی اللہ عنہ ودر عالم ارواح نیز فیض بارواح انبیاء از روح او رسیدہ، (مدارج النبوت جلد ۱ ص ۱٤۳)
ভাবার্থ: নূর নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সবচেয়ে উন্নত ও পরিপূর্ণ মর্যাদা হলো এই যে, আল্লাহতা’য়ালা হুজুর সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের রূহ মোবারককে অন্যান্য সকল রূহ মোবারকের পূর্বে সৃষ্টি করেছেন। তারপর আল্লাহর হাবিবের রূহ মোবারক হতে সমস্ত রূহ সৃষ্টি করেছেন। হযরত আদম আলাইহিস সালাম রূহ ও জসদ বা শরীরাকৃতির মধ্যে থাকা অবস্থায় রাসূলে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নবী ছিলেন, যেমনটি তিরমিজি শরীফে হযরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণনা করা হয়েছে। অপরদিকে, আলমে আরওয়াহ বা রূহের জগতে এমনকি সমস্ত নবীগণের রূহ মোবারকগণ ও সায়্যিদে আলম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের রূহ মোবারক হতে পূর্ণ ফয়েজ ও বরকত প্রাপ্ত হয়েছেন।
শাহ ওলি উল্লাহ মুহাদ্দিসে দেহলভী আলাইহির রহমত নিজস্ব ‘ইনতেবাহ ফি সালাসিলিল আউলিয়া আল্লাহ’ নামের কিতাবের ৮২ পৃষ্ঠায় উল্লেখ করেন -
نور اول کہ آں نور محمدی ست صلی اللہ علیہ وسلم ونیز آں را شھود اول می گویند-
অর্থাৎ, নূরে মুহাম্মদী সর্বপ্রথম সৃষ্টি। এজন্য তিনি-ই সর্বপ্রথম আল্লাহর একত্বের স্বাক্ষ্য প্রদান করেছিলেন।
মোল্লা আলী ক্বারী আলাইহির রহমত مرقاة شرح مشكوة ‘মিরকাত শরহে মিশকাত’ শীর্ষক কিতাবের ১ম জিলদের ১৩৭ পৃষ্ঠায় উল্লেখ করেন -
ان اول شئ خلق الله القلم وهو غير صحيح ... فا الاولية اضافيه والاول الحقيقى هو النور المحمدى على ما بينته فى المورد للمولد-
অর্থাৎ, নিশ্চয় আল্লাহতায়ালা সর্বপ্রথম কলম সৃষ্টি করেছেন। আর সেটা হচ্ছে গায়রে সহিহ বা অশুদ্ধ; অতএব, সেটা আউয়ালিয়তে এজাফি বা প্রথম। আর আউয়ালিয়তে হাকিকী প্রকৃত অর্থে সর্বপ্রথম সৃষ্টি হচ্ছে নূরে মুহাম্মদী। এ সম্পর্কে আমি ‘মাওরিদু লিল মাওলিদ’ নামের কিতাবে সবিস্তারে বর্ণনা করেছি।
[সূত্রঃ মিরকাত শরহে মিশকাত, ১ম জিল্দ, ১৩৭ পৃৃষ্ঠা।]

●■ □ হুব্বে এলাহির প্রথম বিকাশঃ
সৃষ্টির প্রথমেই আল্লাহতা’য়ালার حب ‘হুব্ব’ اراده ‘ইরাদা’। সুতরাং তওয়াজুহে হুব্বী-ই, অর্থাৎ, মহব্বতের দৃষ্টি-ই হচ্ছে প্রথম সৃষ্টি যা আল্লাহতা’য়ালা থেকে প্রকাশিত হয়েছে। বাকি সমস্ত মাখলুকাত সেই প্রথম সৃষ্টির শাখা এবং সমস্ত হাকিকত حب ‘হুব্ব’-এর মাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে।
মুজাদ্দিদে আলফেসানী আলাইহির রহমত তাঁর ‘মাকতুবাতে ইমামে রাব্বানী’ (তৃতীয় জিলদের ১৬০৭ পৃষ্ঠা ও ১৪৯ পৃষ্ঠা ১২২ নং মাকতুব) কিতাবে উল্লেখ করেন -

اور حقیقت محمدی علیہ وعلی آلہ الصلوۃ والسلام جوکہ حقیقت الحقائق ہے- مراتب ظلال طے کرنے کے بعد اس فقیر پر آخرکار جو کچھ منکشف ہوا ہے وتعین وظھور حبی ہے جوکہ تمام ظھورات کا مبدآ اور تمام مخلوقات کی پیدائش کا منشا ہے- مشھور حدیث قدسی میں آیا ہے- كنت كنزا مخفيا فاحببت ان اعرف فخلقت الخلق لاعرف (میں ایک مخفی خزانہ تھا میں نے محبوب رکھاکہ میں پہچانا جا‌ؤں پھر میں نے مخلوق کو پیدا کیا تاکہ میں پہچانا جا‌ؤں) سب سے پہلی چیز جو اس مخفی خزانہ سے ظھور کے تخت پرجلوہ گرہوئ وہ محبت تھی جو کہ مخلوقات کی پیدائش کا سبب ہوئ- اگر یہ محبت نہ ہوتی تو ایجاد کا دروازہ نہ کھلتا اور عالم عدم میں مستقل طور پر اپنا ٹھکانا رکھتا- حديث قدسى لو لاك لما خلقت الافلاك (اگر تونہ ہوتا تو میں آسمانوں کو پیدا نہ کرتا) جوکہ خاتم الرسل کی شان میں واقع ہے کا راز اس جگہ سے معلوم کرنا چاھۓ اور لو لاك لما اظهرت الربوبيت (اگر تونہ ہوتا تو میں ربوبیت کو ظاھر نہ کرتا) کی حقیقت کو اس مقام میں تلاش کرنا چاھۓ
ভাবার্থ: হাকীকতে মুহাম্মদী আলাইহি ওয়ালা আলাইহিস সালাতু ওয়াস সালাম حقيقت الحقائق ‘হাকিকাতুল হাকাইক’ বা সমস্ত হাকিকতের হাকিকত বা মূল। সর্বশেষে প্রতিবিম্বসমূহের স্তরসমূহ অতিক্রম করার পর এ ফকিরের প্রতি যা বিকশিত হলো, তা আল্লাহপাকের ‘হুব্ব বা মহব্বতের বিকাশ, যা সৃষ্টিজগতের উৎপত্তির কারণ এবং আল্লাহ তায়ালার ইচ্ছা, হাদিসে কুদসিতে মশহুর রয়েছে -
(كنت كنزا مخفيا فاحببت ان اعرف فخلقت الخلق لاعرف)
‘আমি গুপ্ত ধনভাণ্ডার ছিলাম। তৎপর আমি মুহব্বত রাখলাম যে, আমি পরিচিত হবো; এরপর আমি এক মাখলুক সৃষ্টি করলাম যাতে আমি পরিচিত হই।’
গুপ্ত ধনভাণ্ডার হতে সর্বপ্রথম যা প্রকাশ পেয়েছে, তাই হলো حب ‘হুব্ব’ বা মহব্বত। বিশ্বজগত সৃষ্টির কারণ এটি-ই। যদি এ হুব্ব বা মহাব্বত না হতো, তাহলে সৃষ্টির দ্বার উম্মুক্ত হতো না এবং জগতসমূহ নাস্তি বা শূন্যের গর্ভে দৃঢ়রূপে চিরস্থায়ী থাকতো।
এ ব্যাপারে হাদিসে কুদসিতে উল্লেখ রয়েছে -
(لو لا ك لما خلقت الافلاك)
’যদি আপনি না হতেন, তাহলে আমি (খোদা) আকাশমণ্ডল সৃষ্টি করতাম না’, যা সর্বশেষ নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর শানে এসেছে। তাঁর হাকীকত বা রহস্য এ স্থলে অন্বেষণ করা উচিত এবং لو لاك لما اظهرت الربوبيت ‘আপনি না হলে আমি নিজ প্রভুত্বও প্রকাশ করতাম না’ - এ হাদিসের তত্ব এস্থলে জ্ঞাত হওয়া আবশ্যক।
আল্লামা শেখ আব্দুল হক মুহাদ্দিসে দেহলভী আলাইহির রহমত ‘মাদারিজুন নবুয়ত’ নামের কিতাবের দ্বিতীয় জিলদের ৭৮১ পৃষ্ঠায় উল্লেখ করেন -
(وصل در بیان سر تسمیہ وی صلی اللہ علیہ وسلم الخ)
অনুবাদ: রাসূলে আকরাম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নাম মোবারক حبيب خدا ‘হাবিবে খোদা’ হওয়ার রহস্যবলীর আলোচনা এবং তাঁর নাম মোবারক মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সাব্যস্ত হওয়ার কারণ।
এ সম্পর্কে হযরত ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে হাদিস বর্ণিত হয়েছে - আল্লাহর হাবিব বলেছেন, একদিন সাহাবায়ে কেরামগণ রাসূলেপাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের আগমনের অপেক্ষায় বসে ছিলেন। কিছুক্ষণ পর আল্লাহর হাবিব তাশরিফ আনলেন এবং সাহাবায়ে কেরামের নিকটবর্তী হলেন। শুনতে পেলেন, সাহাবিগণ পরস্পর আলোচনা করছেন, নিশ্চয় আল্লাহতায়ালার মাখলুকের মধ্য থেকে ইব্রাহিম আলাইহিস সালামকে তাঁর খলিল বানিয়েছেন। অপরজন বললেন, আল্লাহতায়ালা মুসা আলাইহিস সালামের সঙ্গে কথা বলেছেন। তৃতীয়জন বললেন, আল্লাহতা’য়ালা ঈসা আলাইহিস সালামকে কালিমুল্লাহ এবং রূহুল্লাহর মর্যাদা দান করেছেন। চতুর্থজন বললেন, আদম আলাইহিস সালামকে আল্লাহ তায়ালা সফিউল্লাহ বানিয়েছেন। রাসূলে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁদেরকে সালাম দিয়ে বললেন, আমি তোমাদের কথোপকথন শুনলাম। তোমরা বলেছো, আল্লাহতা’য়ালা ইব্রাহিমকে খলিল, মুসাকে কালিমউল্লাহ, ঈসাকে রূহুল্লাহ এবং আদমকে সফিউল্লাহ বানিয়েছেন। তোমরা জেনে রাখো এবং হুশিয়ার হয়ে যাও যে, আল্লাহতা’য়ালা আমাকে حبيب الله ‘হাবিবুল্লাহ’ উপাধিতে ভূষিত করেছেন এবং এতে আমার কোনো অহংকার নেই। কিয়ামত দিবসে আমি লিওয়াউল হাম্দ বা প্রশংসার পতাকা বহনকারী হবো। এতেও আমার কোন ফখর নেই। আমি কিয়ামতের দিন প্রথম শাফায়াতকারী হবো এবং আমার শাফায়াত সর্বপ্রথম কবুল করা হবে। এতেও আমার কোনো ফখর নেই। কিয়ামতের দিন আমি-ই সর্বপ্রথম জান্নাতের দরজায় করাঘাত করবো, তখন আমার জন্যে সর্বপ্রথম জান্নাতের দরজা খোলা হবে। সেদিন আমি-ই সর্বপ্রথম জান্নাতে প্রবেশ করবো। তখন আমার সঙ্গে থাকবে আমার উম্মতের ফকির দরবেশগণ। আমি-ই اولين واخرين পূর্ববর্তী ও পরবর্তী সকলের মধ্যে অধিক সম্মানিত হবো, এতে আমার কোনো দর্প বা ফখর নেই। হাবিবে খোদা সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কামালাত ও সর্বসৃষ্টির মধ্যে শ্রেষ্ঠত্বের বর্ণনায় এ হাদিসটি পূর্ণাঙ্গ দলিল হিসেবে পরিগণিত।’
ইমাম ইবনে হজর হাইতমী আলাইহির রহমত (বেসাল: ৯৭৪ হিজরি) নিজ ‘আদদুররুল মনদুদ’ নামের কিতাবের ২৮ পৃষ্ঠায় উল্লেখ করেন-
قال الفخر الرازى: وقع الاجماع على ان افضل النوع الانسان نبينا سيدنا محمد صلى الله عليه وسلم لقوله صلى الله عليه وسلم- انا سيد ولد ادم ولا فخر-
ভাবার্থ: হুজুর সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যে মানবজাতির মধ্যে শ্রেষ্ঠ মনুষ্য আকৃতিসম্পন্ন, এর ওপর ইজমা হয়েছে। আল্লাহর হাবিব নিজেই এরশাদ করেন, আমি আদম সন্তানদের সরদার। এতে আমার কোনো গর্ব নেই।
উপরোক্ত দলিলভিত্তিক বর্ণনা দ্বারা স্পষ্টভাবে প্রমাণিত হলো আল্লাহ তায়ালা নূর নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে সর্বসৃষ্টির শ্রেষ্ঠত্ব প্রদান করে তাঁকে حبيب ‘হাবিব’ নামে ভূষিত করেছেন।
অতঃপর আল্লামা শেখ আব্দুল হক মুহাদ্দিসে দেহলভী আলাইহির রহমত مدارج النبوة ‘মাদারিজুন নবুয়ত’ কিতাবের দ্বিতীয় জিলদের ৭৮২ পৃষ্ঠায় আরো উল্লেখ করেন -
وبتحقیق گذشت بیان علو مکان ومکانت وی صلی اللہ علیہ وسلم مقصود اینجا اگاھے بسر تخصیص اوست صلی اللہ علیہ وسلم باسم الحبیب پس بدانکہ مقام حبی اعلا مقامات کمالیہ است ۔۔۔ الخ
অর্থাৎ ‘নিঃসন্দেহে ইতিপূর্বে রাসূলে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের উচ্চস্থান এবং উচ্চমর্যাদা সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে। এখানে বর্ণনা করার একমাত্র উদ্দেশ্য হলো নূর নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জন্য حبيب ‘হাবিব’ শব্দটির রহস্য উদঘাটন। সুতরাং গভীরভাবে হৃদয়ঙ্গম করে নাও যে, কামালাতের মাকামসমূহের মধ্যে উন্নততর মাকাম হচ্ছে مقام حبى ‘মাকামে হুব্বী’ বা মহব্বতের স্থল। به تحقيق তাহকিক সহকারে বর্ণনা করা হয়েছে।
হাদিসে কুদসিতে আল্লাহ তায়ালা ইরশাদ করেছেন -
كنت كنزا مخفيا فاحببت ان اعرف فخلقت الخلق وتعرف اليهم فبى عرفونى وعرفت بهم-
(আমি রহস্যের গুপ্ত ধনভাণ্ডার ছিলাম; তৎপর আমি মহব্বত রাখলাম যে আমি পরিচিত হবো, এরপর আমি এক মাখলুক সৃষ্টি করলাম এবং আমি তাদের কাছে পরিচিত হলাম। এ দ্বারা তারা আমাকে চিনলো, আমিও তাদেরকে চিনলাম।
সুতরাং توجه حبى ‘তাওয়াজ্জুহে হুব্বীই’, অর্থাৎ, মহব্বতের দৃষ্টি-ই হচ্ছে প্রথম সৃষ্টি। যা আল্লাহতা’য়ালা থেকে প্রকাশিত হয়েছে। বাকি সমস্ত মাখলুকাত সেই প্রথম সৃষ্টির শাখা এবং সমস্ত হাকিকত حب ‘হুব্ব’-এর মাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। সৃষ্টির যে প্রথম হুব্ব (ইরাদা) তা যদি না হতো, তাহলে কোনো মাখলকু-ই পয়দা হতো না। আর যদি মাখলুক পয়দা না হতো, তাহলে আসমা ও সিফাতে এলাহিকে কেউ জানতো না। হুজুর সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের পবিত্র রূহে মোবারকের ওসিলায় মাখলুক প্রকাশিত হয়েছে।
মোদ্দা কথা হলো, রূহে মুহাম্মদী না হলে কোনো কিছুই সৃষ্টি হতো না এবং আল্লাহতায়ালাকে কেউ জানতো না। কারণ হুব্ব حب হচ্ছে ওজুদে মওজুদা বা সৃষ্টির অস্তিত্বের জন্যে প্রথম ওয়াসেতা বা মাধ্যম।
(اگر روح پاک محمدی نمی بود نمی شناخت خدارا ھیچ احدی زیرا کہ پیدا نمی بود ھیچ احدی پس حب واسطہ اولی است مروجود موجودات را)

به تحقيق
তাহকিকের মাধ্যমে বর্ণিত আছে, আল্লাহতায়ালা মে’রাজের রাত্রিতে তাঁর হাবিবকে বলেছিলেন -
لو لا ك لما خلقت الافلاك

‘লাউ লাকা লামা খালাকতুল আফলাক’, অর্থাৎ, হে আমার হাবিব! আপনি না হলে আমি আসমানসমূহ সৃষ্টি করতাম না।
সুতরাং স্পষ্টভাবে প্রমাণিত হল, রাসূলে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর গোপন ভাণ্ডার পরিচয়ের জন্য توجه حبى ‘তাওয়াজুহে হুব্বী’ই হলো মুল মাকসুদ। তারপর তিনি ছাড়া যতো কিছু, সব কিছুই তাঁর সঙ্গে সংযুক্ত হয়েছে। তিনি-ই حب الهى ‘হুব্বে এলাহি’র মূল মাকসুদ। তিনি ছাড়া অন্য সব তার শাখা তুল্য। সেই জন্য আল্লাহতা’য়ালা তাঁকে حبيب ‘হাবিব’ নাম দ্বারা খাস করেছেন। তিনি ছাড়া অন্য কাউকে হাবিব নামে আখ্যায়িত করা হয়নি। আল্লাহর হাবিবের উম্মতের মধ্য থেকে যে ব্যক্তি তাঁর অনুসরণ করবে, আল্লাহপাক তাকে محبوب ‘মাহবুব’ বানাবেন। আল্লাহ তাবারাকা ওয়া তা’য়ালা নিজেই ইরশাদ করেছেন -
قل ان كنتم تحبون الله فاتبعونى يحببكم الله-
হে হাবিব! আপনি বলে দিন, তোমরা যদি আল্লাহতা’য়ালার ভালোবাসা বা মুহব্বত লাভ করতে চাও, তবে আমাকে অনুসরণ করো, আল্লাহতা’য়ালা তোমাদেরকে মহব্বত করবেন।
মাদারিজুন নবুয়ত ২য় জিলদের ৭৮৩ পৃষ্ঠায় (ফার্সি) উল্লেখ রয়েছে -
‘প্রকাশ থাকে যে, حب على الاطلاق ‘হুব্ব আলাল ইতলাক’, অর্থাৎ, হুব্বে মতলাক বা সাধারণত ‘হুব্ব’-এর নয়টি স্তর রয়েছে। তন্মধ্যে একটি স্তর খালেক-এর মধ্যে। আর বাকি স্তরসমূহ মাখলুকের মধ্যে বিদ্যমান।
প্রথম স্তর যা খালেক এর মধ্যে বিদ্যমান তার নাম হচ্ছে حب ‘হুব্ব’, তবে এ ‘হুব্ব’-এর প্রকাশের জন্যে হরকত বা প্রতিক্রিয়া হওয়া জরুরি নয়। এই ‘হুব্ব’ যখন সৃষ্টি হবে, তখন তাঁর মধ্যে পাওয়া যাবে اراده ‘এরাদা’ বা অভিপ্রায়। প্রকৃতপক্ষে اراده ‘ইরাদা’ হক তা’য়ালার জন্য খাস।
উল্লেখ্য যে, আল্লাহতায়ালার আটটি সিফাতে খাসসা রয়েছে; এর মধ্যে একটি হল اراده ।
আল্লাহতা’য়ালার সিফাতে কামেলা হলো,
১. حيات
বা হায়াত বা জীবনী শক্তি
২. قدرت
বা কুদরত বা ক্ষমতা
৩. علم
বা জ্ঞান
৪. كلام
বা কালাম বা বাকশক্তি
৫. بصر
বা দর্শনশক্তি
৬. سمع
বা সামা বা শ্রবণশক্তি
৭. اراده
বা ইরাদা বা ইচ্ছাশক্তি
৮. تكوين
বা তাকবিন বা সৃষ্টিশক্তি।
এ সকল সিফাত আজলি এবং কাদীমী। যার আরম্ভও নেই, শেষও নেই। আল্লাহতা’য়ালার জাতের সঙ্গে বিদ্যমান।

●■ □ হুব্ব-এর নয়টি স্তরঃ
(১.) ميلان ‘ময়লান’ মাকলুকের মধ্যে যে ‘হুব্ব’ হয়ে থাকে, তার প্রথম স্তর হচ্ছে ميل ‘ময়ল’ বা মহব্বত করা। আর ময়লান হচ্ছে মতলব বা কাম্য বস্তুর প্রতি মনে আকর্ষণ।
(২.) رغبت ‘রগবত’ বা আকর্ষণ। এই আকর্ষণ যখনই বৃদ্ধি পায়, তখন তাকে বলা হয় ‘রগবত’ বা আকৃষ্ট হওয়া।
(৩.) طلب ‘তলব’ রগবত বা আকৃষ্ট হওয়ার মাত্রা অধিক হলে তাকে বলা হয় ‘তলব’ বা তালাশ করা।
(৪.) ولع ‘ওলা’ তলব-এর মাত্রা অধিক হলে তাকে বলা হয় ‘ওলা’ বা হালকা পাতলা অবস্থায় অতিক্রম করা।
(৫.) صابه ‘সবা’ বা বুদ্ধিহীনতা। ‘ওলা’র মধ্যে যখন কঠিন অবস্থা সৃষ্টি হয় এবং সে অবস্থা স্থায়িত্ব লাভ করে, তখন তাকে বলা হয় صابه ‘সবা’ বা বুদ্ধিহীনতা।
(৬.) ہوا ‘হাওয়া’ বা শূন্যস্থান। এ অবস্থা যখন প্রবল হয় এবং অন্তরের গভীরে নেমে আসে এবং কাম্য বস্তুলাভে শান্তি পায় তখন বলে ‘হাওয়া’ বা শূন্যস্থান।
(৭.) شغف ‘শাগাফ’ বা হৈচৈ। হাওয়া যখন প্রবল আকার ধারণ করে এবং তা অন্তঃকরণে আচ্ছন্ন হয়ে যায়, তখন তাকে বলে ‘শাগাফ’ বা হৈচৈ।
(৮.) عزم ‘এযাম’ এই শাগাফ যখন প্রেমিককে ফানা করে দেয়, সেই ফানা এমনভাবে বৃদ্ধি পায় যে, নিজের সত্তা থেকেও পৃথক হয়ে যায় এবং ফানা থেকেও ফানা হয়ে যায়, তখন তাকে ‘এযাম’ বা ফানার মাদ্দায় বা প্রাণপনে দৌঁড়ানোকে বলা হয় ‘এযাম’।
(৯.) এই ‘এযাম’ যখন সুদৃঢ় ও সুপ্রতিষ্ঠিত হয়ে বাহ্যিকতায় অবস্থান গ্রহণ করে, তখন ‘মুহিব’ ও ‘হাবিব’ ফানার মাধ্যমে দু’জনের দু’সত্তা থাকে না। অর্থাৎ, একজন ফানা হয়ে বিলীন হয়ে যায় এবং অপরজন আল্লাহতায়ালার অস্তিত্ব-ই একমাত্র বহাল থাকে তাকে حب مطلق হুব্বে মতলক বলা হয়ে থাকে। অর্থাৎ আশিক আল্লাহতায়ালার প্রেমে বিলীন হয়ে যায়, এটি-ই ফানা ফিল্লাহ।
উপরোক্ত ‘হুব্ব’-এর নয়টি স্তর প্রকৃতপক্ষে মাখলুকের জন্যে খাস। আল্লাহতায়ালার শানে তা ব্যবহার করা যাবে না। তবে হ্যাঁ, এ সমস্ত স্তরসমূহের সৃষ্টিকারী একমাত্র আল্লাহতায়ালা-ই। حب ‘হুব্ব’ ও اراده ‘ইরাদা’ একমাত্র আল্লাহতায়ালার জন্যে খাস। এ ‘হুব্ব’-এর আরেকটি স্তর আছে, যা আল্লাহতায়ালা ও মাখলুকের মধ্যে প্রকাশ পায়; তাকে مرتبه جامعه ‘মুরাত্বাবায়ে জামিয়া’ বা সমন্বিত স্তর নামে অভিহিত করা হয়ে থাকে। আবার দ্বিতীয় স্তরও বলা হয়।

আসমায়ে এলাহির মধ্যে একটি নাম আছে ودود ‘ওয়াদুদ’। আল্লাহতায়ালা তাঁর বান্দাদের মধ্যে যাঁকে চান, তাঁকে প্রেমদান করে থাকেন এবং বান্দাও তাঁর সাথে (আল্লাহর সাথে) প্রেমের বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে পড়েন। আল্লাহতা’য়ালা কালামে পাকে এরশাদ করেন -
فسوف يأتى الله بقوم يحبهم ويحبونه-
নিশ্চয়ই আল্লাহতা’য়ালা এমন এক সম্প্রদায় আনবেন, যাদেরকে তিনি (আল্লাহ) মহব্বত করবেন বা ভালোবাসবেন এবং তাঁরাও আল্লাহতা’য়ালাকে মহব্বত করবেন। এখানে উভয়েই মহব্বতের এ স্তরে পরষ্পর শরিক। ভালোবাসার এ স্তরটি আলমে জহুরে (প্রকাশ্যজগতে) উভয় পক্ষ থেকে হওয়ার কারণে মহব্বতের স্তরসমূহের মধ্যে সর্বশেষ মাকাম।
মাখলুকাতের জন্য ইশকে এলাহির স্তর থেকে অগ্রগামী কিছুই নেই -
اذ هو نار الله الموقدة التى تطلع على الافئدة-
যেহেতু এটি আল্লাহতা’য়ালার প্রজ্বলিত এশক্, যা হৃদয়কে গ্রাস করবে।
উপরোক্ত দলিলভিত্তিক আলোচনার দ্বারা স্পষ্টভাবে প্রমাণিত হলো আল্লাহতা’য়ালা হচ্ছেন قديم ‘কাদীম’ যার কোনো আরম্ভ নেই, শেষও নেই। যিনি ওয়াজিবুল ওয়াজুদ - الله موجود بالذات ।
আল্লাহতা’য়ালা সর্বপ্রথম তাঁর হাবিবের নূর মোবারক সৃষ্টি করেছেন হেকমতে কামেলা দ্বারা এবং এ সৃষ্টির মধ্যে আল্লাহতা’য়ালা ‘হুব্ব’ বা ইরাদা ছিল সরাসরি, যার মধ্যে কোনো ওয়াসেতা ব মাধ্যম ছিল না। আল্লাহ হচ্ছেন খালিক বা সৃষ্টিকর্তা এবং তাঁর হাবিব হচ্ছেন আল্লাহর সর্বপ্রথম সৃষ্টি, যাঁকে আল্লাহ মহব্বতের সঙ্গে সৃষ্টি করেছেন এবং যিনি সৃষ্টির মধ্যে বে-নজির (অনুপম)।
আল্লাহর হাবিব সৃষ্টিতে নূর, আপাদমস্তক নূর যাঁর ছায়া ছিলনা; আইনী নূর কিন্তু جنس بشر জিনসে বশর বা জাতিতে মনুষ্য আকৃতির, কিন্তু সৃষ্টির মধ্যে তাঁর কোনো তুলনা নেই। তাঁকে আমাদের মতো মানুষ বা দশজনের মধ্যে একজন মানুষ বলা বা আকিদা রাখা কুফুরি। অপরদিকে, আল্লাহর হাবিব হচ্ছেন جنس بشر জাতিতে মনুষ্য আকৃতির, اكمل بشر পূর্ণতাপ্রাপ্ত মানব-সুরত, خير البشر সর্বশ্রেষ্ঠ মানব-সুরত বা মহামানব-সুরতের।

●■ □ নূর নবীর বেনজির বাশারিয়াতঃ
নূরে মুজাসসাম রহমতে আলম মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর নূরানীয়ত যেমন এক বিস্ময়কর ব্যাপার,যা ইতোপূর্বে ব্যাপক আলোচনা করা হয়েছে। তেমনিভাবে নবীজীর বাশারিয়াত বা মানবত্বও এক অলৌকিক বিস্ময়কর ব্যাপার।
নবীজীর আপাদমস্তক দেহ মোবারক ছিল নূর, যাকে বলা হয় নূরে মুজাসসাম। তিনি এক অলৌকিক মহামানব, যার কোন তুলনা হয় না। যার দেহ মোবারকের কোন ছায়া ছিল না।
নবীজীর বাশারিয়াতের বর্ণনা দিতে গিয়ে বিজ্ঞ উলামায়ে কেরামগণ লিখেছেন যে,তিনি হলেন-
خير البشر- اكمل بشر- نورانى بشر- افضل بشر- سيد البشر-
سيد ولد ادم- - جنس بشر- النوع الانسان ও سيد كل حادث
প্রভৃতি।
মূলকথা নবীজীর নূরানীয়ত আর বাশারিয়াত সর্বদিক দিয়ে তিনি এক স্বতন্ত্র বেনজির মহা সম্মাানিত মাখলুক সৃষ্টিজগতে যার কোন তুলনা নেই।
আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের আকিদা আল্লাহর হাবিব সৃষ্টি নূর এবং জাতিতে মহামানব।
এ প্রসঙ্গে মুফতিয়ে বাগদাদ আল্লামা সৈয়দ মাহমদু আলুছি বাগদাদী তদীয় ‘তাফসিরে রুহুল মায়ানী’ নামক কিতাবের ২য় খণ্ড ৬ষ্ঠ পারা ৯৭ পৃষ্ঠায়- قد جاء كم من الله نور وكتاب مبين আয়াতে কারীমার তাফসিরে উল্লেখ করেন-

(قد جاء كم من الله نور) عظيم هو نور الانوار والنبى المختار صلى الله عليه وسلم والى هذا ذهب قتادة واختاره الزجاج وقال ابو على الجبائى عنى بالنور القران لكشفه واظهاره طرق الهدى واليقين واقتصر على ذلك الزمخشرى وعليه فالعطف فى قوله تعالى) كتاب مبين) لتنزيل المغائرة بالعنوان منزلة المغائرة بالذات واما على الاول فهو ظاهر
ভাবার্থ: আয়াত قد جاء كم من الله نور(নিশ্চয় আল্লাহ তা’য়ালার পক্ষ থেকে এক মহা সম্মানিত নূর এসেছে) সেই নূর হচ্ছে সকল নূরসমূহের নূর।সেই নূর দ্বারা মুরাদ হল,নবীয়ে মুখতার সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম।তাবেয়ী মুফাসসির হযরত কাতাদা (রাদিয়াল্লাহু আনহু) অনুরুপ মতপোষণ করেছেন এবং জুজাজও এই অভিমত গ্রহণ করেছেন (মুতাজিলীদের নেতা) আবু আলী জুবাঈ বলেন- এখানে নূর দ্বারা মুরাদ হল কোরআন।কেননা কোরআনের দ্বারা হেদায়ত ও ইয়াকিনের পথসমূহ প্রকাশিত ও উম্মোচিত হয়ে থাকে। মু’তাজিলীপন্থি জমকশরীও অনুরূপ মত পোষণ করেছেন।
(আল্লামা আলুছি বলেন) মুদ্দাকথা হলো আল্লাহতা’য়ালার বাণী- كتاب مبين (রৌশন কিতাব) অংশকে নূর এর عطف (আতফ) দ্বারা দুইটি বিষয়ের প্রোপট অবতরণ হওয়া বুঝানো হয়েছে। কেননা- معطوف و معطوف عليه (মা’তুফ ও মা’তুফ আলাইহি) দ্বারা مغايرة بالذات (মুগাইরাত বিজ্জাত) বুঝানো হয়ে থাকে।এই প্রথম ব্যাখ্যাই অধিক সুস্পষ্ট।
উপরোক্ত আয়াতে কারীমার তাফসির দ্বারা স্পষ্টভাবে প্রমাণিত হলো, আয়াতে কারীমায় نور ‘নূর’ দ্বারা মুরাদ হচ্ছেন নবীউল মুখতার সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম। ইহাই আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের অভিমত যে, আল্লাহর হাবিব সৃষ্টিতে নূর এবং আল্লাহর পক্ষ থেকে এ দুনিয়াতে নূরই এসেছেন।
এ প্রসঙ্গে ইমাম মহিউস সুন্নাহ আবি মুহাম্মদ হুসাইন ইবনে মাসউদ বগবী আলাইহির রহমত (ওফাত ৫১৬ হিজরি) ‘তাফসিরে মুয়ালিমুত তানজিল’ ৩৬৬ পৃষ্ঠায় উল্লেখ করেন-
قد جاء كم من الله نور يعنى محمد صلى الله عليه وسلم
উপরোক্ত আয়াতে কারীমায় نور ‘নূরুন’ দ্বারা মুরাদ হচ্ছেন মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম।
মাদারিজুন নবুয়ত ১/২৬ পৃষ্ঠায় আরো উল্লেখ রয়েছে-
آنحضرت راسایہ نہ در آفتاب ونہ در قمر رواہ الحکیم الترمذی عن ذکوان فی نوادر الاصول وعجب است ازیں بزرگان کہ ذکر نکردند چراغ را ونور یکی از اسماء آنحضرت ست ونور راسایہ نمی باشد-
নূর নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের দেহ মোবারকের কোন ছায়া ছিল না।রৌদ্রের প্রচন্ড কিরণে কিংবা চন্দ্রের স্নিগ্ধ আলোতে তাঁর পবিত্র নূরের কায়ার কোন ছায়া পরতো না। হাকিম ও তিরমিজি যাকওয়ান হতে নাওয়াদিরুল উসূলে ইহা বর্ণনা করেছেন।উল্লেখিত বুজুর্গ ব্যক্তিবর্গ কেবল মাত্র চন্দ্র এবং সূর্যের রশ্মির কথাই উল্লেখ করেছেন।কিন্তু আশ্চর্যের বিষয় প্রদীপের কথা উল্লেখ করেন নাই। অথচ রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামার একটি নাম হল নূর বা আলো,নূরের কোন ছায়া হয় না।
দশম শতাব্দীর নবম মুজাদ্দিদ হাফিজুল হাদিস ইমাম জালালউদ্দিন সুয়ুতি আলাইহির রহমত (ওফাত ৯১১ হিজরি) الخصائص الكبرى নামক কিতাবের ১ম জিলদের ১১৬ পৃষ্ঠায় উল্লেখ করেন-
اخرج الحكيم الترمذى عن ذكوان ان رسول الله صلى الله عليه وسلم لم يكن يرى له ظل فى شمس ولاقمر قال ابن سبع: من خصائصه ان ظله كان لا يقع على الارض وانه كان نورا فكان اذا مشى فى الشمس او القمر لا ينظر له ظل- قال بعضهم: ويشهد له حديث قوله صلى الله عليه فى دعائه- واجعلى نورا-
অর্থাৎ হাকিম তিরমিজি হযরত যাকওয়ান রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণনা করেছেন, নিশ্চয় রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর ছায়া- না সূর্যের আলোতে দেখা যেত, না চন্দ্রের আলোতে (দেখা যেত)। ইবনে সাবা রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেছেন- রাসূলেপাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর বৈশিষ্ট্য যে, নিশ্চয় তাঁর ছায়া জমিনে পতিত হতো না, কেননা তিনি ছিলেন নূর। অতএব, তিনি যখন সূর্যের আলোতে অথবা চন্দ্রের আলোতে চলতেন, তখন তাঁর ছায়া দেখা যেত না। কেউ কেউ বলেছেন, রাসূলেপাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামার ছায়া না থাকার বিষয়টি হাদিসশরীফ দ্বারাই প্রমাণিত। হাবিবে খোদা সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম দোয়ার মাধ্যমে এরশাদ করেন, আয় আল্লাহ আমাকে নূর করে দাও।
তাফসিরে দুররে মানসুরে রয়েছে-
اخرج ابن ابى عمر العدنى عن ابن عباس ان قريشا كانت نورا بين يدى الله تعالى قبل ان يخلق الخلق بالفى عام يسبح ذلك النور وتسبح الملائكة بتسبيحه- فلما خلق الله ادم عليه السلام القى ذلك النور فى صلبه- قال رسول الله صلى الله عليه وسلم: فاهبطنى الله الى الارض فى صلب ادم عليه السلام وجعلنى فى صلب نوح وقذف بى فى صلب ابراهيم ثم لم يزل الله ينقلنى من الاصلاب الكريمة الى الارحام الطاهرة حتى اخرجنى من بين ابوى لم يلتقيا على سفاح قط- (الدر المنثور ص ٤/۳۲৯ لقد جاء كم رسول من انفسكم پاره ۱۱ توبه ۱۲٨ اية)
ভাবার্থ: ইবনে আবু উমর আদনী ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণনা করেন তিনি বলেন নিশ্চয় তিনি কোরেশি বা কুরেশ বংশীয়। তিনি মাখলুক (আদম আলাইহি সালাম) সৃষ্টির দুইহাজার বৎসর পূর্বে আল্লাহর দরবারে নূর ছিলেন।সেই নূর তাসবিহ পাঠ করতো এবং তাঁর তাসবির সাথে ফেরেশতাগণও তাসবিহ পাঠ করতো। অতঃপর যখন আল্লাহতা’য়ালা হযরত আদম আলাইহিস সালামকে সৃষ্টি করলেন,তখন আদম আলাইহিস সালাম এর পৃষ্টদেশে সেই নূর মোবারক স্থাপন করলেন।রাসূলেপাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করলেন- অতঃপর আল্লাহতা’য়ালা আমাকে হযরত আদম আলাইহিস সালামের পৃষ্টদেশে থাকা অবস্থায় জমিনে পাঠালেন। অতঃপর হযরত নূহ আলাইহিস সালাম এর পৃষ্টদেশে আমাকে স্থাপন করলেন। বংশ পরম্পরায় আমাকে হযরত ইব্রাহিম আলাইহিস সালামের পৃষ্টে থাকাকালীন নমরূদের তৈরি অগ্নিকুণ্ডে নিক্ষেপ করা হয়েছিল। এভাবে স্থানান্তরিত হতে হতে পবিত্র পৃষ্টদেশে থেকে পবিত্র রেহেমে স্থানান্তরিত হতে থাকি এমনকি আমার পিতা-মাতা পর্যন্ত। আমার পূর্ব পুরুষের মধ্যে কখনো জিনা সংঘটিত হয়নি।’
উপরোক্ত হাদিস শরীফের দ্বারা স্পষ্টভাবে প্রমাণিত হলো- আল্লাহর হাবিবের নূর সর্বপ্রথম আল্লাহতা’য়ালা সৃষ্টি করে আদম আলাইহিস সালামের পৃষ্ট হতে একের পর এক স্থানান্তরিত হতে হতে হযরত আমেনা রাদিয়াল্লাহু আনহা এর রেহেম মোবারকে স্থির হয়ে এই নূর মোবারকই জমিনে অবতীর্ণ হয়েছেন। সুতরাং আল্লাহর হাবিব সৃষ্টিতে নূর জাতিতে বশর।
মিশকাত শরীফ ৫১৩ পৃষ্ঠায় আছে-

عن العرباض بن ساريه عن رسول الله صلى الله عليه وسلم انه قال انى عند الله مكتوب خاتم النبيين وان ادم لمنجدل فى طينته وساخبركم باول امرى دعوة ابراهيم وبشارة عيسى ورؤيا امى التى رأت حين وضعتنى وقد خرج لها نور اضاءلها منه قصور الشام- رواه فى شرح السنة ورواه احمد عن ابى امامة من قوله ساخبركم الى اخره- (دلائل النبوة ومعرفة احوال صاحب الشريفة للبيهقى ص ۲/۱۳٠ (مشكوة شريف ص ۵۱۳(
অর্থাৎ ‘ইরবাজ বিন সারিয়া রাদিয়াল্লাহু আনহু নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে বর্ণনা করেন, তিনি বলেন নিশ্চয় আমি আল্লাহর দরবারে খাতামুন নাবিয়ীন বা সর্বশেষ নবী হিসেবে মনোনীত ছিলাম। ঐ সময় হযরত আদম আলাইহিস সালামের দেহ মোবারক মাটিতে মিশ্রিত ছিল। আর অচিরেই তোমাদেরকে আমার প্রথম অবস্থার সংবাদ দিব। আমি ইব্রাহিম আলাইহিস সালামের দোয়া, হযরত ঈসা আলাইহিস সালামের সুসংবাদ এবং আমার আম্মার চাক্ষুস দর্শন, যা তিনি আমাকে আমার প্রসবকালীন সময়ে দেখেছিলেন।নিশ্চয়ই তাঁর থেকে এক নূর প্রকাশ হয়েছিল, যার দ্বারা শ্যাম বা সিরিয়ার দালানগুলো আলোকিত হয়ে ছিল।’
মিশকাত শরীফ ৫১৩ পৃষ্ঠায় আছে-

عن عرباض بن ساريا صاحب رسول الله صلى الله عليه وسلم قال: سمعت رسول الله صلى الله عليه وسلم يقول: انى عبد الله وخاتم النبيين وابى منجدل فى طينته وساخبركم عن ذلك: دعوة ابى ابراهيم وبشارة عيسى ورؤيا امى التى رأت وكذلك امهات (النبيين) يرين وان ام رسول الله صلى الله عليه وسلم رأت حين وضعته نورا اضائت له قصور الشام ثم تلا يا ايها النبى انا ارسلناك شاهدا ومبشرا ونذيرا وداعيا الى الله باذنه وسراجا منيرا) مشكوة ص ۵۱۳ اشعة لمعات ص ٤/٤۷٤ مرقاة ص ۳٦۷
ভাবার্থ: আল্লাহতা’য়ালার রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামার সাহাবি হযরত ইবরাদ বিন সারিয়া হতে বর্ণিত, তিনি বলেন- আমি আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বলতে শুনেছি তিনি বলেন- নিশ্চয়ই আমি আল্লাহতা’য়ালার বান্দা ও সর্বশেষ নবী ঐসময়ও ছিলাম যখন আমার পিতা (হযরত আদম আলাইহিস সালাম) এর দেহ মোবারক মাটি ও পানিতে ছিল। আমি অচিরেই তোমাদেরকে এ সম্পর্কে অর্থাৎ আমার প্রাথমিক অবস্থার বর্ণনা দিব, আমি হযরত ইব্রাহিম আলাইহিস সালামের দোয়ার ফসল, আমি হযরত ঈসা আলাইহিস সালামের সুসংবাদ এবং আমার মায়ের চাক্ষুস দর্শন। এভাবে সকল নবীগণের মাতাগণের দর্শন এবং নিশ্চয় আল্লাহর রাসূলের জননী এ ধরাতেই আগমনের সময়কালীন সময়ে দেখে ছিলেন যে, তার থেকে একটি নূর প্রকাশিত হয়েছিল, যদ্বারা সিরিয়া দেশের অট্টালিকাসমূহ আলোকিত হয়েছিল। অতঃপর পাঠ করলেন-
يا ايها النبى انا ارسلناك شاهدا ومبشرا ونذيرا وداعيا الى الله باذنه وسراجا منيرا-
অর্থ: হে নবী (গায়েবের সংবাদদাতা) নিঃসন্দেহে আমি আপনাকে হাজির নাজির, সুসংবাদদাতা, ভীতি প্রদর্শনকারী এবং আল্লাহর প্রতি তাঁর আদেশ আহ্বানকারী এবং উজ্জ্বল সূর্য করে প্রেরণ করেছি।
(সূরা আহযাব, আয়াত- ৪৫)
তাফসিরে রুহুল মায়ানী ৪র্থ জিলদ ১১ পারা ৫২ পৃষ্ঠায় উল্লেখ রয়েছে-
(لقد جاء كم) الخطاب للعرب (رسول) اى رسول عظيم القدر (من انفسكم) اى من جنسكم ومن نسبكم عربى مثلكم ... وقيل: الخطاب للبشر على الاطلاق ومعنى كونه عليه الصلوة والسلام من انفسهم انه من جنس البشر الخ-
অর্থাৎ لقد جاء كم رسول নিশ্চয় তোমাদের নিকট এসেছেন অতি সম্মানিত একজন রাসূল তোমাদের থেকে অর্থাৎ তোমাদের جنس ‘জাত’ থেকে এবং তোমাদের আরবি সম্প্রদায় থেকে। ...
আরো বর্ণিত আছে, আয়াতে গোটা মানব সম্প্রদায়কে সম্বোধন করা হয়েছে।অর্থাৎ রাসূলেপাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাদের থেকে এসেছেন। নিশ্চয় তিনি جنس بشر ‘জিনসে বশর’ বা জাতিতে মানব। (কিন্তু সৃষ্টিতে নূর)
তাফসিরে রুহুল মায়ানী ২য় জিল্দ ৪ নং পারা ১১২ পৃষ্ঠায় উল্লেখ রয়েছে-
لقد من على المؤمنين اذ بعث فيهم رسولا من انفسهم
উপরোক্ত আয়াতে কারীমার তাফসিরে আল্লামা সৈয়দ মাহমদু আলুছি বাগদাদী (ওফাত ১২৭০ হিজরি) উল্লেখ করেন-
(رسولا) عظيم القدر جليل الشان (من انفسهم) اى من نسبهم او من جنسهم عربيا مثلهم او من بنى ادم لاملكا ولا جنيا الخ-
অর্থাৎ رسولا من انفسهم অতি সম্মানিত ও মহান শানের অধিকারী রাসূল প্রেরিত হয়েছেন তাদের মধ্য থেকে অর্থাৎ তাদের সম্প্রদায় থেকে অথবা তাদের স্বজাতি থেকে, তাদের ন্যায় আরবীয় সম্প্রদায় থেকে। অথবা বনি আদম থেকে। তিনি ফিরিশতা জাতি ও নন, জিন জাতিও নন।
আল্লামা আলুছি উক্ত তাফসিরের ১১৩ পৃষ্ঠায় আবার উল্লেখ করেন-
وقد سئل الشيخ ولى الدين العراقى هل العلم بكونه صلى الله عليه وسلم بشرا ومن العرب شرط فى صحة الايمان او من فروض الكفاية؟ فاجاب بانه شرط فى صحة الايمان- ثم قال: فلو قال شخص: او من برسالة محمد صلى الله عليه وسلم الى جميع الخلق لكن لا ادرى هل هو من البشر او من الملائكة او من الجن- اولا ادرى هل هو من العرب او العجم؟ فلا شك فى كفره لتكذيبه القران وجحده ما تلقته قرون الاسلام خلفا عن سلف وصار معلوما بالضرورة عند الخاص والعام-
ভাবার্থ: শায়খ ওলিউদ্দিন ইরাকী আলাইহির রহমতকে জিজ্ঞাসা করা হয়ে ছিল যে, রাসূলেপাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে بشرا ومن العرب জাতিতে মানব এবং তিনি আরবি এ সম্পর্কে জ্ঞান রাখা কি ঈমান বিশুদ্ধ হওয়ার জন্য শর্ত অথবা তা কি ফরজে কিফায়া? তদোত্তরে তিনি বলেন- নিশ্চয় আল্লাহর হাবিবকে জাতিতে মানব এবং তিনি আরবীয় সম্পর্কে জ্ঞান রাখা বিশুদ্ধ ঈমানের জন্য শর্ত। অতঃপর তিনি বলেন- যদি কোন ব্যক্তি বলেন যে, আমি বিশ্বাস করি বা ঈমান রাখি হযরত মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সমগ্র সৃষ্টির জন্য রাসূল হয়ে প্রেরিত হয়েছেন কিন্তু আমি জানি না যে, তিনি কি মানব জাতি না ফেরেশতা জাতীয়, না জ্বিন জাতীয় অথবা আমি জানি না তিনি কি আরবীয় না অনারবীয়? (উত্তরে তিনি ফতওয়া প্রদান করে বলেন) فلا شك فى كفره لتكذيبه القران ঐ ব্যক্তির কুফরি সম্পর্কে কোন সন্দেহ নেই কেননা সে কোরআনকে মিথ্যা প্রতিপন্ন করলো।
ত্রয়োদশ শতাব্দীর দ্বাদশ মুজাদ্দিদ শাহ আব্দুল আজিজ মুহাদ্দিসে দেহলভী আলাইহির রহমত (ওফাত ১২৩৯ হিজরি) তদীয় ‘তাফসিরে আজিজি ফার্সী’ ২১৪ পৃষ্ঠা ২৯ পারা الا من ارتضى من رسول আয়াতের তাফসিরে উল্লেখ করেন-
(ক)
یعنی مگر کسے کہ پسند میکند وآں کس رسول میبا شد خواہ ازجنس ملک باشد مثل حضرت جبریل علیہ السلام وخواہ ازجنس بشر مثل حضرت محمد صلی اللہ علیہ وسلم وموسی وعیسی علیہم الصلوات والتسلیمات کہ اورا اظھار بر بعضے از غیوب خاصۂ خود می فرماید تا آں غیوب را مکلفین برسا ند الج-
অর্থাৎ আল্লাহর পছন্দনীয় রাসূল ব্যতিত কারো নিকট সেই খাস গায়েব প্রকাশ করেন না। যাদের কাছে প্রকাশ করেন, তারা হচ্ছেন রাসূল, সেই রাসূল হয়তো জিনসে মালাক বা ফেরেশতা জাতীয়, যেমন হযরত জিব্রাঈল আলাইহিস সালাম অথবা জিনসে বশর বা মানব জাতীয় যেমন হযরত মুহাম্মদ মোস্তফা সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম। হযরত মুসা ও হযরত ঈসা আলাইহিমুস সালাম তাঁদের নিকট আল্লাহ কতক খাস গায়েব সম্পর্কে অবহিত করান।
উপরোক্ত এবারত দ্বারা প্রমাণিত হলো আমাদের প্রিয় নবী আল্লাহর হাবিব হযরত মুহাম্মদ মোস্তফা সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম জিনসে বাশার ও মানব জাতীয়। হুজুরপাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নূর ও বশর উভয়েই।পরকালে তাঁর নূরানীয়তের প্রাধান্য সর্বদা বিদ্যমান থাকবে। বাশারিয়াতের অস্তিত্বের প্রাধান্য থাকবে না। শাহ আব্দুল আজিজ মুহাদ্দিসে দেহলভী আলাইহির রহমত এর নিম্নে এবারত তা প্রমাণ করে।
(খ)
তাফসিরে আজিজি ফার্সি (২৭১ পৃষ্ঠা আম পারা) وللاخرة خير لك من الاولى এ আয়াতে কারীমার তাফসিরে শাহ আব্দুল আজিজ মুহাদ্দিসে দেহলভী আলাইহির রহমত উল্লেখ করেন-
یعنی والبتہ ہر حالت آخر بہتر باشد ترا از معاملت اول تا آنکہ بشریت ترا اصلا وجود نماند وغلبۂ نور حق برتو علی سبیل الدوام-
অর্থাৎ আপনার জন্য ইহকাল থেকে পরকাল উত্তম। যেন আপনার বাশারিয়াত বা মনবত্বের অস্তিত্ব পরকালে থাকবে না। সর্বদা নূরানীয়তের প্রাধান্য আপনার মধ্যে বিদ্যমান থাকবে।
আল্লামা শেখ আব্দুল হক মুহাদ্দিসে দেহলভী আলাইহির রহমত বলেন-

آنحضرت بتمام از فرق تا قدم ہمہ نور بود کہ دیدۂ حیرت در جمال باکمال وی خیرہ میشد مثل ماہ وآفتاب تابان وروشن بود واگر نہ نقاب بشریت پوشیدہ بودی ہیچکس را مجال نظر وادراک حسن او ممکن نبودی وہمیشہ جوہروی نوری بود کہ انتقال کرد از اصلاب آباوا رحام امھات اززمن آدم تا انتقال بصلب عبد اللہ ورحم آمنہ سلام اللہ عليهم اجمعين- مدارج النبوة فارسى ص ۱/۱۳۷ اردو ص ۱/۲۱۳
ভাবার্থ: আমাদের নবী সায়্যিদে আলম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আপদমস্তক ছিলেন নূর। তাঁর নূর বা সৌন্দর্য প্রভায় দৃষ্টিশক্তি উল্টা যেন ফিরে আসত। তিনি যদি মানবীয় পোশাক পরিধান না করতেন, তবে কারো জন্য তাঁর সৌন্দর্য প্রভা উপলব্ধি করা সম্ভব হত না। তাঁর جوهر نورى ‘জাওহারে নূরী’ বা নূরানী জাওহার হযরত আদম আলাইহিস সালাম হতে শুরু করে হযরত আব্দুল্লাহ রাদিয়াল্লাহু আনহু পর্যন্ত পবিত্র ঔরসে ও পবিত্র রেহেমে স্থানান্তরিত হয়ে চলে আসছিল।

چنانچہ فرمودوی سبحانب ( ما زاغ البصر وما طغی) چنانچہ بندگان خاص در حضرت ملوک میکنند واین کمال ست کہ جز اکمل بشر وسید رسل را صلوات اللہ وسلامہ میسر نیست ( مدارج النبوة فارسى ۱/ص ۲٠٤)
ভাবার্থ: আল্লামা শেখ আব্দুল হক মুহাদ্দিসে দেহলভী আলাইহির রহমত বলেন ما زاع البصر وما طفى যেরূপভাবে বিশেষ বৈশিষ্ট্যের অধিকারী ব্যক্তিগণ বাদশাহ এর দরবারে উপস্থিত হয়ে থাকেন। ইহা এমন পূর্ণত্ব যা পূর্ণত্ব মানব اكمل بشر মহামানব ও সকল রাসূলের সরদার আলাইহিস সালাম ব্যতিত আর কেউই লাভ করতে পারেনি।
আল্লামা শেখ আব্দুল হক মুহাদ্দিসে দেহলভী আলাইহির রহমতের ‘মাদারিজুন নবুয়ত’ এর উপরোক্ত দু’টি এবারত থেকে স্পষ্টভাবে এ কথা প্রমাণিত হল তার তাহকিক মতে আল্লাহর হাবিব আপাদমস্তক নূর এবং তিনি আকমলে বশর বা পরিপূর্ণ মানব (মহামানব)।
উল্লেখ্য যে, বাংলা ভাষায় জাত বা জাতি শব্দটি বংশ, গোত্র ও সম্প্রদায় ইত্যাদি বুঝানোর জন্য ব্যবহৃত হয়ে থাকে। পক্ষান্তরে আরবি ذات জাত শব্দটি সত্বা বা অস্তিত্ব বুঝানোর জন্য ব্যবহৃত হয় এবং এর সাথে নিসবত বা সম্পর্কিত বুঝানোর ক্ষেত্রে ذاتى (জাতি) শব্দটি ব্যবহৃত হয়।
সহজ কথায় جنس بشر বা ‘মানব জাতি’ বলতে হযরত আদম আলাইহিস সালাম ও তাঁর আওলাদ বা বংধরগণকে বুঝানো হয়ে থাকে। যেহেতু রাসূলেপাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এরশাদ করেছেন انا سيد ولد ادم অর্থাৎ আমি আদম সন্তানের সরদার। (মুসলিম শরীফ ২/২৪৫ পৃষ্ঠা) এ হাদিস শরীফ দ্বারা প্রমাণিত।
আরো প্রমাণিত হলো রাসূলেপাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বাহ্যিক আদম আলাইহিস সালামের সন্তান হিসেবে মানব কিন্তু তিনি হচ্ছেন বনী আদমের সরদার। এজন্য তিনি বেনজির ও বেমিসাল বশর বা মানব। নূরানী মানুষ যার কোন তুলনা সৃষ্টির মধ্যে নেই।
তাফসিরে রুহুল বয়ানে রয়েছে-

(لقد جاء كم من انفسكم) (من انفسكم) اى من جنسكم ادمى مثلكم لا من الملائكة ولا من غيرهم- (تفسير روح البيان ص ۳/۵٤۲)
ভাবার্থ: নিশ্চয়ই তোমাদের নিকট তোমাদের মধ্যে থেকে একজন সম্মানিত রাসূল আগমন করেছেন। এখানে من انفسكم (তোমাদের মধ্য থেকে) এর তাফসির হচ্ছে اى من جنسكم অর্থাৎ তোমাদের স্বজাত থেকে। বাহ্যত তোমাদের ন্যায় মানব, তিনি ফিরিশতা জাতিও নন। মানব ছাড়া অন্য কোন জাতিও নন।

(قل انما انا بشر مثلكم) قل يا محمد ما انا الا ادمى مثلكم فى الصورة ومساويكم فى بعض البشرية (يوحى الى) من ربى (انما الهمكم اله واحد) ما هو الا متفرد فى الا لوهية لا تظيرله فى ذاته ولا شريك له فى صفاته يعنى انا معترف ببشريتى ولكن الله من على من بينكم بالنبوة والرسالة- (تفسير روح البيان ص ۵/۳٠৯)
(হে হাবিব! আপনি বলুন, নিশ্চয় আমি তোমাদের ন্যায় মানব।) হে মুহাম্মদ মোস্তফা সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আপনি বলুন, আমি মানব ছাড়া অন্য কিছুই নই। সুরত বা আকৃতিগত দিক থেকে তোমাদের ন্যায় এবং মানবীয় কতিপয় গুণ বৈশিষ্ট্যের ক্ষেত্রে তোমাদের সাথে আমার মিল রয়েছে। আমার প্রতি ওহি আসে আমার প্রতিপালকের পক্ষ থেকে (নিশ্চয় তোমাদের ইলাহ বা মা’বুদ এক অভিন্ন) উলুহিয়ত বা উপাস্য হওয়ার ক্ষেত্রে তিনি এক ও অভিন্ন। তার জাত বা স্বত্ত্বার কোন মিসাল বা উপমা নেই। তাঁর গুণাবলী থেকেও কোন অংশিদার নেই। আমি মানব জাতি তার স্বীকৃতি আমি দিচ্ছি কিন্তু আল্লাহতা’য়ালা তোমাদের মধ্যে আমাকে নবুয়ত ও রিসালাত দিয়ে বড়ই অনুগ্রহ করেছেন।
‘তাফসিরে রুহুল’ বয়ান নামক কতিাবের প্রথম জিলদের ৩৯৫ পৃষ্ঠায় والذين اوتوا العلم درجات (১৫পারা সূরা বনি ইসরাঈল) আয়াতের ব্যাখ্যা রয়েছে, আল্লামা ইসমাঈল হাক্কী বরছয়ী আলাইহির রহমত উল্লেখ করেন-
فانه صلى الله عليه وسلم ما بقى مكان ولا فى الامكان لانه كان فانيا عن ظلمة وجوده باقيا بنور وجوده لهذا سماه الله نورا فى قوله تعالى قد جاء كم من الله نور وكتاب مبين فالنور هو محمد عليه السلام والكتاب هو القران-
অর্থাৎ ‘নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম (মে’রাজের রজনীতে) কোন স্থানে বা সৃষ্টিজগতে সীমাবদ্ধ ছিলেন না। কেননা তখন তিনি তাঁর জড় অস্তিত্বের অন্ধকার অতিক্রম করে তাঁর নূরের অস্তিত্বে বিদ্যমান থাকলেন। এ কারণেই কোরআন মজীদে আল্লাহতায়ালা তাঁকে নূর বলে আখ্যায়িত করে এরশাদ করেছেন- قد جاء كم من الله نور وكتاب مبين (নিশ্চয় তোমাদের কাছে আল্লাহর পক্ষ থেকে এক মহান নূর ও একটি সুস্পষ্ট কিতাব এসেছে)
অতএব উক্ত আয়াতে কারীমায় নূর দ্বারা মুরাদ হচ্ছে হযরত মুহাম্মদ মোস্তফা সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এবং কিতাব দ্বারা মুরাদ হচ্ছে কোরআনুল করিম।’
উপরোক্ত দলিলভিত্তিক আলোচনা দ্বারা স্পষ্টভাবে প্রমাণিত হলো মেরাজ রজনীতে আল্লাহর হাবিব সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের বাশারিয়াত ফানা হয়ে নূরের ওজুদ বিদ্যমান ছিল।
হুজুরকে আমাদের মতো মানুষ বলা কুফুরি।কেননা হুজুর হচ্ছেন সৃষ্টিতে নূর আপাদমস্তক নূর তাঁর ছায়া ছিল না। কিন্তু তিনি জাতিতে মানুষ।
একাদশ শতাব্দীর দশম মুজাদ্দিদ আল্লামা মুল্লা আলী ক্বারী আলাইহির রহমত (ওফাত ১০১৪ হিজরি) তদীয়- المورد الروى فى المولد النبوى ‘আল মাওরিদুর রাউয়ী ফি মাওলিদিন নববী’ নামক কিতাবের ৫৭ পৃষ্ঠায় উল্লেখ করেন-
الحاصل ان مجئ الرسول نعمة جسيمة- وكونه من جنس البشر منحة عظيمة وقال بعضهم قوله من انفسكم اى جنس العرب- وهو لا ينافى ما سبق-
সারকথা নিশ্চয় রাসূলেপাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর শুভাগমন এক মহান নিয়ামত বা বড় অনুগ্রহ। অথচ তিনি হচ্ছেন جنس البشر বা জাতিতে মানব। অনেকেই বলেন- আল্লাহর বাণী- من انفسكم এর তাফসির جنس العرب আরব দেশীয়। ইতোপূর্বে যা আলোচনা হয়েছিল ইহা এর ব্যতিক্রম নয়। অর্থাৎ جنس البشر ও جنس العرب উভয় তাফসিরে কোন বৈপিরিত্ব নেই।
মিশকাত শরীফ ৫২০ পৃষ্ঠায় উল্লেখ রয়েছে-
عن عائشة قالت كان رسول الله صلى الله عليه وسلم يخصف نعله ويخيط ثوبه ويعمل فى بيته كما يعمل احدكم فى بيته وقالت كان بشرا من البشر يغلى ثوبه ويحلب شاته ويخدم نفسه- رواه الترمذى-
ভাবার্থ: হযরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা হতে বর্ণিত, তিনি বলেন- রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নিজেই জুতা মোবারকের ফিতা লাগাতেন, নিজের কাপড় সেলাই করতেন, নিজ গৃহের কাজ নিজেই সম্পন্ন করতেন। যেমন তোমাদের মধ্যে কেউ কেউ করে থাক। তিনি আরো বলেন- তিনি মানুষ জাতীর মধ্য থেকে একজন মহামানব ছিলেন। নিজ কাপড় পরিচ্ছন্ন রাখতেন, নিজ হাতে দুধ দোহন করতেন, নিজে নিজের কাজ আঞ্জাম দিতেন।
[তিরমিজি]
________________

নোটঃ ০১.
https://mbasic.facebook.com/hasan.mahmud/posts/1853803314935105
________