সিনেমা ও টিভি দেখা। | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস

সিনেমা ও টিভি দেখা।

কুরআন-হাদীস এবং ফিকাহ-ফাতওয়ার কিতাবাদী অধ্যায়নে এ কথা জানা যায় যে, সকল ধরনের সিনেমা দেখা হারাম। কারন সিনেমা হারাম হবার এক দু’টি কারণ নয় অনেক কারণই বিদ্যমান রয়েছে।
যেমন
১/ পর্দার বিধান লঙ্ঘিত হয়।
২/ শরীয়তে হারাম গান বাদ্য দেখা হয়।
৩/ অহেতুক সময় নষ্ট হওয়ার পাপ হয়।
শুধু তাই নয়, এসব সিনেমা সামাজিক পরিবেশের জন্যও ক্ষতিকর।
এসব সিনেমায় হাতে কলমে সন্ত্রাস, কিডন্যাপ, খুনাখুনি, পারিবারিক কোন্দল, সমাজ অস্বীকৃত অশ্লীল প্রেম শিক্ষা দেয়া হচ্ছে।
কুরআনে কারীমে ইরশাদ হয়েছে,

لِلْمُؤْمِنِينَ يَغُضُّوا مِنْ أَبْصَارِهِمْ وَيَحْفَظُوا فُرُوجَهُمْ ذَلِكَ أَزْكَى لَهُمْ إِنَّ اللَّهَ خَبِيرٌ بِمَا يَصْنَعُونَ (30) وَقُلْ لِلْمُؤْمِنَاتِ يَغْضُضْنَ مِنْ أَبْصَارِهِنَّ وَيَحْفَظْنَ فُرُوجَهُنَّ الخ
অর্থাৎ, মুমিনদেরকে বলুন, তারা যেন তাদের চক্ষুকে অবনত রাখে এবং তাদের লজ্জাস্থানের হিফাযত করে। এটাই তাদের জন্য পবিত্রতম পন্থা। তারা যা করে নিশ্চয় আল্লাহ সে বিষয়ে সম্যক অবহিত। আর মুমিন নারীদের বলুন তারা যেন তাদের চক্ষুকে অবনত রাখে ও তাদের লজ্জাস্থানকে হিফাযত করে।
[সূরা নূর, আয়াত ৩০, ৩১]।
অন্যত্র আছে,

وَمِنَ النَّاسِ مَن يَشْتَرِي لَهْوَ الْحَدِيثِ لِيُضِلَّ عَن سَبِيلِ اللَّهِ بِغَيْرِ عِلْمٍ وَيَتَّخِذَهَا هُزُوًا أُولَئِكَ لَهُمْ عَذَابٌ مُّهِينٌ
একশ্রেণীর লোক আছে যারা মানুষকে আল্লাহর পথ থেকে গোমরাহ করার উদ্দেশে অবান্তর কথাবার্তা সংগ্রহ করে অন্ধভাবে এবং উহাকে নিয়ে ঠাট্টা-বিদ্রূপ করে। এদের জন্য রয়েছে অবমাননাকর শাস্তি।
[সুরা লুকমান, আয়াত ৬]।
উক্ত আয়াতের শানে নুযূলে বলা হয়েছে যে, নযর ইবনে হারিস বিদেশ থেকে একটি গায়িকা বাঁদী খরিদ করে এনে তাকে গান-বাজনায় নিয়োজিত করল। কেউ কুরআন শ্রবণের ইচ্ছা করলে তাকে গান শোনানোর জন্য সে গায়িকাকে আদেশ করত এবং বলত মুহাম্মদ তোমাদেরকে কুরআন শুনিয়ে নামায, রোযা এবং ধর্মের জন্য প্রাণ বিসর্জন দেওয়ার কথা বলে। এতে শুধু কষ্টই কষ্ট। তার চেয়ে বরং গান শোন এবং জীবনকে উপভোগ কর। এরই পরিপ্রেক্ষিতে আল্লাহ তাআলা উক্ত আয়াত নাযিল করেন।
[সূত্রঃ তাফসীরে মাআরিফুল কুরআন ৭/৪]।
হযরত আবূ হুরায়রা রাঃ থেকে বর্ণিত,

فَالْعَيْنَانِ زِنَاهُمَا النَّظَرُ، وَالْأُذُنَانِ زِنَاهُمَا الِاسْتِمَاعُ، وَاللِّسَانُ زِنَاهُ الْكَلَامُ، وَالْيَدُ زِنَاهَا الْبَطْشُ، وَالرِّجْلُ زِنَاهَا الْخُطَا، وَالْقَلْبُ يَهْوَى وَيَتَمَنَّى، وَيُصَدِّقُ ذَلِكَ الْفَرْجُ وَيُكَذِّبُهُ
অর্থাৎ, রাসূলে মাকবুল (صلى الله عليه و آله وسلم) ইরশাদ করেন, চোখের জিনা হল [হারাম] দৃষ্টিপাত। কর্ণদ্বয়ের জিনা হল, [গায়রে মাহরামের যৌন উদ্দীপক] কথাবার্তা মনযোগ দিয়ে শোনা। জিহবার জিনা হল, [গায়রে মাহরামের সাথে সুড়সুড়িমূলক] কথোপকথন। হাতের জিনা হল, [গায়রে মাহরামকে] ধরা বা স্পর্শকরণ। পায়ের জিনা হল, [খারাপ উদ্দেশ্যে] চলা। অন্তর চায় এবং কামনা করে আর লজ্জাস্থান তাকে বাস্তবে রূপ দেয় [যদি জিনা করে] এবং মিথ্যা পরিণত করে [যদি অন্তরের চাওয়া অনুপাতে জিনা না করে]।
[সূত্রঃ সহীহ মুসলিম, হা/ ২৬৫৭, মুসনাদে আহমাদ, হা/ ৮৯৩২]।
রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া আলিহি ওয়াসাল্লাম আরও ইরশাদ করেন, আমার উম্মতের কিছু লোক মদের নাম পরিবর্তন করে তা পান করবে। আর তাদের মাথার উপর বাদ্যযন্ত্র ও গায়িকা রমনীদের গান বাজতে থাকবে। আল্লাহ তাআলা তাদেরকে যমীনে ধ্বসিয়ে দিবেন।
[সূত্রঃ সুনানে ইবনে মাজাহ হা/ ৪০২০; সহীহ ইবনে হিব্বান হা/ ৬৭৫৮]।
হযরত আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা. বলেন, পানি যেমন (ভূমিতে) তৃণলতা উৎপন্ন করে তেমনি অশ্লীল গান মানুষের অন্তরে নিফাক সৃষ্টি করে।
[সূত্রঃ ইগাছাতুল লাহফান ১/১৯৩; তাফসীরে কুরতুবী ১৪/৫২]।

টিভি দেখা
___________________
টিভি দৃশ্য দেখার একটি মাধ্যম মাত্র। যা ধারণকৃত বা সরাসরি কোন দৃশ্য বা চিত্রকে উপস্থাপন করে থাকে।
সুতরাং টিভি স্ক্রীণে ঐ বস্তু দেখা নাজায়েজ হবে, যা স্ক্রীণ ছাড়া দেখা নাজায়েজ। স্ক্রীণে ঐ বস্তু দেখা জায়েজ হবে, যা স্ক্রীণ ছাড়া দেখা জায়েজ।

সহজতার উপর ভিত্তি করে আমরা এ মতটিকে প্রাধান্য দেই। যদিও তা নিষিদ্ধ মনে করাই তাক্বওয়া পরহেযগারীর দাবী।
যাহোক, এখন টিভি দেখা বিষয়ে আমাদের মতামত হল, টিভিতে শরয়ী দৃষ্টিকোণ থেকে নাজায়েজ বস্তু দেখা বৈধ নয়। তবে জায়েজ বস্তু দেখা জায়েজ আছে।
কিন্তু বর্তমানের টিভিগুলোতে, বিজ্ঞাপনের নামে অশ্লীলতা, নাটক সিনেমার নামে নোংরামী, বেগানা নারীদের উদ্দাম নৃত্য, অশ্লীল গান বাজনা, হারাম প্রেম, বেপর্দা নারীদের সংবাদ উপস্থাপনসহ শরীয়তে হারাম নানাবিধ বিষয় থাকায় টিভি দেখা বৈধ নয়।
এ থেকে পরহেয করা প্রতিটি মুমিনের উপর আবশ্যক।
তবে যদি এমন কোন চ্যানেল থাকে, যাতে উপরোক্ত নিষিদ্ধ কোন কিছুই না থাকে, শুধুই ইসলামী বিষয় প্রচার করে, দ্বীনী দাওয়াত, প্রয়োজনীয় বিষয়াদী প্রদর্শন করে থাকে, তাহলে উক্ত চ্যানেল দেখাকে হারাম বলাও যাবে না।
ব্যবহারকারী দর্শকের মানসিকতা ও চ্যানেলের অবস্থার উপর টিভি দেখার বৈধতা নির্ভরশীল। হারাম বিষয় থাকলে হারাম। জায়েজ বিষয় থাকলে জায়েজ।

قُلْ لِلْمُؤْمِنِينَ يَغُضُّوا مِنْ أَبْصَارِهِمْ وَيَحْفَظُوا فُرُوجَهُمْ ۚ ذَٰلِكَ أَزْكَىٰ لَهُمْ ۗ إِنَّ اللَّهَ خَبِيرٌ بِمَا يَصْنَعُونَ [٢٤:٣٠

وَقُلْ لِلْمُؤْمِنَاتِ يَغْضُضْنَ مِنْ أَبْصَارِهِنَّ وَيَحْفَظْنَ فُرُوجَهُنَّ وَلَا يُبْدِينَ زِينَتَهُنَّ إِلَّا مَا ظَهَرَ مِنْهَا ۖ وَلْيَضْرِبْنَ بِخُمُرِهِنَّ عَلَىٰ جُيُوبِهِنَّ ۖ وَلَا يُبْدِينَ زِينَتَهُنَّ إِلَّا لِبُعُولَتِهِنَّ أَوْ آبَائِهِنَّ أَوْ آبَاءِ بُعُولَتِهِنَّ أَوْ أَبْنَائِهِنَّ أَوْ أَبْنَاءِ بُعُولَتِهِنَّ أَوْ إِخْوَانِهِنَّ أَوْ بَنِي إِخْوَانِهِنَّ أَوْ بَنِي أَخَوَاتِهِنَّ أَوْ نِسَائِهِنَّ أَوْ مَا مَلَكَتْ أَيْمَانُهُنَّ أَوِ التَّابِعِينَ غَيْرِ أُولِي الْإِرْبَةِ مِنَ الرِّجَالِ أَوِ الطِّفْلِ الَّذِينَ لَمْ يَظْهَرُوا عَلَىٰ عَوْرَاتِ النِّسَاءِ ۖ وَلَا يَضْرِبْنَ بِأَرْجُلِهِنَّ لِيُعْلَمَ مَا يُخْفِينَ مِنْ زِينَتِهِنَّ ۚ وَتُوبُوا إِلَى اللَّهِ جَمِيعًا أَيُّهَ الْمُؤْمِنُونَ لَعَلَّكُمْ تُفْلِحُونَ [٢٤:٣١
মুমিনদেরকে বলুন, তারা যেন তাদের দৃষ্টি নত রাখে এবং তাদের যৌনাঙ্গর হেফাযত করে। এতে তাদের জন্য খুব পবিত্রতা আছে। নিশ্চয় তারা যা করে আল্লাহ তা অবহিত আছেন।
ঈমানদার নারীদেরকে বলুন, তারা যেন তাদের দৃষ্টিকে নত রাখে এবং তাদের যৌন অঙ্গের হেফাযত করে। তারা যেন যা সাধারণতঃ প্রকাশমান, তা ছাড়া তাদের সৌন্দর্য প্রদর্শন না করে এবং তারা যেন তাদের মাথার ওড়না বক্ষ দেশে ফেলে রাখে এবং তারা যেন তাদের স্বামী, পিতা, শ্বশুর, পুত্র, স্বামীর পুত্র, ভ্রাতা, ভ্রাতুস্পুত্র, ভগ্নিপুত্র, স্ত্রীলোক অধিকারভুক্ত বাঁদী, যৌনকামনামুক্ত পুরুষ ও বালক, যারা নারীদের গোপন অঙ্গ সম্পর্কে অজ্ঞ, তাদের ব্যতীত কারো কাছে তাদের সৌন্দর্য প্রকাশ না করে, তারা যেন তাদের গোপন সাজ-সজ্জা প্রকাশ করার জন্য জোরে পদচারণা না করে। মুমিনগণ, তোমরা সবাই আল্লাহর সামনে তওবা কর, যাতে তোমরা সফলকাম হও।
[সূরা নূর, আয়াত ৩০-৩১]।
উপরোক্ত আয়াতের প্রেক্ষাপটে দৃষ্ট হয় যে টিভি বা সিনেমা দেখাকালীন দর্শককে দৃষ্টি নত রাখার পরীক্ষায় অবতীর্ণ থাকতে হয়।
তাছাড়া, নারীরা অধিকাংশ ক্ষেত্রে উপরোক্ত আয়াতে যা নিষেধ করা হয়েছে ঠিক তার বিপরীত করে।

يَا نِسَاءَ النَّبِيِّ لَسْتُنَّ كَأَحَدٍ مِنَ النِّسَاءِ إِنِ اتَّقَيْتُنَّ فَلَا تَخْضَعْنَ بِالْقَوْلِ فَيَطْمَعَ الَّذِي فِي قَلْبِهِ مَرَضٌ وَقُلْنَ قَوْلًا مَعْرُوفًا (32) وَقَرْنَ فِي بُيُوتِكُنَّ وَلَا تَبَرَّجْنَ تَبَرُّجَ الْجَاهِلِيَّةِ الْأُولَى
হে নবীর স্ত্রীগণ! তোমরা অন্য নারীদের মত নও [ইহুদী খৃষ্টান)। তোমরা যদি আল্লাহকে ভয় পাও তবে আকর্ষণধর্মী ভঙ্গিতে কথা বলনা, যাতে যাদের মাঝে যৌনলিপ্সা আছে তারা তোমাদের প্রতি আকৃষ্ট হয়। বরং তোমরা স্বাভাবিক কথা বল। এবং তোমরা অবস্থান কর স্বীয় বসবাসের গৃহে, জাহেলী যুগের মেয়েদের মত নিজেদের প্রকাশ করো না।
[সূরা আহযাব, আয়াত ৩২]।
সুপ্রিয় পাঠক, টিভি বা সিনেমার অধিকাংশ অনুষ্ঠানাদী নারীর আকর্ষণধর্মী ভঙ্গিতে কথা বলা নির্ভর, আর অধিকাংশ অনুষ্ঠান দর্শকের যৌনলিপ্সা আকর্ষণের উদ্দিপনা সৃষ্টির অভিপ্রায়ে তৈরি করা হয়। বিনোদনী অধিকাংশ অনুষ্ঠানগুলোতে নর-নারী উভয়ে দর্শকের বিনোদনের বিষয় বিবেচনায় রেখে স্বাভাবিক ভঙ্গিতে কথা বলে না। আর আল্লাহর নির্দেশ, "তোমরা অবস্থান কর স্বীয় বসবাসের গৃহে, জাহেলী যুগের মেয়েদের মত নিজেদের প্রকাশ করো না" - চরমভাবে লঙ্ঘিত হয়।

وَإِذَا سَأَلْتُمُوهُنَّ مَتَاعًا فَاسْأَلُوهُنَّ مِنْ وَرَاءِ حِجَابٍ ذَلِكُمْ أَطْهَرُ لِقُلُوبِكُمْ وَقُلُوبِهِنَّ وَمَا كَانَ لَكُمْ أَنْ تُؤْذُوا رَسُولَ اللَّهِ وَلَا أَنْ تَنْكِحُوا أَزْوَاجَهُ مِنْ بَعْدِهِ أَبَدًا إِنَّ ذَلِكُمْ كَانَ عِنْدَ اللَّهِ عَظِيمًا
অর্থাৎ, আর তোমরা তাঁর (রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম)-এর স্ত্রীগণের কাছে কিছু চাইলে পর্দার আড়াল থেকে চাইবে। এটা তোমাদের অন্তরের জন্য এবং তাঁদের অন্তরের জন্য অধিকতর পবিত্রতার কারণ।
[সূরা আহযাব, অায়াত ৫৩]।
উপরোক্ত আয়াতে কারিমায় আল্লাহ্ পাকের উপরোক্ত নির্দেশ থেকে বুঝা যায়, অন্তর পবিত্র রাখার জন্যে বেগানা নারী বেগানা পুরুষের দৃষ্টির অগোচরে থাকবে, আর বেগানা পুরুষও বেগানা নারীর দৃষ্টির অগোচরে থাকবে।
অথচ টিভি ও সিনেমার ক্ষেত্রে যা লঙ্ঘিত হয়।
বিখ্যাত তাফসীরবিদ ইমাম কুরতুবী রাহ. উক্ত আয়াতের আলোচনায় বলেন, উক্ত আয়াতে আল্লাহ তাআলা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর স্ত্রীদের কাছে কোনো প্রয়োজনে পর্দার আড়াল থেকে কিছু চাওয়া বা কোনো মাসআলা জিজ্ঞাসা করার অনুমতি দিয়েছেন। সাধারণ নারীরাও উপরোক্ত হুকুমের অন্তর্ভুক্ত।
[সূত্রঃ তাফসীরে কুরতুবী ১৪/১৪৬]।

নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর স্ত্রীগণ হলেন সকল মুমিনের মা। অথচ তাঁদের সাথেই লেনদেন বা কথা-বার্তা বলতে হলে পর্দার আড়াল থেকে করতে বলা হয়েছে।
তাহলে অন্যান্য সাধারণ বেগানা নারীদের ক্ষেত্রে হুকুমটি কত গুরুত্বপূর্ণ হওয়া উচিত তা তো সহজেই অনুমেয়।
আর টিভি ও সিনেমার ক্ষেত্রে উপরোক্ত হুকুম লঙ্ঘনের কথা বলাই বাহুল্য হচ্ছে।

عَنْ عَبْدِ اللهِ، عَنِ النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ، قَالَ: الْمَرْأَةُ عَوْرَةٌ، فَإِذَا خَرَجَتْ اسْتَشْرَفَهَا الشَّيْطَانُ.
হযরত আব্দুল্লাহ বিন মাসঈদ রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল খোদা (صلى الله عليه و آله وسلم) ইরশাদ করেছেন, নারী জাতি হল আপাদমস্তক সতর। যখনি সে বের হয়, তখনি শয়তান তাকে চমৎকৃত (আকর্ষণকারী) করে তোলে।
[সূত্রঃ সুনানে তিরমিজী, হা/ ১১৭৩, মুসনাদুল বাজ্জার, হা/ ২০৬৫, সহীহ ইবনে খুজাইমা, হা/ ১৬৮৫, সহীহ ইবনে হিব্বান, হা/ ৫৫৯৮]।

নর-নারীর, তা যে প্রকারেই হোক না কেন, বাহ্যিকভাবে কিংবা টিভি, সিনেমা ও ছবি আকারে হলেও সহাবস্থানের ব্যাপারে নিন্মোক্ত মুবারাক হাদিসটি খুবই প্রনিধানযোগ্য।

فَالْعَيْنَانِ زِنَاهُمَا النَّظَرُ، وَالْأُذُنَانِ زِنَاهُمَا الِاسْتِمَاعُ، وَاللِّسَانُ زِنَاهُ الْكَلَامُ، وَالْيَدُزِنَاهَا الْبَطْشُ، وَالرِّجْلُ زِنَاهَا الْخُطَا، وَالْقَلْبُ يَهْوَى وَيَتَمَنَّى، وَيُصَدِّقُ ذَلِكَ الْفَرْجُ وَيُكَذِّبُهُ
রাসূলে কারিম (صلى الله عليه و آله وسلم) ইরশাদ করেন, চোখের জিনা হল [হারাম] দৃষ্টিপাত। কর্ণদ্বয়ের জিনা হল, [গায়রে মাহরামের যৌন উদ্দীপক] কথাবার্তা মনযোগ দিয়ে শোনা। জিহবার জিনা হল, [গায়রে মাহরামের সাথে সুড়সুড়িমূলক] কথোপকথন। হাতের জিনা হল, [গায়রে মাহরামকে] ধরা বা স্পর্শকরণ। পায়ের জিনা হল, [খারাপ উদ্দেশ্যে] চলা। অন্তর চায় এবং কামনা করে আর লজ্জাস্থানের ভূমিকা হচ্ছে তাকে বাস্তবে রূপ দেয় [যদি জিনা করে] এবং মিথ্যা পরিণত করে [যদি অন্তরের চাওয়া অনুপাতে জিনা না করে]।
[সূত্রঃ সহীহ মুসলিম, হা/ ২৬৫৭, মুসনাদে আহমাদ, হা/ ৮৯৩২]।
_______________