আল্লাহর বিশটি গুণাবলীর যা জানা ওয়াজিব | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস

আল্লাহ সম্পর্কিত আকিদা


❏ শারে’ (عليه السلام) তথা আইন প্রণেতা কর্তৃক সর্বপ্রথম কোন বস্তুটি ফরয করা হয়েছে❓

শারে’ (عليه السلام) সর্বপ্রথম মহান স্রষ্টা আল্লাহ্ তাআলার পরিচিতি ফরয করেছেন। যিনি সমগ্র সৃষ্টি জগতের স্রষ্টা।


❏ মহান স্রষ্টা আল্লাহ তাআলা সমগ্র সৃষ্টি জগতের স্রষ্টা এর প্রমাণ কি❓

আল্লাহ্ তাআলা যে সমগ্র সৃষ্টি জগতের স্রষ্টা এর প্রমাণ হলো নিশ্চয়ই পৃথিবী সৃজিত। প্রত্যেক সৃষ্টির জন্য অবশ্যই স্রষ্টা আবশ্যক। এর দলীল! নিশ্চয়আলম বা জগত (আল্লাহ্ ছাড়া সব কিছু) সৃষ্টি। প্রত্যেক সৃষ্টির জন্যে একজন স্রষ্টা আবশ্যক। সম্মানিত রাসূলগণ   আমাদেরকে এ মর্মে নির্দেশনা দিয়েছেন যে, সমগ্র সৃষ্টি জগতের স্রষ্টা প্রজ্ঞাময় মহান আল্লাহ্ সুবহানাহু ওয়া তাআলা।


❏ মহান সত্তা আল্লাহ'র পরিচয় লাভ করা আমাদের পক্ষে কি সম্ভব❓

আল্লাহ্ তাআলার পরিচয় লাভ করা আল্লাহ্ ব্যতীত অন্য কারো পক্ষে সম্ভব নয়। প্রত্যেকটি খেয়াল বা ধারণা যা তোমার অন্তরে জাগ্রত হয়, পক্ষান্তরে আল্লাহ্ তাআলা তার সম্পূর্ণ বিপরীত।


❏ আল্লাহ্ তাআলার ক্ষেত্রে বান্দার ওপর কি কি ওয়াজিব❓ সংক্ষিপ্তাকারে বর্ণনা কর।

সংক্ষিপ্তভাবে আল্লাহ্ তাআলার ক্ষেত্রে বান্দার ওপর ওয়াজিব হলো, তিনি সকল পরিপূর্ণ গুণে গুণান্বিত।


❏ আল্লাহ্ তাআলার ক্ষেত্রে বান্দার ওপর কি কি ওয়াজিব❓বিস্তারিতভাবে বর্ণনা কর।


আল্লাহর বিশটি গুণাবলীর যা জানা ওয়াজিব



আল্লাহ্ তাআলার ক্ষেত্রে       বিস্তারিতভাবে বিশটি সিফাত বা গুণাবলীর ধারণা রাখা ওয়াজিব। 

   

 اِعْتِقَادُ اَنَّهُمْ مُكْرَمُوْنَ لَا يَعْصُوْنَ اللهَ مَا اَمَرَهُمْ وَيَـفْعَلُوْنَ مَا يُؤْمَرُوْنَ، صَادِقُـوْنَ فِيْمَا اَخْبَرُوْابِه

৬. وَمَعَـنٰـى الْاِيْمَانِ بِالْكُتُبِ . اِعْتِقَادُ اَنَّهَا كَلَامُ اللهِ الْاَزَلِـىُّ الْقَائِمُ بِذَاتِـه المُنَـزَّهُ عِنِ الْحُرُوْفِ وَالْاَصْوَاتِ، وَاَنَّ كُلُّ مَا تَضَمَّنَتْهُ حَقٌ، وَاَنَّ اللهَ تَعَالٰى اَنْـزَلَهَا عَلٰى بَعْضِ رُسُلِـه بِالْفَاظٍ حَادِثَـةٍ .

৭.  وَمَعَـنٰـى الْاِيْمَانِ بِالرُّسُلِ . اِعْتِقَادُ اَنَّ اللهَ اَرْسَلَهُمْ اِلٰى الْخَلْقِ وَنَزَّهَهُمْ عَنْ كُلِّ عَيْبٍ وَنُقْصٍ، فَهُمْ مَعْصُوْمُوْنَ قَبْلَ النُّبُوَّةِ وَبَعْدَهَا .

৮. وَمَعَـنٰـى الْاِيْمَانِ بِالْيَوْمِ الْاٰخِرِ. وَهُوَ مِنَ الْمَوْتِ اِلٰى اٰخِرِ مَايَقَعُ يَوْمَ الْقِيَامَةِ اِعْتِقَادُ وَجُوْدِه وَاِعْتِقَادُ مَا اشْتَمَلَ عَلَيْهِ مِنْ سُوَالِ الْمَلَكَيْنِ وَنَعِيْمِ الْقَبْرِ اَوْ عَذَابِـه، وَالْبَعْثِ وَالْجَزَاءِ  وَالْحِسَابِ وَالْمِيْزَانِ وَالْصِّرَاطِ وَالْجَنَّةِ وَالنَّارِ.

৯. وَمَعَـنٰـى  الْاِيْمَانِ بِالْقَدْرِ. اِعْتِقَادُ اَنَّ مَا قَدَّرَهُ فِىْ الْاَزَلِ لَابُدَّ مِنْ وُقُـوْعِـه وَمَا لَمْ يُقَدِّرُهُ يَسْتَحِيْلُ وُقُوْعُهُ وَاِعْتِقَادُ اَنَّ اللهَ قَدَّرَ الْخَيْرَ وَالشَرَّ قَبْلَ خَلَقِ الْخَلْقِ، وَاَنَّ جَـمِيْعَ الْكَائِنَاتِ بِقَضَائِـه وَقَـدْرِه .


مَاهُوَ اَوَّلُ شَيْـئٍ اَوْ جَبَهُ الشَّـارِعُ ؟

اَوَّلُ شَـيْـئٍ اَوْجَـبَهُ الـشَّارِعُ ، مَـعْرِفَةُ اللهِ الْمُوْجِـدِ لِـجَمِيْـعِ الْمَـخْـلُوْقَاتِ.


مَا الدَّلِيْلُ عَـلٰى اَنَّ اللهَ تَعَالٰى أَوْجَـدَ جَمِيْعَ الْمَخْلُوْقَاتِ ؟

اَلدَّلِيْلُ عَلٰى ذٰلِكَ أَنَّ الْعَالَـمَ مَصْنُـوْعٌ، وَكُلُّ صَـنْـعَـةٍ لَابُـدَّ لَهَا مِـنْ صَـانِــعٍ ، وَالَّـذِيْـنَ دَلُّــوْنَا عَـلٰـى أَنَّ


الصَّـانِعَ الْحَكِيْمَ هُوَ اللهُ سُبْحَانَهُ وَتَعَالٰى، هُـمُ الـرُّسُـلُ الْـكِـرَامُ عَلَيْهِمُ الصَّـلوٰةُ وَالسَّـلَامُ .


هَلْ يُمْـكِـنُ لَـنَا مَعْرِفَـةُ ذَاتِ اللهِ تَـعَالٰـى ؟

لَا يَـعْرِفُ اللهَ اِلَّا اللهُ، وَكُلُّ مَاخَـطَـرَبِـبَـالِكَ فَاللهُ بِـخِلَافِ ذٰلِكَ .


مَاهُوَ الْوَاجِبُ فِـىْ حَقِّ اللهِ تَعَالٰـى اِجْمَالًا ؟

اَلْوَاجِبُ فِـىْ حَـقِّ اللهِ اِجْـمَالًا هُـوَ إِتِّـصَافُـهُ بِـكُلِّ كَـمَالٍ .


مَاهُوَ الْوَاجِبُ فِـىْ حَـقِّ اللهِ تَعَالٰـى تَفْـصِـيْلًا ؟

اَلْـوَاجِبُ فِـىْ حَـقِّ اللهِ تَـعَـالٰـى تَفْصِيْـلًا عِشْرُوْنَ صِـفَـةً وَهِـىَ: الْوَجُوْدُ وَالْقِدَمُ وَالْبَقَاءُ وَمُخَالِفَـتُـهُ 


তা হলো, অস্তিত্ব, স্থায়িত্ব (যার শুরু নেই), চিরস্থায়ী (যার শেষ নেই), আর আল্লাহ'র বিপরীতই নশ্বর। তিনি স্বয়ং নিজেই বিদ্যমান (কারো কর্তৃক নয়)। একত্ব, শক্তি, ইচ্ছা, জ্ঞান, জীবন, শ্রবণশক্তি, দৃষ্টিশক্তি, বাকশক্তি সম্পন্ন তিনি একক ক্ষমতাবান, ইচ্ছাপোষণ কারী, মহাজ্ঞানী, চিরঞ্জীব, সর্বশ্রোতা, সর্বদ্রষ্টা ও বক্তা।

তিনি তাঁর সত্তাগত ও কর্মে এত সুন্দর গুণাবলীর অধিকারী যা সম্পর্কে সাধারণত কেউ অবগত নন কিন্তু আল্লাহ্ তাআলা যাঁদেরকে অনুভূতি শক্তি দান করেছেন তারাই প্রত্যক্ষ করেন। নিশ্চয় তিনি তাঁর সত্তাতে একক, তার কোন শরীক নেই। উপমা বিহীন একক, অমুখাপেক্ষী তার কোন প্রতিদ্বন্দ্বী নেই। তিনি নজিরবিহীন একক সত্তাবান, তিনি একক চিরস্থায়ী যার কোন শুরু নেই। তিনি সর্বদা বিদ্যমান যার কোন শুরু নেই। তিনি সর্বত্র বিদ্যমান যার কোন শেষ নেই। তিনি চিরস্থায়ী যার কোন ইতি নেই। তিনি বিচ্ছিন্নহীন অবিনশ্বর সত্তা, তিনি অতিক্রান্তহীন চিরস্থায়ী যা শেষ হয়নি এবং হবেও না। তিনি মহান গুণাবলীর গুণে গুণান্বিত, যার ওপর কোন বিচারকের বিচারাধিকার নেই। দূরত্ব ও জীবন শেষ হওয়ার  কারণে শেষ হবে না বরং তিনিই প্রথম তিনিই শেষ, তিনিই প্রকৃত প্রকাশ্য, তিনিই গোপন। তিনি সর্ব বিষয়ে পরিজ্ঞাত।


তিনিই পূত:পবিত্র সত্তা যিনি সকল ত্রুটি-বিচ্যুতি, মিথ্যা প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ ও ভয়-ভীতি থেকে পবিত্র। তাঁকে তন্দ্রা-নিদ্রা স্পর্শ করে না। তিনিই মহান, তিনিই বড়। তিনি কোন কল্পিত শরীরও নন, সীমিত-পরিমিত উপাদানও (স্বীয় অস্তিত্বে কারো মুখাপেক্ষী নন) তাঁকে কোন শরীর বা বস্তুর উপমা নির্ধারণ করা যায় না। বিভক্তিকরণের যোগ্যতায়ও তুলনা করা যায় না। তিনি উপাদানও নন এবং কোন ধরণের উপাদানও তাঁর মধ্যে অবস্থান করে না। আবার তিনি আরয (বস্তু)ও নন (যা স্বীয় অস্তিত্ব বিকাশে অপরের মুখাপেক্ষী হয়) এবং ঐ মুখাপেক্ষী বস্তু তাঁর মধ্যে অবস্থানও করে না। বরং তিনি কোন সৃষ্টির তুল্য নন এবং কোন সৃষ্টিও তাঁর তুল্য নয়।

তাঁর কোন উপমা নেই এবং তিনিও কোন বস্তুর ন্যায় নন। কোন পরিমাপ তাঁর পরিমাণ বর্ণনা করতে সক্ষম নয়। কোন স্থান তাঁকে ধারণ করতে অপারগ। কোন দিকই তাকে বেষ্টন করতে পারে না। এমনকি পৃথিবী ও আকাশ সমূহও তাঁকে বেষ্ট করতে পারে না।

তিনি আরশের ওপর স্থির আছেন; মানে তিনি যা বলেছেন এবং এ অর্থে, স্থির থেকে তিনি যা উদ্দেশ্য করেছেন। তিনি স্পর্শ করা, স্থির হওয়া, কোন স্থান অধিকার করে অবস্থান করা, কোন মহলে প্রবেশ করা বা বের হওয়া থেকে পবিত্র। আরশ তাঁকে বহন করতে পারে না। বরং আরশ ও আরশ বহনকারী ফিরিশতারা তাঁর কুদরতের মেহেরবানীতে বহনকৃত এবং তাঁর ক্ষমতার অধীনে। তিনি আরশ ও আসমান এমনকি প্রত্যেক কিছুরই ঊর্ধ্বে এবং সর্বনিম্নে পর্যন্ত ব্যাপৃত। এমনভাবে ওপরে যা আরশ ও আসমানের প্রতি নিকটবর্তীও নয়, অনুরূপভাবে জমিন ও তাহ্তাচ্ছরা থেকে দূরবর্তীও নয়। বরং তিনি আরশ ও আসমান থেকে অনেক অনেক ঊর্ধ্বে। এতদসত্ত্বেও তিনি প্রত্যেক বস্তুর অতি নিকটে ও প্রত্যেক বান্দার ঘাড়ের রগের চেয়েও অতি নিকটে এবং প্রত্যেক বস্তু প্রত্যক্ষ করেন।

কোন স্থান তাঁর অবস্থানের সংকুলান যোগ্য হওয়া থেকে তিনি অনেক ঊর্ধ্বে। অনুরূপভাবে কোন কাল তাঁর সীমা নির্ধারণ করা থেকেও তিনি পবিত্র বরং তিনি কাল ও স্থান সৃষ্টির পূর্বে ছিলেন। তিনি যে অবস্থায় আছেন, পূর্বেও সে অবস্থায় ছিলেন। তিনি গুণাবলীর দিক দিয়ে নিজ সৃষ্টি থেকে সম্পূর্ণ স্বতন্ত্র্য। তাঁর সত্তায় তিনি ছাড়া আর কেউ নেই এবং তিনি ছাড়া অন্যতে তাঁর সত্তা নেই। তিনি স্থানান্তর, পরিবর্তন ও পরিবর্ধন থেকে সম্পূর্ণ পূত:পবিত্র। 


❏ অজুদ বা অস্তিত্ব অর্থ কি❓

অজুদ অর্থ, নিশ্চয় আল্লাহ্ তাআলার জাত বা সত্তা বিদ্যমান।


❏ আল্লাহ্ তাআলার অস্তিত্ব বিদ্যমানের দলীল কি❓

এ সৃষ্টিকুলের অস্তিত্ব বিদ্যমানই এর দলীল। কেননা তিনি যদি বিদ্যমান না হতেন তাহলে অবশ্যই বিলুপ্ত হত। তিনি অস্তিত্বহীন হলে এ সৃষ্টিকুলের কোন কিছুই বিদ্যমান হত না। আল্লাহ্ সুবহানাহু ওয়া তাআলা বলেন,অথচ আল্লাহ্ তোমাদেরকে এবং তোমাদের কর্মসমূহকে সৃষ্টি করেছেন। ➥আল-কুরআন, সূরা সাফ্ফাত, আয়াত: ৯৬


 تَعَالٰـى اَلْـحَوَادِثِ وَقِيَامُهُ تَعَالٰـى بِنَفْسِـه، وَالْوَحْـدَانِيَّةُ وَالْقُدْرَةُ وَالْإِرَادَةُ وَالْعِلْمُ وَالْحَيَاةُ وَالسَّـمْعُ وَالْبَصْرُ وَالْكَـلَامُ، وَكَـوْنُهُ تَعَالٰـى قَادِرًا وَمُـرِيْـدًا وَعَالِـمًا وَحَـيًّـا وَسَمِيْعًا وَبَصِيْـرًا وَمُتَكَلِّمًا، وَكَـوْنُهُ  فِـىْ ذَاتِـه وَاَفْعَالِـه بِـمَحَاسِنِ اَوْصَافِـه اَلَّتِـىْ لَايُدْرِ كُهَا اِلَّا مَنْ اَلْقٰى السَّمْعَ وَهُوَ شَهِيْدٌ .

اِنَّـه فِـىْ ذَاتِـه وَاحِدٌ لَاشَرِيْكَ لَهُ، فَـرْدٌ لَا مِثْلَ لَـهُ، صَـمَدٌ لَا ضِـدَّلَهُ، مُنْـفَرِدٌ لَا نِدَّ لَهُ وَاِنَّـهُ وَاحِدٌ قَدِيْمٌ لَا اَوَّلَ لَهُ، اَزْلِـىٌّ لَا بِدَايَةَ لَهُ، مُسْتَمِرُّ الْوَجُوْدِ لَا أٰخِرَلَهُ، أَبَدِىٌّ لَانِهَايَةَ لَهُ، قَيُّوْمٌ لَا اِنْقِطَاعَ لَهُ، دَائِمٌ لَا اِنْصَرَامَ لَـهُ لَمْ يَـزَلْ وَلَايُـزَالُ، مَـوْصُـوْفًا بِنُعُوْتِ الْـجَـلَالِ لَايُـقْضٰى عَلَيْـهِ بِالْاِنْقِضَاءِ وَالْاِنْـفِصَالِ بِـتَصَرُّمِ الإِبَـادِ وَاِنْـقَـرَاضِ الْاٰجَـالِ بَــلْ  هُوَالْاَوَّلُ وَالْاٰخِـرُ وَالـظَّــاهِـرُ الْـحَقِيْقِـىُّ وَالْبَاطِـنُ وَهُـوَ بِـكُلِّ شَيْـئٍ عَـلِيْمٌ .

وَاِنَّـهُ سُبْـحَانَهُ وَتَعَالٰـى اَلْمُنَـزَّهُ مِنْ كُلِّ عَيْـبٍ وَنَـقْضٍ وَكِـذْبٍ وَخَـلْفِ الْـوَعْـدِ وَالْـوَعِيْـدِ وَلَا تَأْخُذُهُ سِـنَةٌ وَلَا نَـوْمٌ وَاِنَّـهُ تَـعَالٰى عُـلُـوًّا كَـبِيْـرًا، وَاِنَّـهُ لَيْـسَ بِـجِسْمِ مُصَوَّرٍ وَلَا جَوْهَرٍ مَحْدُوْدٍ مُقَدَّرٍ، وَاِنَّـهُ لَا يُـمَـاثِـلُ الْاَجْـسَامَ فِـىْ التَّـقْدِيْـرِ وَلَا فِـىْ قَبُوْلِ الْاِنْقِـسَامِ وَاِنَّـهُ لَيْـسَ بِـجَـوْهَـرٍ وَلَا تَـحَلُّـهُ الْـجَوَاهِرُ وَلَا بِعَرْضٍ وَلَا تَـحُـلُّهُ الْاَعْـرَاضُ بَـلْ لَّا يُـمَاثِلُ مَوْجُـوْدًا وَلَا يُـمَاثِلُهُ مَـوْجُوْدٌ .

لَيْسَ كَمِثْلِـه شَيْـئٌ وَلَا هُوَ مِثْلَ شَيْـئٍ وَاِنَّـهُ لَا يَـحُدُّهُ الْمِقْدَارُ وَلَا تَحْوِيْـهِ الْاَقْطَارُ وَلَا تُحِيْطُ بِـه الْجِهَاتُ وَلَا تَكْتَنِفُهُ الْاَرْضُوْنَ وَلَا السَّمٰوَاتُ وَاِنَّـهُ مُسْتَوٍ عَلٰـى الْعَرْشِ عَلٰـى الْوَجْهِ الَّذِىْ قَالَهُ وَبِالْمَعْنٰى الَّذِىْ اَرَادَهُ اِسْتَـوَاءً مُـنَـزَّهًا عَـنِ الْمُمَاسَّـةِ وَالْاِسْتَقْرَارِ وَالتَّمَكُّـنِ وَالْـحُلُوْلِ وَالْاِنْتِقَالِ، لَا يَحْمِلُهُ الْعَرْشُ بَـلِ الْعَرْشُ وَحَمَلَتُهُ مَحْمُوْلُوْنَ بِلُطْفِ قُدْرَتِـه. وَمَقْهُوْرُوْنَ فِىْ قَبْضَتِه وَهُوَ فَوْقَ الْعَرْشِ وَالسَّمَاءِ وَفَوْقَ كُلِّ شَيْئٍ 

اِلٰـى تُخُوْمِ الثَّـرٰى. فَوْقِيَّةً لَا تُزِيْدُهُ  قُرْبًا  اِلٰى الْعَرْشِ وَالسَّمَاءِ كَمَا لَاتُزِيْدُهُ بُعْدًا عَنِ الْاَرْضِ وَالثَّرٰى بَلْ هُـوَ رَفِـيْعُ الـدَّرَجَاتِ عَنِ الْعَـرْشِ وَالسَّمَاءِ وَهُوَ مَعَ ذٰلِكَ قَـرِيْـبٌ مِنْ كُلِّ مَـوْجُوْدٍ وَهُوَ اَقْرَبُ اِلَى الْعَبْدِ مِنْ حَبْلِ الْوَرِيْدِ وَهُوَ عَلٰى كُلِّ شَـيْئٍ شَـهِـيْدٌ .

وَاِنَّهُ تَعَالٰى عَنْ اَنْ يَّحْوِيَهُ مَكَانٌ كَمَا تَقَدَّسَ عَنْ اَنْ يَّحُدَّهُ زَمَانٌ بَلْ كَانَ قَبْلَ اَنْ خَلَقَ الزَّمَانَ وَالْمَكَانَ وَهُوَ الْاٰنَ عَلٰـى مَا عَلَيْهِ كَانَ وَاِنَّهُ بَائِـنٌ مِنْ خَلْقِـه بِصِفَاتِه لَيْسَ فِـىْ ذَاتِـه سِـوَاهُ وَلَا فِـىْ سِوَاهُ ذَاتُـهُ وَاِنَّـهُ مُقَدَّسٌ وَمُـنَـزَّهٌ عَـنِ التَّغَـيُّرِ وَالْاِنْتِقَالِ .


مَا مَـعْـنَـى الْـوَجُـوْدِ ؟

مَعْنَى الْوَجُوْدِ اَنَّ ذَاتَ اللهِ تَـعَـالٰـى مَـوْجُـوْدَةٌ .

مَا لدَّلِيْلُ عَلٰـى وَجُـوْدِ اللهِ تَـعَالٰـى؟

اَلـدَّلِيْلُ عَـلٰـى ذٰلِـكَ وَجُـوْدُ هٰـذِهِ الْـمَخْلُـوْقَـاتِ لِاَنَّـهُ لَـوْلَمْ يَـكُـنْ مَـوْجُـوْدًا لَـكَـانَا مَـعْدُوْمًا وَلَـوْ كَانَ مَـعْـدُوْمًا لَـمْ يُـوْجَـدْ شَـيْـئٌ مِـنْ هٰذِهِ الْـمَخْلُوْقَاتِ . قَالَ سُـبْـحَانَـه وَتَـعَـا لٰـى  وَاللهُ خَـلَـقَـكُمْ وَمَا تَعْمَلُوْنَ .


তিনি আরো বলেন,আল্লাহ'র অস্তিত্বের ব্যাপারে কি কোন সন্দেহ আছে?

➥আল-কুরআন, সূরা ইব্রাহীম, আয়াত: ১০


অথচ তিনি তা থেকে অনেক ঊর্ধ্বে।


❏ স্থায়িত্ব অর্থ কি❓

স্থায়িত্ব অর্থ, নিশ্চয়ই আল্লাহ্ সুবহানাহু ওয়া তাআলার  অস্তিত্বের কোন শুরু নেই।


❏ আল্লাহ্ তাআলার স্থায়িত্বের প্রমাণ কি❓

এ সৃষ্টিকুলের অস্তিত্ব বিদ্যমানই এর প্রমাণ। কেননা তিনি অবিনশ্বর না হলে অবশ্যই নশ্বর হবেন। যদি নশ্বর হন এ সৃষ্টিকুলের কোন কিছুরই অবস্থান কল্পনাও করা যায় না। আল্লাহ্ তাআলা বলেন,তিনিই প্রথম

➥আল-কুরআন, সূরা হাদীদ, আয়াত: ৩

   



❏ চিরঞ্জীব অর্থ কি❓

বাকা অর্থ, নিশ্চয়ই আল্লাহ্ তাআলার অস্তিত্বে কোন সমাপ্তি নেই।



  وَقَالَ تَـعَـالٰـى أَفِـىْ اللهِ شَـكٌّ ؟ تَعَـالٰـى اللهُ عَـنْ ذٰلِـكَ عُـلُـوًّا كَـبِيْـرًا .

مَا مَـعْـنَـى الْـقِـدَمِ ؟

مَـعْـنَـى الْـقِـدَمِ اَنَّ اللهَ سُـبْـحَانَـهُ وَتَـعَالٰـى لَا اَوَّلَ لِـوَجُـوْدِه .


مَا الدَّلِيْلُ عَلٰـى قِدَمِ اللهِ تَعَـالٰـى؟

اَلدَّلِيْلُ عَـلٰـى ذٰلِـكَ وَجُـوْدُ هٰـذِهِ الْـمَـخْلُوْقَاتِ لِاَنَّـهُ لَـوْلَمْ يَـكُنْ قَـدِيْمًا لَـكَانَ حَـادِثًا . لَـوْ كَانَ حَادِثًا، لَـمْ يُـوْجَدْ شَيْـئٌ مِـنْ هٰـذِهِ الْـمَخْلُوْقَاتِ ، قَالَ اللهُ تَـعَالٰـى: هُوَالْاَوَّلُ .

مَا مَـعْـنَـى الْـبَقَاءِ ؟

مَـعْـنَـى الْـبَقَاءِ اَنَّ اللهَ تَـعَالٰـى لَا آخِـرَ لِـوَجُـوْدِه .

مَا الدَّلِيْلُ عَلٰـى بَـقَاءِ اللهِ تَعَالٰى؟

اَلدَّلِيْلُ عَـلٰـى ذٰلِـكَ وَجَـوْدُ هٰـذِهِ


❏ আল্লাহ্ তাআলা চিরঞ্জীব হওয়ার দলীল কি❓

এর দলীল এ সৃষ্টিকুলের অস্তিত্ব। কেননা তিনি চিরঞ্জীব না হলে অবশ্যই ধ্বংস ও নশ্বর হবেন। যদি নশ্বর হন এ সৃষ্টিকুলের কোন কিছুরুই অস্তিত্ব হত না। 


❏ আল্লাহ্ সুবহানাহু ওয়া তাআলা বলেন,তিনিই প্রথম, তিনিই শেষ।➥আল-কুরআন, সূরা হাদীদ, আয়াত: ৩

 

❏ তিনি আরো বলেন,এবং চিরস্থায়ী হচ্ছেন আপনার মহামহিম প্রতিপালকের সত্তা।'

➥আল-কুরআন, সূরা আর রাহমান, আয়াত: ২৭