রাসুলুল্লাহ (সা.) নুরে মুজাচ্ছাম - কুরআন ও হাদিসের আলোকে :- | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস

BISMILLAH HIR RAHMANIR RAHIM

রাসুলুল্লাহ (সা.) নুরে মুজাচ্ছাম - হাদিসের আলোকে :-

Written by (MASUM BILLAH SUNNY)

FB ID :  https://goo.gl/0VsqCZ



যারা বলে যে নবীজী(সা) আমাদের মত সাধারণ ও মাটির তৈরী এটা তাদের কুফরি আকিদার ই বহিপ্রকাশ কারণ :-

১ নং হল সে কুরআন ও হাদীস অমান্য করায় কুফরি করল

২নং হল হুজুর পাক (সা) এর সাথে বিয়াদ্দবি করায় কুফরি করল….
সুরা-আয়াত
বাকারা -১০৪
সোয়াদ- ৭৭
আহযাব -৫৭
হুজুরাত -২,৩
তৌবাহ -৬১,৬৬


  • এই নুরের ওপমা হল যেমন :-



আসমানের সুর্যের আলো। এই আলো যমিনে পতিত হলে যমিনের আলো ও সুর্যের আলো কিন্তু সুর্য না আবার এই আলো সুর্য থেকে খন্ড করা অংশ না (বরং এটা সুর্যের আলো) তদ্রোপ একটা মুমবাতি বা প্রদিপ থেকে হাজার বাতি বা নুর জালালে ও একটা আরেকটার অংশ না। ঠিক সেই রকমভাবে রাসুল(সাঃ) আল্লাহর নুরের তৈরি হয়েও নূর-এ- মুহাম্মাদি(সা) নূর এ খোদা’র অংশ না বা আল্লাহর নুরকে খান্ডাংশ করে নবিজি(সাঃ) এর সৃষ্টি করেছেন এই ভাবে ও বলা বা ধারনা করা শিরিক কারন আল্লাহর কোন অংশ নাই..শরিক নাই।এ কথা বললেই শিরিক,কুফরি,বাতিল ।আর এটা খুবই সুক্ষ ব্যাপার।
-চতুর্দশ শতাব্দির শ্রেষ্ঠ মুজাদ্দিদ ইমাম এ আহলে সুন্নত ‘আ’লা হযরত আহমদ রেযা খান বেরলভী (রহ) ও এমন ব্যাখ্যাই দিয়েছেন।



Are u agree?

Baytullah = আল্লাহর ঘর
Kitabullah = আল্লাহর কিতাব
Ruhullah = আল্লাহর রুহ
Noorim min Noorillah= যিনি আল্লাহর নুর

হযরত ইসা (আ) কে রুহুল্লাহ বা আল্লাহর রুহ বললে যদি শিরিক হয় না আর রাসুলুল্লাহ (সা) কে আল্লাহর জাতি নুর বললে শিরিক হয় হবে কেন? আর এই নুর তো আল্লাহ পাকের নুরের কোন অংশ নয় আল্লাহর নুর থেকে সৃষ্ট নুর যেমনটা রুহুল্লাহ (আল্লাহর রুহ) খেতাব হয়েও আল্লাহর অংশ নয় ।


  • –আমিও তোমাদের মত মানুষ এই কথার ব্যাখ্যা–



বলুন ,” আমি ও তোমাদের মত মানুষ (কিন্তু তোমরা আমার
মত না) ..আমার নিকট ওহী আসে যে তোমাদের ইলাহ এ এক মাত্র
ইলাহ।”
★হামীম- সিজদাহ ৬
★কাহাফ -১১০
” তাদের পয়গাম্বর গণ বললেন,”আমরা ও তোমাদের মতই
মানুষ ….”
★ইব্রাহীম -১১

—~~­~~~~~———-­———-

“”ওরা বললো,” তোমরা তো আমাদের মতই মানুষ..দয়া ময়
আল্লাহ্‌ তো কিছুই অবতীর্ণ করেন নি…”
★ইয়াছিন ১৫
★ইব্রাহীম ১০
★শুয়ারা- ১৮৬
★হুদ ২৭

—————­—-~~~~~~—
” যদি তোমরা তোমাদের মতই এক জনের আনুগত্য কর তবে
নিশ্চিত রুপেই তোমরা ক্ষতিগ্রস্ত হবে…”
★মুমিনুন ৩৪

—————­——-~~~~~~

“”” তিনি- পুরা- মাটির মত শুকনো মাটি দারা মানুষ কে সৃষ্টি
করেছেন “
★আর-রাহমান ১৪
” কাদা -মাটি-থেকে তিনি মানুষ কে সৃষ্টি করেছেন “
★আস-সিজদাহ ৭

—————­—-~~~~~~~~~

” ওয়া খালাক তো মুহাম্মাদান মীন নুরী ওয়াযহিয়া ” অর্থাৎ ” আমি আমার হাবীব কে আমার নিজ নূর থেকে সৃষ্টি করেছি “।
★হাদিস-এ-কু­দসি

 অনেক গুলো হাদিস একত্র করে সংক্ষেপে দিলাম
Note: চাইলে নেট এ সার্চ করে সত্যতা যাচাই করে নিতে পারেন


হযরত মুহাম্মাদ(সা:) বলেন ,”
তোমাদের কে আছো আমার মত ?”
....”আমি তোমাদের কারো মত না ! “
..” তোমাদের কেহ আমার অনুরূপ ( সাদ্রিস,শামিল,এ­ক রকম) না,
আমি যখন রাতে ঘুমাই তখন আল্লাহ্‌ আমাকে আহার করান এবং পান করান।




—————­—-~~~~~~~~~~~­—————­–
Referance:-
~~Sahih al-Bukhari Hadith: 3.183
~~Sahih al-Bukhari Hadith: 3.182
~~Sahih al-Bukhari Hadith: 3.188
~~Sahih al-Bukhari Hadith: 3.185
~~Sahih al-Bukhari Hadith: 3.184
~~Sahih al-Bukhari Hadith: 3.187
~~Bukhari sarif,Volume 9, Book 90, Number 348
~~Bukhari sarif,Volume 9, Book 90, Number 347



রাসুলুল্লাহ (সা) বেমিসাল মাখলুক (সৃষ্টি) বিস্তারিত  Click here



~~~~~~~~~~~———————

নুরতত্ব নিয়ে সংক্ষেপে একটু বলা দরকার কারন ওহাবী সালাফীরা না বুঝে সব গোলাই ফেলে

overall points of নূর তত্ত :-

এক নজরে করআন হাদীস এ উল্লেখিত নুর:-

ইসলাম-নূর :-
“ইসলামের জন্য যার বক্ষ কে উন্মুক্ত করেছে সে আল্লাহর
নূর এ পরিচালিত!”
★ আল-কুরআন

আল্লাহ্‌ -নুর:-
“আল্লাহ্‌-আসমান -যমীনের নূর”
★সুরা নূর ৩৫

আল-কুর্‌আন­ নূর:-
★আহযাব ৪৬
★সুরা শুরা ৫২
★আন-নিসা ১৭৫

নবুওয়াত নূর:-
★মায়েদা ১৫
★আহযাব ৪৬

রাসুলুল্লাহ (সা) আল্লাহর জাতি নূর:-
★নুর ৩৫
★ছাফ ৮
★তওবা ৩২
★মায়েদা ১৫

 নেক কাজ নূর

 অজু-নূর:-
“অজুর ওপরে অজু করা নূরের ওপর নূর “
★আল-হাদিস

—————­——-

Explaination of নূর-এ-মুজাসসাম হযরত মুহাম্মাদ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম)

আল-কোরআন ও তফসীর থেকে : কিতাবের ছবি সহ বিস্তারিত দেখতে চাইলে  Click here

  • আয়াত ১ :



সুরা নূর–৩৫ -আয়াত নিয়ে আব্বাস(রা:) ক’আব-এ-আহবার (রা­: ) কে বলেন,’এই আয়াতের বর্ণনা কর?”
১) কা’আব -এ- আহবার(রা:),
২) হাযরত ইবনে উমর(রা:),
৩) মুহাম্মাদ ইবনে কা’আল কারাদি(রা:) থেকে ৩ টি হাদিস বর্ণনা করেন,
”দীপাধার ‘
মানে”হুজুর(সা:)­ এর ‘বক্ষ মোবারক।
’ফানুস’ মানে হুজুর(সা:) এর ‘হৃদয় মোবারক’
আর’নূরের ওপর নূর’ মানে ‘নুরে মুহাম্মাদি (সা:) নুরে ইব্রাহীম (আ:) এর ওপর!’.

সুরা নুর ৩৫ নং আয়াতের ব্যাখ্যায় রাসুল (সা)কে নুর বলা হয়েছে:-

Refferance:-
►Ibn Jarir al-Tabari in his Tafsir (18:95),
►Suyuti in al-Durr al-manthur (5:49),
►Zarqani in Sharh al-mawahib (3:171),
►al-Khafaji in Nasim al-riyad (1:110, 2:449),
►al-Nisaburi in Ghara’ib al-Qur’an (18:93)Tanwir al Miqbas, Min Tafsir Ibn Abbas, Page No. 376, Published by Maktaba al Asriyyah, Beirut, Lebanon]
►Tafsir at-Tabri, under 24:35
►Tafsir Ibn Kathir, Volume No.3, Page No. 490, under 24:35
►Ash-Shifa bi Tarif al Haquq al Mustafa, Page No. 6
কাঞ্জুল-ঈমান ,খাজিন,সূরা নূর ৩৫ এর তাফসির



  • আয়াত ২ :



” নিশ্চই তোমাদের নিকট স্পষ্ট কিতাব(আল-কুর্‌আ­ন) ও
মহা সম্মানিত নূর [হযরত মুহাম্মাদ (সা)] এসেছেন “
মায়েদাহ ১৫

এই আয়াতে রাসুলুল্লাহ صلى الله عليه و آله وسلم নুরের কথা যারা যারা বর্ননা করেছেন:-

►Suyuti in Tafsir al-Jalalayn,

►Fayruzabadi in the Tafsir Ibn `Abbas entitled Tanwir al-miqbas (p. 72)

►Shaykh al-Islam, Imam Fakhr al-Din al-Razi, the Mujaddid of the sixth century, in his Tafsir al-kabir (11:189)

►Imam al-Shirbini in his Tafsir entitled al-Siraj al-munir(p. 360), the author of Tafsir Abi Sa`ud (4:36)

►Thana’ullah Pani Patti in his Tafsir al-mazhari, (3:67)

অধিকাংশ তফসীরে এই আয়াত রাসুলুল্লাহ (সা) সম্পর্কে বলা হয়েছে বেশি বড় হয়ে যাবে বলে উল্লেখ্য করলাম না।



  • আয়াত ৩ :



” তারা চায় তাদের মুখের ফুৎকারে আল্লাহর নূর কে নির্ভাপিত করতে কিন্তু আল্লাহ্‌ অবশ্যই তার নূরের পূর্ণ তা বিধান করবে যদি ও কাফির রা তা অপ্রীতিকর মনে করে “

তওবাহ ৩২
সুরা ছাফ ৮



  • আয়াত ৪ :



সুরা তাওবার আয়াত নং – ১২৮ এ অল্লাহ্ বলেন ” তোমাদের নিকট এক মহান রাসূলের আগমন হয়েছে” এই আয়াতের তাফসীর প্রসঙ্গে নবী করিম (সাঃ আঃ)কোথা হতে আসলেন – সে সম্পর্কে



  • হাদিস ১ :



নির্ভরযোগ্য হাদিসে বর্নিত আছে যে :

وعن ابلى هريرة رضى الله عنه ان رسول الله صلى الله عليه و سلم سائل جبريل عليه السلام فقال يا جبريل كم عمرك من السنين فقال يا رسول الله مست اعلم غير ان فى الحجاب الرابع نجما يطلع في سبعين الف سنة مرة رايته اثنين و سبعين الف مرة فقال يا جبريل و عزة ربى جل جلا له انا ذالك الكوب-

অর্থ : ® হযরত আবু হোরায়রা (রাঃ) থেকে বর্নিত,

কোন এক সময় হযরত রাসুল করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হযরত জিব্রাঈল (আঃ) এর নিকট জিজ্ঞাসা করিলেন " হে জিব্রাইল! তোমার বয়স কত বৎসর হইয়াছে?"
হযরত জিব্রাইল (আঃ) উত্তর করিলেন,
" হে আল্লাহর রাসূল! আমি আমার বয়স সম্পর্কে কিছুই বলিতে পারিনা। তবে আমি আপনাকে আমার বয়স সম্পর্কে এতটুকু তথ্য জানাইতে পারি যে, চতুর্থ আসমানে একটি উজ্জ্বল তারকা ছিল, উক্ত তারকাটি ৭০ হাজার বৎসর পর পর আসমানে একবার উদয় হইত। আমি উহাকে ৭২ হাজার বার উদয় হইতে দেখিয়াছি।
তখন নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন,
হে জিব্রাঈল! আমার প্রতিপালকের ইজ্জতের কসম। নিশ্চয় আমিই ছিলাম সেই উজ্জ্বল নক্ষত্র বা তারকা ।"

★ ইমাম বুখারী (রহ) : আত তাশরীফাতে ফি খাসায়েস ওয়াল মুজিজাত ২/২৫৪ পৃ:
★ইমাম বুখারীর রহমাতুল্লাহি আলাইহি লিখিত : তারিখ উল কাবির
★ ইমাম বুরহান উদ্দিন হালাবী শাফেয়ী : সিরাতে হালাবিয়্যাহ ১ম খন্ড:৪৯ পৃ: [ইমাম বুখারীর সুত্রে]
★ আল্লামা ইসমাইল হাক্কী : তফসীরে রুহুল বয়ান : ৩/৫৪৩ : সুরা তওবা ১২৮
★ আল্লামা শায়খ ইউসুফ নাবহানী : যাওয়াহিরুল বিহার : ৩/৩৩৯ [নিজস্ব সনদে আবু হুরায়রা (রা) থেকে]
★ আল্লামা শফী উকাড়ভী : যিকরে হাসীন : ৩০ পৃ:

® ইমাম বুরহান উদ্দিন শাফেয়ী (রহ) একজন গ্রহনযোগ্য মুহাদ্দিস। মোল্লা আলী কারি (রহ) শরহে শিফা ১/৩৭ সহ অসংখ্য স্থানে ইমাম হালাবীর মতামত উল্লেখ্য করেছেন।

® ইমাম হালাবী তার সিরাতে হালাবিয়্যার প্রথমে বলেন, সীরাত গ্রন্থ সমুহে সহিহ, সাক্বীম, দ্বইফ, বালাগ, মুরসাল, মুনকাতা ও মু'দাল হাদিস সমুহ একত্রিত করা হয় কিন্তু জাল বা মওদ্বু হাদিস নয়।
★ সিরাতে হালাবিয়্যাহ : ১ম :৭ পৃ

অপরদিকে, (আরবি = নাজম) মানে হল তারকা যা রাসুলুল্লাহ (সা) এর অন্যতম নাম মোবারক। অনেক তফসীরকারকগন কুরআন পাকের সুরা ""ওয়ান্নাজম"" এর মধ্যে ""আন-নাজম"" বলতে রাসুলুল্লাহ (সা) কে বুঝিয়েছেন। যা উক্ত হাদিসের মধ্যে এক শক্তিশালী যুগসুত্রও স্থাপন করে।


  • প্রমান :


® ইমাম জাফর সাদেক (রহ) বলেন, আন-নাজম বলতে রাসুলুল্লাহ (সা) কে বুঝানো হয়েছে।

★ ইমাম কুরতুবী : জামিউল আহকামুল কুরআন : ১৭/৮৩ পৃ:
★ ইমাম বাগভী : মুয়ালিমুত তানযিল : ৭/৪০০ পৃ:
★ ইমাম আলুসী : তফসীরে রুহুল মা'য়ানী : ১৪/৪৪ পৃ:
★ কাজী সানাউল্লাহ পানিপথী : তফসীরে মাযহারী : ৯/১০৩ পৃ:
★ ইমাম সাভী : তফসীরে সাভী : ৪/১২৯ পৃ:
★ ইমাম খাযেন : তফসীরে খাযেন : ৪/২০৩ পৃ:
★ ইমাম ইসমাইল হাক্কী : তফসীরে রুহুল বয়ান : ৯/২০৮ পৃ:



  • হাদিস ২ :



নুর সম্পর্কিত হাদিসটি নিম্নরোপ :-

حضرت جابر بن عبد اﷲ رضی اﷲ عنہما سے مروی ہے فرمایا کہ میں نے بارگاہِ رسالت مآب صلی اللہ علیہ وآلہ وسلم میں عرض کیا : یا رسول اﷲ! میرے ماں باپ آپ پر قربان! مجھے بتائیں کہ اﷲ تعالیٰ نے سب سے پہلے کس چیز کو پیدا کیا؟ حضور نبی اکرم صلی اللہ علیہ وآلہ وسلم نے فرمایا : اے جابر! بے شک اﷲ تعالیٰ نے تمام مخلوق (کو پیدا کرنے) سے پہلے تیرے نبی کا نور اپنے نور (کے فیض ) سے پیدا فرمایا، یہ نور اللہ تعالیٰ کی مشیت سے جہاں اس نے چاہا سیر کرتا رہا۔ اس وقت نہ لوح تھی نہ قلم، نہ جنت تھی نہ دوزخ، نہ (کوئی) فرشتہ تھا نہ آسمان تھا نہ زمین، نہ سورج تھا نہ چاند، نہ جن تھے اور نہ انسان، جب اﷲ تعالیٰ نے ارادہ فرمایا کہ مخلوق کو پیدا کرے تو اس نے اس نور کو چار حصوں میں تقسیم کر دیا۔ پہلے حصہ سے قلم بنایا، دوسرے حصہ سے لوح اور تیسرے حصہ سے عرش بنایا۔ پھر چوتھے حصہ کو (مزید) چار حصوں میں تقسیم کیا تو پہلے حصہ سے عرش اٹھانے والے فرشتے بنائے اور دوسرے حصہ سے کرسی اور تیسرے حصہ سے باقی فرشتے پیدا کئے۔ پھر چوتھے حصہ کو مزید چار حصوں میں تقسیم کیا تو پہلے حصہ سے آسمان بنائے، دوسرے حصہ سے زمین اور تیسرے حصہ سے جنت اور دوزخ بنائی۔ ۔ ۔ یہ طویل حدیث ہے۔

অর্থ : হযরত জাবির (রা:) আরজ করলেন, ইয়া রাসুলুল্লাহ صلى الله عليه و آله وسلم !!
আমার পিতা-মাতা আপনার কদম মোবারক এ কোরবানি হোক,
আপনি বলে দিন যে আল্লাহ্‌ পাক সর্ব প্রথম কি সৃষ্টি করেছেন?
রাসুলুল্লাহ صلى الله عليه و آله وسلم বললেন”

হে জাবের, নিশ্চই আল্লাহ্‌ তা'য়ালা সর্ব প্রথম স্বীয় (নিজ) নুর হতে তোমার নবীর নুর মোবারক সৃষ্টি করেছেন।”

তারপর সেই নুর আল্লাহর কুদরতে ও ইচ্ছায় ভ্রমণ রত ছিল। কেননা ঐ সময়
লাওহ-কলম , জান্নাত – জাহান্নাম
ফেরেশতা , আসমান- জমিন কিছুই ছিল না ।
তারপর আল্লাহ্‌ মাখলক সৃষ্টি করার ইচ্ছা করলেন..
তখন এই নূর কে ৪ ভাগ করলেন..
প্রথম ভাগ দিয়ে কলম;
দ্বিতীয় ভাগ দিয়ে লৌহে-মাহফুজ;
তৃতীয় ভাগ দিয়ে আরশ এবং চতুর্থ ভাগ দিয়ে
বাকি সবকিছু সৃষ্টি করলেন....।

  • সনদ :

হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম



জাবির বিন আব্দুল্লাহ রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু



মুহাম্মাদ বিন মুনকাদার রাহমাতুল্লাহি আলাইহি



মা’মার বিন রাশীদ রহমাতুল্লাহি আলাইহি



আব্দুর রাজ্জাক ইবনে হুমাম রাহমাতুল্লাহি আলাইহি।

নোট :

হযরত জাবের (রা) থেকে উক্ত হাদিসের সনদখানা ইমাম বুখারীর দাতা এবং শিক্ষক আব্দুর রাজ্জাক ইবনে হুমাম (রহ) ওনার "জান্নাতুল খুলদ" কিতাবে লিপিবদ্ধ করেছেন। উক্ত হাদিস খানা শাব্দিক পরিবর্তন সহ ""উমর ইবনুল খাত্তাব (রা) " থেকেও বর্নিত আছে। নিচে সেটাও ছবি আকারে দেয়া হয়েছে।



  • রেফারেন্স : কিতাবের ছবিসহ রেফারেন্স সহ বিস্তারিত জানতে দেখুন :
  • জাবির (রা) এর হাদিসে নুর বিশ্লেষণ  Click here 



►Musannaf Abdur Razaq, al-Juz al-Mafqud min al-Juz al-Awwal min al-Musannaf Abdur Razaq, Page No. 99, Hadith Number 18

►Qastalani in Mawahib ul Laduniyah Volume 001, Page No. 71,
►Zurqani in Sharah Mawahib ul Laduniyah Volume 001, Page No. 89-91,

►Ajluni in Kashf al-Khafa (وقال : رواه عبد الرزاق بسنده عن جابر بن عبد اﷲ رضي اﷲ عنهما) Volume 001, Page No. 311, Hadith Number 827

►Halabi in his Sirah Volume 001, Page No. 50,

►Ashraf Ali Thanvi in Nashar ut-Tib Volume 001, Page No. 13

From : 'Iydarusi
Book : Tarekh An Nur as Saafir
Volume : 1
Page : 8

From : Muhaddith 'Abdur Haq Dihlavi
Book : Madarij al-Nubuwwa

He declared this Hadeeth Sound and Authentic

মুহাদ্দিসে আব্দুল হক দেহলভী (রহ) বলেন, " এই হাদিস বিশুদ্ধ এবং সহিহ "

[Madarij al Nabuwah, Volume No.2, Page No. 2 (Persian edition), Volume No.2, Page # 13 (Urdu Edition), Published by Shabbir Brothers, Urdu, Bazaar Lahore.]

From : Ahmad al-Shami Son of Ibn e `Abidin
Book : commentary on Ibn Hajar al-Haytami's poem al-Ni`mat al-kubra `ala al-`alamin

From : Nabhani
Book : Jawahir Al Bihar
Volume : 3
Page : 354

এই হাদিসটি আরো বিভিন্ন কিতাবে বর্নিত আছে :

♦যুরকানী ১/৪৬
♦রুহুল মায়ানী ১৭/১০৫
♦মাতালেউল মাসাররাত ২৬৫ পৃ
♦ফতোয়ায়ে হাদীসিয়া ১৮৯ পৃ
♦আন-নিআমাতুল কুবরা ২ পৃ
♦হাদ্বীকায়ে নদীয়া ২/৩৭৫
♦দাইলামী শরীফ ২/১৯১
♦মাকতুবাত শরীফ ৩ খন্ড ১০০ নং
♦মওজুয়াতুল কবীর ৮৩ পৃ
♦ইনছানুল উয়ুন ১/২৯
♦নূরে মুহম্মদী ৪৭ পৃ
♦আল আনোয়ার ফি মাওলিদিন নবী ৫ পৃ
♦আফদ্বালুল ক্বোরা
♦তারীখুল খমীস ১/২০
♦নুজহাতুল মাজালিস ১ খন্ড
♦দুররুল মুনাজ্জাম ৩২ পৃ
♦কাশফুল খফা ১/৩১১
♦তারিখ আননূর ১/৮
♦আনোয়ারে মুহম্মদীয়া ১/৭৮
♦আল মাওয়ারিদে রাবী ফী মাওলীদিন নবী ৪০ পৃষ্ঠা ।
♦তাওয়ারীখে মুহম্মদ
♦আনফাসে রহীমিয়া
♦মা’ য়ারিফে মুহম্মদী
♦মজমুয়ায়ে ফতোয়া ২/২৬০
♦আপকা মাসায়েল আওর উনকা হাল ৩/৮৩
♦শিহাবুছ ছাকিব ৫০
♦মুনছিবে ইছমত ১৬ পৃ
♦রেসালায়ে নূর ২ পৃ
♦হাদীয়াতুল মাহদী ৫৬পৃ
♦দেওবন্দী আজিজুল হক অনুবাদ কৃত বুখারী শরীফ ৫/৩



  • সনদ পর্যালোচনা :



১. আব্দুর রাজ্জাক রাহমাতুল্লাহি আলাইহি হলে মুসলিম উম্মাহের সর্বশ্রেষ্ঠ মুহাদ্দীস ইমাম বুখারী রাহমাতুল্লাহি আলাইহি এর দাদা উস্তাদ। যদি বিতর্কের খাতিরে ধরেই নেই আব্দুর রাজ্জাক রাহমাতুল্লাহি আলাইহি তাঁর কিতাবে দুর্বল হাদীস উল্লেখ করেছেন তাহলে বলতে হয় বুখারী শারীফেও দ্বয়ীফ বা দুর্বল হাদীস আছে যেহেতু ইমাম বুখারী রাহমাতুল্লাহি আলাইহি হাদীস শাস্ত্রের জ্ঞান লাভ করেছেন আব্দুর রাজ্জাক রাহমাতুল্লাহি আলাইহি এর কাছ থেকে। কিন্তু বুখারী শারীফে দুর্বল হাদীস আছে সেটা কেউই বলেন না। তাই “হাদীসটি জাল” কথাটি ভুল প্রমাণীত হল।

২. হাদীসের সনদটি নিম্নরূপ
রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম>>জাবির বিন আব্দুল্লাহ রাদ্বিয়্যাল্লাহু আনহু>>মুহাম্মাদ বিন মুঙ্কদার রাহমাতুল্লাহি আলাইহি>>মা’মার বিন রাশীদ>>আব্দুর রাজ্জাক রাহমাতুল্লাহি আলাইহি

এবার দেখা যাক মুহাদ্দীগণের মন্তব্য
(ক) মুহাদ্দীস আব্দুল হক দেহলভী রাহমাতুল্লাহি আলাইহি তাঁর সুবিখ্যাত সিরাত গ্রন্থ ‘মাদারিজ নব্যুওত’ গ্রন্থে হাদীসটিকে হাসান ও সহীহ বলেছেন।

(খ) আহমাদ ইবন সালীহ (রঃ) বলেন, “আমি একবার আহমাদ বিন হাম্বল (রঃ) কে জিজ্ঞাসা করলাম, আপনি হাদীস শাস্ত্রে আব্দুর রাজ্জাকের থেকে আর কাউকে পেয়েছেন? আহমাদ বিন হাম্বল (রঃ) বলেন, না”।
[আসকলানী, তাহজিবুত তাহজিব ২/৩৩১]

(গ) হাদীসটির একটি রাবী হলেন মা’মার বিন রাশীদ।
উনার সম্পর্কে আহমাদ বিন হাম্বল (রঃ) বলেন, আমি বাসরার সকল হাদীস শাস্ত্রের বিশেষজ্ঞের থেকে মুসান্নাফ আব্দুর রাজ্জাকে মা’মার বিন রাশীদ এর সূত্রে পাওয়া হাদীসগুলো পছন্দ করি। ইবন হাজর আসকলানী (রঃ) উনাকে দক্ষ মুখস্তবীদ, নির্ভরযোগ্য বলেন।
[আসকলানী, তাহজিবুত তাহজিব ১/৫০৫]
মা’মার বিন রাশীদ সূত্রে বর্ণিত বুখারী শারীফের হাদীস সংখ্যা প্রায় ২২৫ এবং
মুসলিম শারীফে বর্ণিত হাদীস সংখ্যা প্রায় ৩০০


(ঘ) হাদীসটির আরেক রাবী হলেন মুহাম্মাদ বিন মুকদার।
ইমাম হুমায়দি বলেন, মুকদার একজন হাফিজ
ইমাম জারাহ তাদীল ইবন মা’ঈন বলেন, উনি নির্ভরযোগ্য
[আসকলানী, তাহজিবুত তাহজিব ভলি ০৯/১১০৪৮]
মুকদার থেকে বর্ণিত হাদীসের সংখ্যা বুখারী শারীফে ৩০টি এবং মুসলিম শারীফে ২২টি।

(ঙ) আর জাবির রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু একজন সুপ্রসিদ্ধ সাহাবী। বুখারী ও মুসলিম শারীফের উনার থেকে বর্ণিত অনেক হাদীস আছে।

সুতরাং বুঝা গেল। হাদীসটির সকল রাবীই নির্ভরযোগ্য এবং উনাদের সূত্রে বুখারী ও মুসলিম শারীফেও হাদীস বর্ণিত আছে।




*****************************************



  • মুসান্নাফে আব্দুর রাজ্জাক কিতাবে আছে তার প্রমান
  • হাদিসের মান পর্যালোচনা 



★ ★ ইমাম বায়হাকী [Born : 384 AH/994 CE
Died : 458 AH/1066 CE]

★ এই জগৎবিখ্যত মুহাদ্দিস ইমাম, আল্লামা বায়হাক্বী রহমাতুল্লাহি আলাইহি উনার কিতাবে বর্ননা করেন–

ان الله تعالي خلق قبل الاشياء نور نبيك

“….. নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পাক সর্ব প্রথম উনার নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার “নূর” মুবারক সৃষ্টি করেন।”

দলীল-
√ দালায়েলুন নবুওয়াত লিল বায়হাক্বী ১৩ তম খন্ড ৬৩ পৃষ্ঠা।

উক্ত হাদিস সম্পর্কে সমর্থনকারী Islamic Scholars দের বিবৃতি দ্বারা উপরোক্ত সনদ এবং হাদিসের মান নির্নয় করি :-

★ শাইখ আব্দুল কাদির জিলানী (রহ) [পিরে পিরানী,মিরে মিরানী, গাউসে সামাদানী, মাহবুবে সুবহানী, গাউসুল আযম দস্তগীর (রহ), ওফাত ৫৬১ হিজরি]

তিনি তার বিখ্যাত [Sirr al-asrar fi ma yahtaju ilayh al-abrar (p. 12-14 of the Lahore edition)] কিতাবে বলেন, আমি (রাসুল) আল্লাহর (নুর) থেকে সৃষ্টি আর আমার (নুর) থেকে সমস্ত বিশ্বাসীগন (ও সমস্ত কিছু) সৃষ্টি।
তিনি আরো বলেন, রাসুল (সা) এর নুর থেকে আল্লাহর আরশ সৃষ্টি এবং এমন আরো কিছু (যা হাদিসে প্রথম) সৃষ্টি যেমন কলম, বুদ্ধিমত্তা [The Secret of Secrets (Cambridge: Islamic Texts Society, 1994)]

এই হাদিস সম্পর্কে ৩০/৪০ জন মোহাদ্দিসের বক্তব্য সহ বিশালভাবে এই Link এ দেখুন :

লিংক :
জাবির (রা) বর্নিত হাদিসে নুর (Hadith-E-Noor) কি জাল?

http://goo.gl/Myx0dg

লিংক :
প্রথম সৃষ্টি সম্পর্কে হাদিসটির Chain Transmission add করেছি :-

http://goo.gl/plWl53



  • হাদিস ৩ :



রাসুলুল্লাহ صلى الله عليه و آله وسلم বলেন :-

" আমি তোমাদের আমার পূর্বের কিছু
কথা জানাবো! তা হলো-
আমি হযরত ইব্রাহীম আলাইহিস সালামের
দোয়া আর হযরত ঈসা আলাইহিস সালামের ওনার জাতিকে দেয়া সুসংবাদ ও আমার আন্মাজানের (স্বপ্নে) দেখা সেই নূর যা ওনার দেহ থেকে বেরিয়ে শাম দেশের প্রাসাদ সমুহকে আলোকিত করেছিল.. "

Reference :

Book: Miskatul Masabih
page: 513

Book: Kanjul Ummal
Part: 11
Page: 173

From: Ibne Hibban
Book: Shahih ibne hibban
Volume: 9
Page: 106

From: Ibn al-Jawzi
Book: al-Wafa'
Page: 91,
chapter: 21 of Bidayat nabiyyina sallallahu `alayhi wa sallam

From: Imam Haythami
Book: Majma` al-zawa'id (8:221/409)

From: Al Haakim,
Book: Al mustadrak,
Volume :002,
Page No. 615-616/ 705/724
References of Hadith number 4233
or V:3 page: 27

Imam Hakim after narrating it said:

هذا حديث صحيح الإسناد شاهد للحديث الأول

Translation: This Hadith has a Sahih chain and is also a witness over the first hadith (which he mentioned in the chapter)

Reference

►Mustadrak ala Sahihayn, Volume 2, Page No. 600, Hadith No. 4175

From: Imam Ahamad
Book: Musnade Ahamad
volume: 4
page: 127
Hadith: 16701

From : Ibn e Sa'd
Book : Tabqaat Al Kubra
Volume : 1
Page : 150

From : Bayhaqi
Book : Dalaeel un Nubuwwah
Volume : 1
Page : 83
again 1:110 & 2:8

From : Ibn e 'Asakir
Book : Tareekh Madeenat Damishq
Volume/page : 1:170 and 3:393

From : Qurtabi
Book : Jami' Al Ahkaam Al quran
Volume : 2
Page : 131

From : Tabari
Book : jami' Al Bayan
Volume : 1
Page : 556

From : Ibn e Katheer
Book : Tafseer Al Quran Al Azeem
Volume : 4
Page : 360-361

From : Samarqani
Book : Tafseer
Volume : 3
Page : 421

From : Tabarai
Book : Tareekh Al Umam wal Mulook
Volume : 1
Page : 458

From : Ibn e Ishaaq
Book : Seerat An Nabwiyyah
Volume : 1
Page : 28

From : Ibn e Hisham
Book : Seerat An Nabwiyyah
Volume : 1
Page : 302

Book: Al-Bidaya wan Nehaya
Volume : 2
page: 321

Book: Musnade Afzar
Hadith: 2365

Book: Tafsire Dor're Monsor
volume : 1
page: 334

Book: Maoware dul
zamman
volume:1
pagepage:512

From : Halabi
Book : Seerat Al Halabiyyah
Volume : 1
Page : 77



  • হাদিস ৪ :



তাবলিগ জামাতের নেতা আশরাফ আলী থানভী
তার বিখ্যাত কিতাব “নুশর আত ত্বীব” এ বর্ননা করেছেন যে —
Asraf Ali Thanwi has mentioned a Hadith in his book نشر الطیب فی ذکر النبی الحبیب صلی اللہ علیہ وسلم that—-

—– Hazrat Ali bin Al-Hussain (Zainul Abdeen) narrated from ”””his father Hazrat Hussain (رضی اللہ عنہ) ”””’and he narrated from ”””his father (Hazrat Aliرضی اللہ عنہ)”””’ that the Prophet (صلی اللہ علیہ وسلم) said:

হযরত আলি বিন আল-হোসাইন [ ইমাম জয়নুল আবেদিন (রা) ] ওনার পিতা ইমাম হোসাইন (রা) থেকে তিনি ওনার পিতা হযরত আলি (রা) থেকে বর্ননা করেছেন যে রাসুলুল্লাহ (সা) বলেছেন,

—– :“I was a ””’noor (light)””” in front of my Lord some fourteen thousand years before the birth of Hazrat Adam (علیہ السلام).”

আমি আমার প্রভুর সামনে আদম (আ) সৃষ্টিরও প্রায় ১৪ হাজার বছর পুর্বে একটা নুর হিসেবে বিদ্যমান ছিলাম।

—- There are some more traditions which prove that the noor of the Prophet (صلی اللہ علیہ وسلم) was created in the earliest time, some traditions say that his noor was created before the Tablet, the Pen, earth, sky and even before all creatures.

এমন অনেক ধরনের বর্ননা প্রমান করে যে রাসুলুল্লাহ (সা) এর নুর সর্বপ্রথমে (earliest)
সৃষ্টি হয়েছিল, কিছু কিছু বর্ননা (মানে হাদিস) বলে যে লাওহ-কলম, পৃথিবী- আকাশ এমনকি সবকিছুর পুর্বে রাসুলুল্লাহ (সা) এর নুর সৃষ্টি হয়েছিল।

Reference :

উনার বিখ্যাত কিতাব “Nashr ut Teeb fi Dhikr il Nabbiyal Habeeb” এ হাদিস লিখেছেন। স্ক্যান কপিসহ দেখতে Click here : http://goo.gl/ZhX2mH

তাছাড়া এই উত্তর দেওবন্দের আন্তর্জাতিক website এর ফতোয়া দেখুন :-

Question: 3126 >Is the Prophet peace be upon him’s nur the first thing to be created? Also, was it created before Adam alayhis salam’s? Answer: 3126 Jan 29,2008 (Fatwa: 903/876=D)

ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দের ফতোয়ার ওয়েবসাইটের লিঙ্ক –

http://darulifta-deoband.org/showuserview.do?function=answerView&all=en&id=3126

  • হাদিস ৫ :



حدثنا الحسن قثنا أحمد بن المقدام العجلي قثنا الفضيل بن عياض قثنا ثور بن يزيد عن خالد بن معدان عن زاذان عن سلمان قال سمعت حبيبي رسول الله صلى الله عليه وسلم يقول كنت انا وعلي نورا بين يدي الله عز وجل قبل ان يخلق آدم بأربعة عشر ألف عام فلما خلق الله آدم قسم ذلك النور جزءين فجزء أنا وجزء علي عليه السلام

Salman (ra) narrates that he heard the beloved Prophet (صلى الله عليه وسلم) say: I was a Nur in front of Allah, some 14000 years before creation of Adam (as).

Reference :

★ Imam Ahmed bin Hanbal in Fadhail as Sahaba, Volume No. 2,Page No. 663, Hadith No 1130

★ Al Muhibb al Tabari narrates this tradition on the authority of Salman from the Prophet (pbuh&hp) in al Riyad al Nadirah, ii, 163:

★ Ahmad ibn Hanbal in al Fada’il;

★ Sibt ibn al Jawzi in Tadhkirat Al­khawass, 46;

★ Abu Hatim Muhammad ibn Idris al Razi in Zayn al Fata fi tafsir Surat Hal ata, MS.;


CHAIN TRANSMISSION :


★ This tradition has also been narrated by also Ibn Mardawayh, Ibn Abd al Barr, al Khatib al Baghdadi, Ibn al Maghazili, al-Asimi, Shiruyah al Daylami and others from Imam Ali , Salman , Abu Dharr , Anas ibn Malik , Jabir ibn Abd Allah and other Companions.

উক্ত হাদিসের সনদ বর্ননাকারী গন :-

the hadis is transmitted by many genres of narrators including –

i) Sahaabah (Companions of the Holy Prophet s.a.w.a.)
ii) Taabe’een (Generation after companions who did not see the Holy Prophet s.a.w.a.)
iii) Huffaaz (Memorizers of the Holy Quran)
iv) Ulama (Scholars)

The following is a category-wise list of transmitters:

i) Companions:
Among the revered companions who narrated the tradition:

1. Ameerul Momineen Ali b. Abi Taalib (a.s)

Following scholars have recorded the tradition from him:

• Saalehaani
• Kala’ai
• Muhammad b. Jafar
• Wasabi
• Waa’iz Hirvi
• Muhammad Sadr Aalim

2. Imam Husain b. Ali (a.s)

Following scholars have chronicled the tradition from him:

• Aasimi
• Khaarazmi
• Matarzi
• Shahabuddin Ahmad

3. Salman Muhammadi (r.a)

Following scholars have documented this tradition from him:

• Ahmad b. Hanbal. (Sibt-e-Jauzi has narrated this tradition in his book from Ahmad b. Hanbal.)
• Abdullah Ibn Ahmad
• Ibne Maghazili
• Sheruyeh Daylami
• Natanzi
• Shahardar Daylami
• Khateebe Khaarazmi
• Ibn Asir
• Hamwini
• Taalibi
• Hamadani
• Ganji Shaafe’ee
• Tabari
• Wasabi
• Hirvi

4. Abu Zarr Ghaffari (r.a.)

Ibne Maghaazili has narrated from him.

5. Jaabir b. Abdillah al-Ansaari (r.a.)

Ibne Maghaazili has narrated from him.

6. Abdullah b. Abbas (r.a.)

Following scholars have narrated this tradition from him:

• Ibn Habeeb Baghdadi
• Natanzi
• Ganji Shaafe’ee
• Hamwini
• Zarandi
• Shahabuddin Ahmad
• Jamaal Muhaddis

7. Abu Hurairah

Hamwini has narrated from him.

8. Anas b. Maalik

Aasimi has narrated from him.

i) The Taabe’een who narrated Hadees-e-Nur:
• Imam Ali b. Husain b. Abi Taalib (a.s)
• Zadaan Abu Umar Kandi exp 82 AH
• Abu Usman Nahdi
• Saalim b. Abu Ja’ad Ashja’ee exp. 98 or 100 AH
• Abu Zubair Muhammad





হাদিস ৬ : "রসুল (দুরুদ) এর দাত মোবারক থেকে নুর নি:সৃত হত" এই হাদিসটি নাকি জাল ?ওহাবীদের দাঁতভাঙা জাবাব :-



দলীল নং-১

“হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রাদ্বিয়াল্লা­হু আনহু) বলেন, রাসুল (সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর সামনের দন্ত মোবারক প্রশস্ত ছিল।যখন তিনি কথা বলতেন তখন তাঁর দন্ত সমূহ থেকে নূর(আলো) বের হত।

Reference :

★ ইমাম বায়হাকীঃ দালায়েলুন নবুয়তঃ১/২১৫পৃঃ
★ ইমাম তিরমিযিঃ শামায়েলে তিরমিযিঃ১২পৃঃ,হাদিস নং-১৪
★ ইমাম বাগভীঃ শরহে সুন্নাহঃ১৩/­২২৩পৃঃ,হাদিসঃ৩৬৪৪
★ খতিব তিবরিযিঃ মিশকাতুল মাসাবিহঃ৪/­৫১৮পৃঃ,হাদিসঃ৫৭৯৭
★ ইমাম দারেমীঃ আস সুনানঃ১/­২০৩পৃঃ,হাদিসঃ৫৯
★ ইমাম সৈয়ুতিঃ খাসায়েসুল কোবরাঃ১/­১১১পৃঃ,হাদিসঃ২৮৪
★ ইমাম আবদুর রাজ্জাকঃ আল মুসান্নাফঃ১১/২৬০পৃঃ
★ ইমাম নাবহানীঃ হুজ্জাতুল্লাহি আলাল আলামিনঃ৬৬৩পৃঃ
★ ইবনে আসাকিরঃ তারিখে দামেস্কঃ২/৫৭পৃঃ
★ ইবনে হাজর হায়তামীঃ মাযমাউদ যাওয়াইদঃ৮/২৭৯পৃঃ
★ ইমাম তাবরানিঃ মু’জামুল আওসাতঃহাদিস নং-৩৫৬৩
★ ইবনে কাসিরঃ আল বেদায়া ওয়ান নেহায়াঃ৬/২৫পৃঃ
★ ইমাম তাবরানিঃ মু’জামুল কবীরঃ১১/৪১৬পৃঃ হাদিসঃ১২১৮১
★ উমর ইবনে শাবাহ(ওফাত ২৬২হিঃ) :তারিখে মদীনাঃ২/৬১০পৃঃ
★ যিয়া মোকাদ্দাসীঃ আহাদিসুল মুখতারঃ১৩/৪৮পৃঃ হাদিসঃ৭০-৭১

সনদ পর্যালোচনাঃ

এ হাদিসটি এ সাহাবী হতে দুইটি সূত্রে বর্ণিত আছে।তাবরানির সংকলিত সনদের একজন রাবীর ব্যাপারে হাইতামী তাঁর মাযমাউদ যাওয়াইদ গ্রন্থে বলেনঃ

“হাদিসটি তাবরানী বর্ণনা করেছেন, আর সনদে ‘ আবদুল আজিজ বিন আবি সাবিত’ রাবী রয়েছেন আর তিনি দুর্বল।”
★ইবনে হাজর হাইতামীঃমাযমাউয যাওয়াইদঃ৮/­২৭৯পৃঃ,হাদিসঃ১৪০৩১
★ইমাম বায়হাকীঃদালায়েলুন নবুয়তঃ২/১৪৮পৃঃ
কিন্তু সুনানে দারেমী,শামায়েলে তিরমিযি, উমর ইবনে শাবাহ তার তারিখে মদীনায়, যিয়া মোকাদ্দাসীর গ্রন্থে এ রাবী নেই।তাই সনদটি প্রথম সূত্রে দ্বঈফ হলেও দ্বিতীয় অন্য সূত্রে সহীহ।

দলীল নং-২

“হযরত আবু কিরসাপা (রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু) বর্ণনা করেন,আমি ও আমার মা এবং আমার খালা রাসুল (সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর নিকট বায়াত গ্রহন করলাম।অতঃপর আমরা যখন ফিরে আসলাম তখন আমার মা ও খালা আমাকে বললেন হে প্রিয় ছেলে! আমরা রাসুল (সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর মত সুশ্রী,সুভাষী ও নম্রভাষী কাউকে দেখিনি।যখন তিনি কথা বলতেন তখন আমরা তাঁর পবিত্র মুখ মোবারক থেকে নূর বের হতে দেখতাম।

Reference :

★ইমাম সৈয়ুতিঃখাসায়েসুল কোবরাঃ১/­১১১পৃঃ,হাদিসঃ২৮৫
★ইবনে হাজর হাইতামীঃমাযমাউয যাওয়াইদঃ৮/­২৭৯পৃঃ,হাদিসঃ১৪০৩২
★ইমাম নাবহানীঃহুজ্জাতুল্লা­হি আলাল আলামিনঃ৬৬৩পৃঃ
★ইমাম তাবরানীঃমু’জামুল কবীরঃ৩/­১৮পৃঃ,হাদিসঃ২৫১৮

দলীল নং-৩

হযরত আবু হুরায়রা(রাদ্বিয়াল্­লাহু আনহু) হতে বর্ণিত, ” নবী করীম (সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) যখন হাসতেন,তখন পবিত্র দাঁত সমুহ থেকে নূর বের হত, যা দ্বারা দেয়াল আলোকিত হয়ে যেত।

Reference :

★ইমাম সৈয়ুতিঃখাসায়েসুল কোবরাঃ১/­১৩৬পৃঃ,হাদিসঃ৪০০
★ইমাম বায়হাকীঃদালায়েলুন নবুয়তঃ২/১৪৮পৃঃ
★ইবনে হাজর হাইতামীঃমাযমাউয যাওয়াইদঃ৮/২৭৯পৃঃ
★মোল্লা আলী ক্বারীঃজামিউল ওয়াসায়েলঃ২/১৫পৃঃ
★ ইমাম হালবীঃ সিরাতে হালবিয়্যাহঃ৩/৪৬৮পৃঃ

দলীল নং-৪

হযরত আবু হুরায়রা(রাদ্বিয়াল্­লাহু আনহু) হতে বর্ণিত তিনি বলেন রাসুলে আকরাম (সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর দাঁড়ি মোবারক কাল এবং সামনের দাঁত মোবারক অত্যন্ত আলোকময় ও সুন্দর ছিল।

Reference :

★দালায়েলুন নবুয়তঃ১/১২৭পৃঃ
★খাসায়েসুল কোবরাঃ১/১৩৪পৃঃ হাদিসঃ৩৮৭
★বুখারীঃআদাবুল মুফরাদাতঃ১/­৩৯৫পৃঃ,হাদিসঃ১১৫
★সিরাতে হালবিয়্যাহঃ৩/৪৬৮পৃঃ

দলীল নং-৫

হযরত হাসান(রাদ্বিয়াল্লাহ­ু আনহু) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন
“রাসুল (সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) যখন রাগান্বিত হতেন মুখ মোবারক ফিরিয়ে নিতেন এবং মন সংকুচিত হয়ে যেত বলে মনে হত।আনন্দিত হলে দৃষ্টি ঝুঁকিয়ে নিতেন, তাঁর বরকতময় হাসি ছিল মুচকি হাঁসি।হাঁসির সময় দাঁত থেকে শিলার মত নূর বের হত বা ঝলমল করত।”

Reference :

★খাসায়েসুল কোবরাঃ১/­১৩৯পৃঃহাদিসঃ৪১৪
★মাযমাউদ যাওয়াইদঃ৮/২৭৮পৃঃ
★শামায়েলে তিরমিযিঃ১/­১৩৫পৃঃ,হাদিসঃ২১৬
★দালায়েলুন নবুয়তঃ১/২৮৮পৃঃ
★শুয়াবুল ঈমানঃ৩/­২৪পৃঃ,হাদিসঃ১৩৬২
★বাগভী,শরহুস সুন্নাহঃ১৩/২৭২পৃঃ
★আর রাহিকুল মাখতুমঃ১/৪৪৬পৃঃ

মুল : প্রমানিত হাদিসকে জাল বানানোর স্বরুপ উন্মোচন (১ম খন্ড)

★ শয়তানের অনুসারীদের পক্ষে :
“হাদিসের নামে জালিয়াতি” বইয়ের ২৮০ পৃষ্ঠায় **** আবদুল্লাহ জাহাঙ্গীর “রাসুল (সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর দাঁত মোবারক থেকে নুর প্রকাশ পেত” এই বিষয়টি অস্বীকার করে বলেছেন,এগুলো নাকি মিথ্যা কাহিনী শুধুমাত্র “মা’দারিজুন নবুয়ত” গ্রন্থ ছাড়া আর কোন গ্রন্থে পাওয়া যায় না।





“হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রাদ্বিয়াল্লা­হু আনহু) বলেন, রাসুল (সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর সামনের দন্ত মোবারক প্রশস্ত ছিল।যখন তিনি কথা বলতেন তখন তাঁর দন্ত সমূহ থেকে নূর(আলো) বের হত।

Reference :

★ ইমাম বায়হাকীঃ দালায়েলুন নবুয়তঃ১/২১৫পৃঃ
★ ইমাম তিরমিযিঃ শামায়েলে তিরমিযিঃ১২পৃঃ,হাদিস নং-১৪



  • হাদিস ৭ :

হযরত আনাস (রা:) থেকে বর্ণিত যে দিন রাসুলুল্লাহ (সা:)
মদিনাতুল মুনাউউারাহ পৌছালেন মদিনাতুল মুনাওয়ারার সব কিছু ওনার নূর এ আলোকিত হয়ে গিয়েছিল..”

Reference :

★ তিরমিযী শারীফ;
★ ইবনে মাজাহ


  • হাদিস ৮ : 


তাবেয়ী কাব আল আহবার (রা)

আমর বিন শাহ আনসারী আল মাদানী (রহ)

হযরত সাইব বিন আমর আনসারী (রহ)

ইমাম আবু সা'দ আন নিশাপুরী (রহ) →


عن كعب الخبار رضى الله عنه قال : لما الله ان يخلق المخلوقات بسط الارض وقع السماء وقبض قبضة من نوره و قال لها كونى محمدا فصارت عمودا من نوره فعلا حتى انتهى الى حجب العظمة فسجد و قال فى سجوده الحمد لله فقال الله سبحانه و تعالى لهذا خلقتك و سميتك محمد صلى الله عليه و سلم منك ابدا الخلق و بك اختم الرسل-

অর্থ : হযরত কাব আহবার (রাঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আল্লাহ পাক রাব্বুল আলামিন যখন সৃষ্টি জগত সৃজন করার ইচ্ছা করলেন তখন মাটিকে সস্প্রসারিত করলেন, আকাশকে
উঁচু করলেন এবং আপন নুর হতে (কুদরতীভাবে) এক মুষ্ঠি নুর গ্রহন করলেন। তারপর উক্ত নূরকে নির্দেশ দিলেন’ তুমি মুহাম্মদ হয়ে যাও।’ অতএব সে নূও স্তম্ভের ন্যায় উপরের দিকে উঠতে থাকল এবং মহত্বের পর্দা পর্যন্ত পৈাছে সিজদায় পরে বলল,’আলহামদুলিল্লাহ’ তখন আল্লাহ্‌ পাকের পক্ষ থেকে ইরশাদ হল,এজন্যই তোমাকে সৃষ্টি করেছি আর তোমার নাম মুহাম্মদ রেখেছি। তোমার হতেই সৃষ্টি কাজ শুরু করব এবং তোমাতেই রিসালাতের ধারা সমাপ্ত করব।

Reference :-

★ ইমাম নিশাপুরী : শরাফুল মোস্তফা ৪০৬ পৃ
★ সিরাতুল হালাভিয়া ১ম খন্ড, পৃষ্ঠা ৫০
★ ইবনুল যাওজী : মুয়াল্লাকানাল ওফা
★ ইমাম কুস্তালানী : আল মাওয়াহিব
★ ইমাম ইবনে সাবা : শিফাউস সুদুর
★ ইমাম ইবনে আবি জুমরা : বাহযাতুল নুফুওস
★ ইমাম মুহাম্মদ বিন ইউসুফ : সুবলুল হুদা


নোট : রাসুল (সা) এর নুর আল্লাহ পাকের নুর থেকে সৃষ্টি বলা যাবে কিন্তু
আল্লাহ পাকের নুরের অংশ বলা যাবে না। আল্লাহ পাকের নুরকে খন্ডাংশ করে নুরে মোহাম্মাদী (সা) এর সৃষ্টি হয়েছে মনে করা মানে শিরিক, কুফর। (আলা হযরত আহমদ রেজা খান বেরলবী রহ.)


এই নুরের ওপমা হল যেমন :-
আসমানের সুর্যের আলো। এই আলো যমিনে পতিত হলে যমিনের আলো ও সুর্যের আলো কিন্তু সুর্য না আবার এই আলো সুর্য থেকে খন্ড করা অংশ না (বরং এটা সুর্যের আলো) তদ্রোপ একটা মুমবাতি বা প্রদিপ থেকে হাজার বাতি বা নুর জালালে ও একটা আরেকটার অংশ না। ঠিক সেই রকমভাবে রাসুল(সাঃ) আল্লাহর নুরের তৈরি হয়েও নূর-এ- মুহাম্মাদি(সা) নূর এ খোদা’র অংশ না বা আল্লাহর নুরকে খান্ডাংশ করে নবিজি(সাঃ) এর সৃষ্টি করেছেন এই ভাবে ও বলা বা ধারনা করা শিরিক কারন আল্লাহর কোন অংশ নাই..শরিক নাই।এ কথা বললেই শিরিক,কুফরি,বাতিল ।আর এটা খুবই সুক্ষ ব্যাপার।

Reference:-
চতুর্দশ শতাব্দির শ্রেষ্ঠ মুজাদ্দিদ ইমাম এ আহলে সুন্নত ‘আ’লা হযরত আহমদ রেযা খান বেরলভী (রহ)




  • হাদিস ৯ :



عن عائشة رضي الله عنها قالت : كنت في الشجر ثوبا لرسول الله صلي عليه و سلم فانطفا المصباح و سقطت الابرة من يدي فدخل علي رسول الله صلي الله عليه و سلم فاضاء من نور وجهه فجدت الابرة-

অর্থ : “হযরত আয়েশা (রা) হতে বর্ণিত- তিনি বলেন, আমি রাত্রে বাতির আলোতে বসে নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর কাপড় মোবারক সেলাই করেছিলাম। এমন সময় প্রদীপটি (কোন কারণে) নিভে গেল এবং আমি সুচটি হারিয়ে ফেললাম। এরপরই নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম অন্ধকার ঘরে প্রবেশ করলেন। তাঁর চেহারা মোবারকের নূরের জ্যোতিতে আমার অন্ধকার ঘর আলোময় হয়ে গেল এবং আমি (ঐ আলোতেই) আমার হারানো সুচটি খুজে পেলাম”।

Reference :-
(ইমাম ইবনে হায়তামী (রাঃ) এর আন-নে’মাতুল কোবরা আলার আলম গ্রন্থে ৪১ পৃষ্ঠা)।



  • হাদিস ১০ :



لَمَّا كَانَ الْيَوْمُ الَّذِي دَخَلَ فِيهِ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ الْمَدِينَةَ أَضَاءَ مِنْهَا كُلُّ شَيْءٍ فَلَمَّا كَانَ الْيَوْمُ الَّذِي مَاتَ فِيهِ أَظْلَمَ مِنْهَا كُلُّ شَيْءٍ وَلَمَّا نَفَضْنَا عَنْ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ الْأَيْدِي وَإِنَّا لَفِيدَفْنِهِ حَتَّى أَنْكَرْنَا قُلُوبَنَا

Sayyidina Anas ibn Maalik (RA) narrated: The day when Allah’s Messenger entered Madinah, everything in it was illuminated. Then, the day when he died everything in it became dark. And we had barely dusted off our hands after burying him when our hearts changed.

References::::

►Trimidhi Hadith No: 3638
►Musnad Ahmad Hadith No: 13311
►Ibne Majah Hadith No: 1613
►Muwahibul ladaniyah pg 68 vol 1
►Mustadrik pg 12 vol 3



  • হাদিস ১১ :


مجتمعات فقالت امرأة منهن يا نساء قريش أيتكن تتزوج هذا الفتى فتصطاد النور الذي بين عينيه وإن بين عينيه نوراً قال فتزوجته آمنة بنت وهب بن عبد مناف بن زهرةفجامعها فحملت برسول الله

al-Zuhri narrated: `Abd Allah ibn `Abd al-Muttalib wasthe most handsome man that had ever been seen among the Quraysh. One day he went out and was seen by a an assembly of the women of Quraysh. One of them said: “O women of the Quraysh, which among you will marry this youth and catch thereby
→  the light that is between his eyes?” For verily there was a light between his eyes. Thereafter Amina bint Wahb ibn `Abd Manaf ibn Zuhra married him, and after he joined her she carried Allah’s Messenger.

References
►al-Bayhaqi narrated it in Dala’il al-nubuwwa (1:87)
► Tabari in his Tarikh (2:243)
►Ibn al-Jawzi in al-Wafa’ (p. 82-83, ch. 16 of Abwab bidayati nabiyyina)


  • হাদিস ১২ :


Translation : Abu Hurraira (ra) narrates from the Messenger of Allah (May Peace be upon him) that he said: When Allah created Adam (Peace be upon him) He informed him of his descendants, at this Adam (Peace be upon him) saw superiority of some over others, then he saw me towards the end in form of
→  an “ILLUMINATING NUR” (i.e. first to be created from Nur but sent in last), he (Adam) said: O my Lord who is this? The Lord replied: This is your son Ahmed who is the first and the last and (on the Day of Judgment) he will be first to do intercession. [Imam Bayhaqi in his Dalail an Nabuwwah: Volume 005, Page No. 483]



  • হাদিস ১৩ :



Hadrat Sayyida Halima Sa’adiya (radi Allahu anha) who was the one responsible for feeding milk to the Holy Prophet (صلى الله عليه وآله وسلم) The one before whom the Holy Prophet (صلى الله عليه وآله وسلم) used to eat and drink, even she believed that the Holy Prophet (صلى الله عليه وآله وسلم) was Noor and this has been explained by
★ Allama Muhadith Ibn Jauzi and
★ Qazi Thanaullah Paani Pati (rahmatuallah aleh) writes :

→ “When I used to feed milk to the Holy Prophet (صلى الله عليه وآله وسلم) then I never felt the need for a light in my house. Thus one day Umme Khula Sa’diya said
→ ,”O Halima ! Do you leave the fire burning for the entire night in your house? and I answered by saying, “No! I swear by Almighty Allah that I do not keep the fire burning at all. → This Noor and brightness is that of Sayidduna Rasoolullah Prophet (صلى الله عليه وآله وسلم)

Reference
►Bayaanul Miladun Nabwi pg 54 – Tafseere Mazhari



  • হাদিস ১৪ :



ইবন তায়্যিমিয়ার ছাত্র ইবনুল কায়্যিউমও নবী কারীম (সাঃ) এর নূরের কথা লিখেছেনঃ
we read that al-‘Abbas, may Allah be pleased with him, said to him: O Messenger of Allah (may Allah bless him and grant him peace) I wish to praise you. The Messenger of Allah (may Allah bless him and grant him peace) replied: “Go ahead – may Allah adorn your mouth with silver!” He said a poem that ended with these lines: “And then, when you were born, a light rose over the earth until it illuminated the horizon with its radiance. We are in that illumination and that original light and those paths of guidance – and thanks to them pierce through.”
[Ibn al-Qayyim in Zad al-ma ‘ad]


  • হাদিস ১৫ :

ইবন তায়্যিমিয়ার ছাত্র ইবনুল কায়্যিউমও নবী কারীম (সাঃ) এর নূরের কথা লিখেছেনঃ
we read that al-‘Abbas, may Allah be pleased with him, said to him: O Messenger of Allah (may Allah bless him and grant him peace) I wish to praise you. The Messenger of Allah (may Allah bless him and grant him peace) replied: “Go ahead – may Allah adorn your mouth with silver!” He said a poem that ended with these lines: “And then, when you were born, a light rose over the earth until it illuminated the horizon with its radiance. We are in that illumination and that original light and those paths of guidance – and thanks to them pierce through.”
[Ibn al-Qayyim in Zad al-ma ‘ad]



  • হাদিস ১৬ :




নুর সম্পর্কিত আরেকটি হাদিস :

Hadith no 1 : প্রথম সুত্র

® ইমাম আবু নুইম ইস্পাহানী (রহ) [৩৩৬-৪৩০ হি:] সংকলন করেছেন,

হযরত আবু হুরায়রা (রা) সুত্রে বর্নিত,
রাসুলুল্লাহ (সা) বলেন নিশ্চয় আল্লাহ তা'আলা আমাকে তার নুর থেকে সৃষ্টি করেছেন, আবু বকর (রা) কে আমার নুর থেকে সৃষ্টি করেছেন, উমর (রা) কে আবু বকরের নুর থেকে সৃষ্টি করেছেন এবং আমার সমস্ত উম্মতকে উমরের নুর থেকে সৃষ্টি করেছেন। আর উমর হল জান্নাতবাসীদের প্রদীপস্বরুপ।

Reference :
★ ইমাম আবু নুইম ইস্পাহানী : তার "আমলিয়্যাহ" কিতাবে

সুত্র সম্পর্কে commandation:

★ ইমাম যাহাবী : মিযানুল ই'তিদাল : ১/১৯০ পৃ: রাবী নং ৮০৯ এ তিনি উক্ত হাদিসের একজন রাবী ""আহমদ ইবনে ইউসুফ আল-মানযীবী""সম্পর্কে বলেছেন, তার ব্যাপারে আমি পরিচিত নই"।

★ ইবনে হাজর আসকালানী : লিসানুল মিযান ১/৩৬২পৃ: তিনিও ইমাম যাহাবীর কথামত বলেন, তার ব্যাপারে আমি পরিচিত নই।

Note: ১ জন রাবী অপরিচিত তাই হাদিস দুর্বল বা দ্বয়ীফ কিন্তু কেউ জাল বলেন নি।

Hadith no 2: দ্বিতীয় সুত্র :

® ইমাম ছালাভী (রহ) [ওফাত ৪২৭] তার "তফসীরে ছালাভীতে " হাদিসটির সনদসহ বর্ননা করেছেন:

আমাকে অর্থাৎ ইমাম ছালাভী (রহ) কে সংবাদ দিয়েছেন
|
আবু উসমান (রহ)
|
তিনি তাবেয়ী হযরত সাবিত (রহ) হতে,
|
তিনি হযরত আনাস (রা) হতে বলেন,
|
আর তিনি রাসুলুল্লাহ (সা) হতে যে,

রাসুলুল্লাহ (সা) বলেছেন,
নিশ্চয় আল্লাহ তা'আলা আমাকে তার নুর থেকে সৃষ্টি করেছেন, আবু বকর (রা) কে আমার নুর থেকে সৃষ্টি করেছেন, উমর (রা) ও আয়েশা (রা) কে আবু বকরের নুর থেকে সৃষ্টি করেছেন। সমস্ত মুমিনদেরকে উমরের নুর থেকে আর সমস্ত মু'মিন নারীগনকে হযরত আয়েশা (রা) এর নুর থেকে সৃষ্টি করেছেন।

Reference :
★ ইমাম ছালাভী : তফসীরে ছালাভী : ৭/১১১ পৃ: সুরা নুর : আয়াত ৩৯
★ইমাম কুরতুবী : তফসীরে কুরতুবী : ১২/২৮৬ পৃ: সুরা নুর : ৩৯ নং আয়াত
★ ইমাম জালালুদ্দিন সুয়ুতী : আল-লাআতিল মাসনু : ১/১৫০ পৃ: ও ১/৩২০ পৃ:
★ ইমাম দায়লামী : আল-মুসনাদিল ফেরদাউস : ১/১৭১ পৃ: হাদিস ৬৪০
★ ইবনুল ইরাক : তানযীহুশ-শরীয়্যাহ : ১/৩৫১ পৃ:

Hadith no 3 : তৃতীয় সুত্র :

® ইমাম দায়লামী (রহ) [ওফাত ৫০৯ হি] তিনি অনুরুপ আরেক সনদ বর্ননা করেছেন।

Reference :
★ ইমাম দায়লামী : আল-মুসনাদিল ফেরদাউস : ১/১৭১ পৃ: হাদিস ৬৪০


Note: সার্বিক দিক বিবেচনায় উপরোক্ত হাদিসটির বিভিন্ন সনদ এসেছে কয়েকজন সাহাবী থেকে তাই বলা যায় যদি সনদের কারনে দুর্বলও হয় তবুও ইহাকে জাল বলা মুর্খতা হবে।

হাদিস ১৭ :

এছাড়া সাহাবীয়ে রসূল হযরত কা’ব ইবনে যুহাইর রাদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু এর কসীদা অত্যন্ত প্রণিধানযোগ্য যেখানে তিনি আল্লাহ্‌র নবী আলাইহিস সালাতু ওয়াস সালাম কে নূর বলে সম্বোধন করেন এবং এ কসীদা তিনি মসজিদে নববী তে স্বয়ং রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লাম এর সামনে তেলাওয়াত করেন। কসীদা তেলাওয়াত করতে করতে যখন তিনি এ পঙ্কতিতে উপনীত হন, 

“ইন্নার রসূলা লানূরুন ইউস্তাদা’উ বিহি, ওয়া সারেমাম’ মিন সুয়ুফিল্লাহি মাসলুউলুন”। তখন আল্লাহ্‌র রসূল এ পঙ্কতিটি শুনে (যেখানে বলা হচ্ছে “নিশ্চয়ই রসূল হচ্ছেন নূর”) 

অত্যন্ত খুশি হন এবং সাহাবায়ে কেরাম কে ইশারা করেন এ পঙক্তিটি ভালো করে শ্রবণ ও স্মরণ করে রাখতে। সোবহানাল্লাহ! এমনকি আল্লাহ্‌র রসূল এতে খুশি হয়ে হযরত কাব রাদিয়াল্লাহু আনহু কে আপন চাঁদর মোবারক উপহার দেন। যে চাঁদর মোবারক হাত বদল হতে হতে শেষ পর্যন্ত এখন রক্ষিত আছে ইস্তাম্বুলের টোপকাপি মিউসিয়ামে।
ইমাম হাফেজ আবু আবদুল্লাহ হাকেম আননেসাবুরি (ওফাতঃ ৪০৫ হিঃ), সহিহ আল-মুস্তাদরাকঃ হাদিস নং- ৬৫৩৬, ৬৫৩৭, ৬৫৩৮। বাবঃ ২৬৬৯ 




বিঃ দ্রঃ ইমাম হাকেম তাঁর বিখ্যাত হাদিসের কিতাব আল-মুস্তাদরাক এ ওই সমস্ত হাদিসসমূহ এনেছেন, যে গুলো ইমাম বোখারী ও মুসলিম এর মোতাবেক সহীহ।


প্রমান :


বুখারী শরীফের শ্রেষ্ঠ ব্যাখ্যাকার ইবনে হাজর আসকালানী (রহ) ২৫ টি হাদিস থেকে
এই নিচের হাদিস গুলো সংক্ষেপে বর্ননা করেছেন :-

Ibn Hajar states that ,""""Abu Bakr ibn al-`Arabi numbered the items for which the Prophet supplicated for light in himself at 25 in the totality of the sound narrations of that hadith. Among them are:


Light in the Prophet's heart

Light in the Prophet's tongue

Light in the Prophet's hearing

Light in the Prophet's eyesight

Light in the Prophet's six directions:right, left, front, back, above, and below

Light in the Prophet's soul

Light in the Prophet's chest

Light in the Prophet's sinew

Light in the Prophet's flesh

Light in the Prophet's blood

Light in the Prophet's hair

Light in the Prophet's skin

Light in the Prophet's bones

Light in the Prophet's shrine

"Enhance light for me."

"Give me abundant light."

"Give me light upon light."

"Make me light."




রাসুলুল্লাহ (সা.) এর নুর সম্পর্কে অগনিত রেফারেন্স সহ ৩০+ বিশাল আলোচনার লিংক সমুহ :-


http://sunni-encyclopedia.blogspot.com/2015/09/blog-post_37.html?m=1