ক্ববরের উপর বসা এবং সেদিকে নামায পড়া প্রসঙ্গঃ (ব্যাখ্যাসহ) | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস

#
❏ দরসে হাদীসঃ [হাদীস নং- (১৬০৫)]
○ অধ্যায়ঃ [ মৃত ব্যক্তিকে দাফন করা ]

[ وعن ابى مرثدن الغنوى قال قال رسول الله ﷺ لا تجلسوا على القبور ولاتصلوا اليها .] - (رواه مسلم)

হযরত মারসাদ গানাভী [رضي الله عنه] থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, "রাসূলাল্লাহ [ﷺ] এরশাদ করেছেন-- "ক্ববরগুলোর উপর বসো না এবং সেগুলোর দিকে নামাযও পড়ো না।" (টীকাঃ ১)
[ মুসলিম ]

□ উক্ত হাদীস শরীফের ব্যাখায় বলা হয়েছেঃ #MustShAre

◇ টীকাঃ ১.
এভাবে যে, কবর নামাযীর সামনে কোন অন্তরাল ছাড়া থাকে- এটা হারাম। আর যদি কবর ডানে, বামে কিংবা পেছনে থাকে, অথবা সামনেই থাকে, কিন্তু নামাযী ও সেটার মধ্যভাগে দেওয়াল ইত্যাদির অন্তরাল থাকে, তবে মাকরুহ হওয়া ছাড়াই 'নামায জায়েয'। বুযুর্গদের মাযারের পাশে বরকতের জন্য মসজিদ নির্মাণ করা আর ওই মসজিদগুলোতে বরকতের জন্য নামায পড়া নবীগণের সুন্নাত ও সাহাবীগণের সুন্নাত। সুতরাং মহান রব আসহাব-ই কাহ্ফের প্রসঙ্গে এরশাদ করেছেনঃ
             [ لَنَتَّخِذَنَّ عَلَيْهِم مَّسْجِدًا ]
অর্থাৎ (মুসলমানগণ পরামর্শ করলো এবং সিদ্ধান্ত নিলো--) আমরা তাঁদের গূহার পাশে মসজিদ নির্মাণ বানাবো। [১৮:২১]

হুযূর [ﷺ] -এর রওযা-ই আন্ওয়ারের চতুর্পাশে 'মসজিদে নবভী' শরীফ অবস্থিত। যেখানে সাজদাহ্ করার প্রতি মু'মিনের একান্ত আরজু থাকে। অনুরুপভাবে, প্রত্যেক বুযুর্গের মাযারের পাশে মসজিদ নির্মিত হয়েছে।

প্রচারেঃ facebook.com/SunniAqidah
□ হাদীস শরীফের ব্যাখ্যা সম্বলিত টীকা পেতে সার্চ করুনঃ
��f/Ishq-E-Mustafa ﷺ

[সূত্রঃ মিরআতুল মানাজীহ শরহে মিশকাতুল মাসাবীহ, কৃত- মুফতী আহমদ ইয়ার খান নঈমী আশরাফী বদায়ূনী, বঙ্গানুবাদঃ মাওলানা আব্দুল মান্নান, ২য় খন্ড, পৃ. ৬০২, হাদীস নং-১৬০৫ এর টীকাঃ ১০ দ্রব্যষ্ট, প্রকাশনায়ঃ ইমাম আহমদ রেযা রিসার্চ একাডেমী, চট্টগ্রাম। সবুজ ভবন, খাজা রোড, কুলগাঁও, ডাকঘর-জালালাবাদ-৪২১৪, বায়েজীদ, চট্টগ্রাম। ফোনঃ ০৩১-৬৮৪২২৪, মোবাইলঃ ০১১৯৯-২২৪৪০৩, ০১৮৬৮-০৩১৬২১]