জানাজার নামাজের পদ্ধতি | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস

জানাযার নামাযের পদ্ধতি (হানাফী)

মুক্তাদী  এভাবে  নিয়্যত  করবে:    আমি  আল্লাহ্র  ওয়াস্তে এই ইমামের পিছনে এই মৃত ব্যক্তির দোয়ার জন্য এই জানাযার    নামাযের     নিয়্যত        করছি।     (ফতোওয়ায়ে তাতারখানিয়্যাহ, ২য় খন্ড, ১৫৩ পৃষ্ঠা) এবার মুক্তাদী ও  ইমাম  উভয়ে  প্রথমে কান   পর্যন্ত   হাত    উঠাবেন এবং   اَللهُ اَكْبَرُ  বলে   দ্রুত  নিয়মানুযায়ী নাভীর  নিচে হাত বেঁধে নিবেন এবং সানা পড়বেন। সানা পড়ার সময় وَ تَعَالٰى جَدُّكَ এরপর وَجَلَّ ثَنَاءُكَ وَ لَآ اِلٰهَ غَيْرُكَ ط পড়বেন।    অতঃপর  হাত   উঠানো  ব্যতীত  اَللهُ  اَكْبَرُ বলবেন,  অতঃপর দুরূদে ইবরাহীম   পড়বেন, এরপর হাত না উঠিয়ে আবার اَللهُ  اَكْبَرُ বলবেন   এবং  দোয়া পাঠ     করবেন    (ইমাম    সাহেব     তাকবীর      সমূহ    উচ্চ আওয়াজে   বলবেন   আর   মুক্তাদীগণ   নিম্নস্বরে।   বাকী  দোয়া,      যিকির    আযকার   ইত্যাদি    ইমাম   ও   মুক্তাদী  সকলেই  নিম্নস্বরে   পাঠ   করবেন।)  দোয়া    পাঠ   শেষে  পুনরায় اَللهُ  اَكْبَرُ  বলবেন এবং  হাত   ছেড়ে  দিবেন, অতঃপর  উভয়   দিকে  সালাম  ফিরাবেন।সালামে    মৃত ব্যক্তি          ফেরেশতাগণ          এবং           নামাযে           উপস্থিত ব্যক্তিবর্গদের নিয়্যত করবেন।  ঐভাবে  যেমন অন্যান্য নামাযের   সালামে   নিয়্যত  করা   হয়,  এখানে  এতটুকু   কথা বেশি যে  মৃত ব্যক্তিরও নিয়্যত করবেন। (বাহারে শরীয়াত, ১ম খন্ড, ৮২৯, ৮৩৫ পৃষ্ঠা)

বালিগ (প্রাপ্ত বয়স্ক) পুরুষ ও মহিলার জানাযার দোয়া

اَللّٰهُمَّ   اغْفِرْ لِحَيِّنَا وَ مَيِّتِنَا وَ شَاهِدِنَا وَ غَآئِبِنَا وَ صَغِيْرِنَا وَ  كَبِيْرِنَا وَ ذَكَرِنَا   وَ  اُنْثٰنَا  ط اَللّٰهُمَّ  مَنْ  اَحْيَيْتَهٗ مِنَّا    فَاَ  حْيِهٖ عَلَى الْاِسْلَامِ وَ مَنْ تَوَفَّيْتَهٗ مِنَّا فَتَوَفَّهٗ عَلَى الْاِيْمَان

অনুবাদ: হে আল্লাহ! ক্ষমা করে দাও আমাদের প্রত্যেক জীবিতকে    ও   আমাদের   প্রত্যেক     মৃতকে,    আমাদের প্রত্যেক        উপস্থিতকে       ও        প্রত্যেক        অনুপস্থিতকে,  আমাদের     ছোটদেরকে     ও     আমাদের      বড়দেরকে,  আমাদের  পুরুষদেরকে  ও  আমাদের  নারীদেরকে।  হে  আল্লাহ!   তুমি   আমাদের    মধ্যে   যাকে   জীবিত   রাখবে  তাকে ইসলামের   উপর জীবিত রাখো।আর   আমাদের  মধ্যে  যাকে    মৃত্যু  দান   করবে,  তাকে   ঈমানের  উপর মৃত্যু দান  করো।  (আল  মুসতাদরাক  লিল হাকিম, ১ম খন্ড, ৬৮৪ পৃষ্ঠা, হাদীস-১৩৬৬)

নাবালিগ (অপ্রাপ্ত বয়স্ক) ছেলের দোয়া

اَللّٰهُمَّ اجْعَلْهُ لَنَا  فَرَطًا وَّ اجْعَلْهُ لَنَآ اَجْرًا وَّ ذُخْرًا وَّ اجْعَلْهُ لَنَا شَافِعًا وَّ مُشَفَّعًا ط

অনুবাদ: হে   আল্লাহ!  এই (ছেলে)  কে  আমাদের  জন্য  আগে     গিয়ে    সামগ্রী    সঞ্চয়কারী     করে    দাও!    তাকে আমাদের জন্য প্রতিদান (এর মাধ্যম) এবং সময় মতো কাজে    আসার    উপযোগী      করে      দাও।    আর     তাকে আমাদের     জন্য     সুপারিশকারী     বানিয়ে     দাও     এবং  তেমনই  করো,   যার সুপারিশ  গ্রহণযোগ্য  হয়ে থাকে।  (কানযুদ দাকায়িক, ৫২ পৃষ্ঠা)


নাবালিগ (অপ্রাপ্ত বয়স্ক) মেয়ের দোয়া

اَللّٰهُمَّ  اجْعَلْهَا لَنَا فَرَطًا   وَّ  اجْعَلْهَا  لَنَآ     اَجْرًا  وَّ   ذُخْرًا وَّ  اجْعَلْهَا لَنَا شَافِعَةً وَّ مُشَفَّعَةً ط

অনুবাদ:  হে  আল্লাহ!  এই  (মেয়ে)  কে  আমাদের  জন্য  আগে   গিয়ে   সামগ্রী   সঞ্চয়কারীনী   করে   দাও!   তাকে  আমাদের জন্য প্রতিদান (এর মাধ্যম) এবং সময় মতো উপকারে   আসার   উপযোগী   করো,   তাকে     আমাদের  জন্য কারো সুপারিশকারীনী এবং এমনই যার সুপারিশ গ্রহণযোগ্য হয়ে থাকে।

জুতার উপর দাঁড়িয়ে জানাযার নামায আদায় করা

জুতা  পরিহিত   অবস্থায়  যদি   জানাযার  নামায   আদায়  করা হয়,  তাহলে  জুতা এবং  মাটি দুটোই পবিত্র হওয়া আবশ্যক,    আর    জুতা  খুলে  যদি  এর  উপর  দাঁড়িয়ে  পড়ে,  তাহলে   জুতার   তলা   এবং  মাটি  পবিত্র   হওয়া আবশ্যক    নয়।   আমার  আক্বা,  আ’লা   হযরত,  ইমামে আহ্লে  সুন্নাত   মাওলানা  শাহ্  ইমাম   আহমদ   রযা  খাঁন رَحْمَۃُ اللّٰہِ تَعَالٰی عَلَیْہِ ইত্যাদিতে নাপাকী ছিলো। অথবা ঐ জুতার তলায়  নাপাকী  ছিলো এবং ঐ  অবস্থায় জুতা পরিধান  করে   নামায  আদায়   করে,  তার   নামায  হবে না।    সাবধানতা যে,   জুতা খুলে এটার  উপর পা রেখে  নামায  পড়বে।  তবে  মাটি  ও  তলা  যদি  নাপাক  হয়,  তাহলে    নামাযে    বিঘ্নতা    আসবে    না।    (ফতোওয়ায়ে  রযবীয়া (সংশোধিত) , ৯ম খন্ড, ১৮৮ পৃষ্ঠা)