কাঁকড়া ও অক্টোপাস (সী-ফুড) খাওয়া সম্পর্কিত প্রশ্নের জবাব | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস



আমার এক শ্রদ্ধেয় ভাইয়ের কাঁকড়া ও অক্টোপাস (সী-ফুড) খাওয়া সম্পর্কিত প্রশ্নের জবাবঃ


হানাফী মাযহাবের বুনিয়াদী উসুলঃ

☛মাছ ব্যতীত অন্য কোন জলজ প্রানী খাওয়া জায়েয নয়। 


উদাহরণস্বরূপ- কাঁকড়া, কচ্ছপ, ব্যাঙ, অক্টোপাস ইত্যাদি।

১) আবু বকর আলাউদ্দিন সামারকান্দীর (৫৪০হি) 'তুহফাতুল ফুকাহা' কিতাবে আছে-

أما الَّذِي لَا يعِيش إِلَّا فِي المَاء فكله محرم الْأكل إِلَّا السّمك

যা কিছু পানিতে বাস করে তার মধ্যে মাছ ব্যাতীত অন্য সকল কিছু খাওয়া হারাম। 

[তুহফাতুল ফুকাহা, ৩/৬৩]


২) হানাফী মাযহাবের আরেক নির্ভরযোগ্য প্রামাণ্য কিতাব 'বাদায়েউস সানায়ে' যার লেখক ইমাম কাসানী (৫৮৭হি)। তিনিও একইভাবে লিখেন-

فَجَمِيعُ مَا فِي الْبَحْرِ مِنْ الْحَيَوَانِ مُحَرَّمُ الْأَكْلِ إلَّا السَّمَكَ

ঐ সকল প্রানী যা সমুদ্রে বাস করে সকলই হারাম; শুধু মাছ ব্যতীত।

[বাদায়েউস সানায়ে, ৫/৩৫] 


৩) হানাফী মাযহাবের আরেকটি প্রামাণ্যগ্রন্থ যা মাদ্রাসাসমূহে পাঠ্য তা হলো 'আল হিদায়া'। লিখেছেন বুরহানুদ্দীন মারগিনানী (৫৯৩হি)। এই কিতাবের শিকার অধ্যায়ে তিনি লিখেন-

ولا يؤكل من حيوان الماء إلا السمك

মাছ ব্যতীত অন্য যেকোন জলজ প্রানী খাওয়া জায়েয নয়।

[আল হিদায়া, ৪/৩৫৩]


৪-৭) ঠিক একই কথা বলা হয়েছে আল ইখতিয়ার ফি তা’লিলিল মুখতার, তিবইয়ানুল হাকাইক, জাওয়াহিরাতুন নাইয়ারাহ, মুখতাসারুল কুদুরী কিতাবে। 


৮) হানাফী মাযহাবের আরেক গ্রহণযোগ্য কিতাব- তিবইয়ানুল হাকাইক শরহে কানযুদ দাকাইক, লেখক- ইমাম যায়লায়ী হানাফী (৭৪৩হি)। এই কিতাবে উল্লেখ করেন-

لَا يَجُوزُ بَيْعُ شَيْءٍ فِي الْبَحْرِ مِنْ الضَّفَادِعِ وَالسَّرَطَانِ وَالسَّلَاحِفِ وَغَيْرِ ذَلِكَ إلَّا السَّمَكَ

সমুদ্রের মধ্যে মাছ ব্যাতীত ব্যাঙ, কাঁকড়া, কচ্ছপ ইত্যাদি বিক্রি করা বৈধ নয়।

[তিবইয়ানুল হাকাইক শরহে কানযুদ দাকাইক, ৪/৪৯]


৯) হানাফী মাযহাবের প্রসিদ্ধ গ্রন্থ দুররে মুখতার-এ আছে-

وَلَا يَحِلُّ حَيَوَانٌ مَائِيٌّ إلَّا السَّمَكُ

জলজ কোন প্রানীই হালাল নয় শুধু মাছ ব্যাতীত।

[রাদ্দুল মুহতার,৬/৩০৬]


১০) পরবর্তী যুগের হানাফী কিতাবসমূহের মধ্যে আল-লুবাব ফি শরহিল কিতাব অন্যতম। ঐ কিতাবে আছে-

(ولا يؤكل من حيوان الماء إلا السمك) لقوله تعالى {ويحرم عليهم الخبائث} وما سوى السمك خبيث

মাছ ব্যাতীত অন্য কোন জলজ প্রানী খাওয়া জায়েয নয়। কেননা আল্লাহ তায়ালা কুরআনে কারীমে বলেন- {তাদের ওপর আল্লাহ হারাম করেছেন অপবিত্রকে}। আর মাছ ব্যতীত সবই খবীছ বা অপবিত্র। 

[আল-লুবাব ফি শরহিল কিতাব, ৩/২৩১]


১১) হানাফী মাযহাবের মূল উৎস গ্রন্থগুলোর একটি হল মাবসূত লিল সারাখসী (৪৩৮হি)। এই কিতাবের ভাষ্য-

وَالْحَيَوَانَاتُ نَوْعَانِ: نَوْعٌ مِنْهَا مَا لَا دَمَ لَهُ، فَلَا يَحِلُّ تَنَاوُلُ شَيْءٍ مِنْهَا إلَّا السَّمَكَ، وَالْجَرَادَ

প্রানী ২ প্রকারের। প্রথম- যার মধ্যে রক্ত নেই। সেগুলোর (রক্তহীণদের) মধ্যে মাছ ও টিড্ডি ব্যতীত অন্য কিছু খাওয়া জায়েয নেই।

[মাসবসুত লি সারাখসী, ১১/২২০]


☛কিছু গুরুত্বপূর্ণ উসূলঃ 

****************

ক) যারা উভচর প্রাণী তাদের খাওয়া জায়েয নয়। যেমন ব্যাঙ, কাঁকড়া।

খ) যারা জলজ তাদের মধ্যে মাছ ছাড়া সবই হারাম। যেমনঃ অক্টোপাস।

গ) রক্তহীণ প্রানীদের মধ্যে শুধু মাছ ও টিড্ডি ছাড়া সব হারাম।


☛প্রসঙ্গ কাকড়াঃ

****************

ইমাম কামালুদ্দীন দামেরী তার জগতপ্রসিদ্ধ কিতাব হায়াতুল হায়ওয়ান কিতাবে লেখেন- 

يحرم أكله لاستخباثه كالصدف قال الرافعي: ولما فيه من الضرر

কাকড়া খাওয়া জায়েয নেই। কারণ এটা ঝিনুকের মতই নাপাক। রাফেয়ীর মতে- কাকড়া খাওয়া ঠিক নয় কারণ তা ক্ষতিকর। 

[হায়াতুল হায়ওয়ান, ২/২৭]

কাকড়াঃ উভচড় রক্তহীন মাছ ব্যাতীত অন্য কিছু।

সকল উসূলি দৃষ্টিকোণ থেকেই কাকড়া খাওয়া জায়েয নয়।


☛নোটঃ সমুদ্রের অন্যান্য প্রানীগুলো খাওয়া জায়েয সম্পর্কে ইমাম শাফেয়ী আর কিছু কিছু প্রানী খাওয়া সম্পর্কে ইমাম আহমদ ও ইমাম মালেকের মত রয়েছে। 

**এই লেখাটি শুধু তাদের জন্য যারা হানাফী মাযহাব ফলো করেন। অন্য মাযহাব বা আহলে হাদীসদের জন্য নয়।


মা’আস সালাম-

☛মুহাম্মাদ হাসিব হাসেমী (গুফিরা লাহু)