রাসূল (দ:)শানে দাড়িয়ে সালাম দেওয়া এবং দাড়িয় দুরুদ পড়া সূন্নতে সাহাবা | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস

আসসলামু আলাইকুম ওয়া রাহমতুল্লাহি ওবারাকাতুহ
শরু করছি পরম করুণাময় সেই প্রেমময় জাল্লে জালালু আহাদময় অসীমদয়ালু আল্লাহ সুবাহানু তাআলা তার পেয়ারে নূরময় হাবীবশাফেয়ীন মুজনেবিন রাহমাতালাল্লিল আলামিন আহমদ মোস্তফা মুহাম্মদ মোস্তফা (সা:) উনার উপর দুরুদ পেশ করে এবং আমার দাদাহুজুর আক্তার উদ্দিন শাহ আমারমূর্শীদ কেবলা দয়ালমোখলেছ সাই এর সরণে...
 (প্রসঙ্গ রাসূল(:)শানে দাড়িয়ে সালাম দেওয়া এবং দাড়িয় দুরুদ পড়া সূন্নতে সাহাবা)
বহু খুজাখুজি করে আজ এই হাদীসটি পেলামআমরা যখন মিলাদে রাসূল (:)কে দাড়িয়ে সালাম বা দুরুদ পড়ি তখন কিছু বেকুবরা বেদাতবেদাত বলে ছিল্লাতে থাকে আর নাযায়েয কাজ বলে ফতোয়া দেয় তাদের মূখেছুড়ে মারার জন্যএই হাদীসটিই যথেষ্ঠ.আমাদের উদ্দেশ্য আমাদের পূর্ববর্তীগন যা যা করে গিয়েছেন সেটাইপ্রকাশ করা এবং সে অনুযায়ী আমল করা. কিন্তু তারাধর্মকে বাপ দাদারকথা বলে উড়িয়েদেয় পাঠকগন চিন্তা করে দেখুন আমাদের বাপ দাদারা এবং পূর্ব পুরুষগণ যা করে গিয়েচেন তা অক্ষরে অক্ষরে ঠিক আর বর্তমানে আলেম সেজে যার বসে আছে তারা ভন্ড মিথ্যাবাদী কিন্তু আফসোস বর্তমান ইয়ং জেনারেশন সেই ভন্ডদের দলে যোগ দিয়েনিজেদের বাবা মাকেকরছে লান্চিত নিজেরাই ডুবছে জাহান্নামের দিকে.তাই এর প্রতিকার করার জন্যআসূণ আমরা সঠিকপথ অনুসরণ করি আমরা যাদের কাছ থেকে ইসলাম পেয়েছি যাদের কারণে আমরামুসলিম বলে নিজেকে দাবি করি তাদেরপথটাই অনুসরন করে আল্লাহ রাসূলকে ডাকি.তেমনি তাদেরই একটিআমল যা রাসূল(:)ওনার প্রানপ্রিয় সাহাবীদের আমল থেকে চালু হয়ে বর্তমান ওলী আওলিয়াদের এবং সাধারণ মানুষদের দুয়ারে এসে পৌছেচে সেই অতি মূল্যবান আমলটিকে আজ কিছুনামধারী আলেম নামেরজালেমরা বেদাত বলে ফতোয়া দিচ্ছে সেই আমলটি যে আমারপ্রাণপ্রিয় রাসূল (:)ওনার সাহাবগণ পালনকরেছেন তারই প্রমানটি পেশ করলাম বিশ্ববিখ্যাত হাদীস গ্রন্থ যা হিজরী ৪০ সালে রচিত হয়েছেইলাউস সূনান ৬ষ্ঠখন্ডে ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে প্রকাশিত হাদীসটি নিম্নরুপ....

# ইবনে উমর (রা:)সম্পর্কে বর্নিত যে,তিনি যখন সফর থেকে আসতেন তখন নবী করী (:)ওনার রওযা বা কবরের পাশে এসে উপস্থিত হতেন এবং দাড়িয়ে বলতেন,আস-সালামু আলাইক ইয়া রাসূলাল্লাহ,আস-সালামু আলাইক ইয়া আবু বক্কর(রা:),আস-সালামু আলাইক ইয়া উমর (রা:)এবং দাড়ানো অবস্থায় দুরুদপাঠ করতেন এবং সবশেষে দুআ করতেন.সুবাহনাল্লাহ
কতই না উত্তম সাহাবাদের আমল এই আমলটিবর্তমানে আমরা বেশীরভাগ মিলাদ মাহফিলে করে থাকি যাকেআমরা কিয়াম বলে থাকি অতছ এই আমলটিকে কিছু বেকুবলোকরা বেদাত বলে ফতোয়া দেয়.আমি অধম তাদের জন্যদুআ কামনা করি তারা যেন আমাররাসূল (:)ওনারশান মান  এবং সাহাবাদের আমল গুলিকে বুঝতে পারে..আল্লাহ আমিন.পরিশেষে পাঠকগণ আপনাদের বলতে চাই আপনারা সবাই এই পোষ্টটি যত্নে রাখবেন এবং বেশী বেশীকরে শেয়ার  করুন.আল্লাহ আমাদের হেফাজত করুন-আমিন..প্রচারে-মোখলেছিয়া সূন্নী খানকা শরীফ