৭০ হাজার বছর আগে তারকা ছিল এই হাদীসটির প্রযলোচনা | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস



সুরা তাওবার আয়াত নং১২৮ অল্লাহ্ বলেনতোমাদের নিকট এক মহান রাসূলের আগমন হয়েছেএই আয়াতের তাফসীর প্রসঙ্গে নবী করিম (সাঃ আঃ)কোথা হতে আসলেনসে সম্পর্কে

নির্ভরযোগ্য হাদিসে বর্নিত আছে :

®
হযরত আবু হোরায়রা (রাঃ) থেকে বর্নিত,

وعن ابلى هريرة رضى الله عنه ان رسول الله صلى الله عليه و سلم سائل جبريل عليه السلام فقال يا جبريل كم عمرك من السنين فقال يا رسول الله مست اعلم غير ان فى الحجاب الرابع نجما يطلع في سبعين الف سنة مرة رايته اثنين و سبعين الف مرة فقال يا جبريل و عزة ربى جل جلا له انا ذالك الكوب-

অর্থ :
·         কোনএক সময় হযরতরাসুল করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহিওয়াসাল্লাম হযরত জিব্রাঈল (আঃ) এর নিকট জিজ্ঞাসা করিলেন" হে জিব্রাইল! তোমারবয়স কত সর হইয়াছে?
·         "হযরত জিব্রাইল (আঃ) উত্তর করিলেন," হে আল্লাহর রাসূল! আমি আমার বয়সসম্পর্কে কিছুই বলিতেপারিনা। 
·         তবেআমি আপনাকে আমারবয়স সম্পর্কে এতটুকুতথ্য জানাইতে পারিযে, চতুর্থ আসমানেএকটি উজ্জ্বল তারকাছিল, উক্ত তারকাটি ৭০হাজার সরপর পর আসমানেএকবার উদয় হইত। আমি উহাকে৭২ হাজার বারউদয় হইতে দেখিয়াছি
·         তখননবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহিওয়াসাল্লাম বললেনহে জিব্রাঈল! আমারপ্রতিপালকের ইজ্জতের কসম।নিশ্চয় আমিই ছিলামসেই উজ্জ্বল নক্ষত্র বাতারকা "


ইমাম বুখারী (রহ) : আত তাশরীফাতে ফি খাসায়েস ওয়াল মুজিজাত /২৫৪ পৃ:
ইমাম বুখারীর রহমাতুল্লাহি আলাইহি লিখিত : তারিখ উল কাবির
ইমাম বুরহান উদ্দিন হালাবী শাফেয়ী : সিরাতে হালাবিয়্যাহ ১ম খন্ড:৪৯ পৃ: [ইমাম বুখারীর সুত্রে]
আল্লামা ইসমাইল হাক্কী : তফসীরে রুহুল বয়ান : /৫৪৩ : সুরা তওবা ১২৮
আল্লামা শায়খ ইউসুফ নাবহানী : যাওয়াহিরুল বিহার : /৩৩৯ [নিজস্ব সনদে আবু হুরায়রা (রা) থেকে]
আল্লামা শফী উকাড়ভী : যিকরে হাসীন : ৩০ পৃ:

®
ইমাম বুরহান উদ্দিন শাফেয়ী (রহ) একজন গ্রহনযোগ্য মুহাদ্দিস। মোল্লা আলী কারি (রহ) শরহে শিফা /৩৭ সহ অসংখ্য স্থানে ইমাম হালাবীর মতামত উল্লেখ্য করেছেন।

®
ইমাম হালাবী তার সিরাতে হালাবিয়্যার প্রথমে বলেন, সীরাত গ্রন্থ সমুহে সহিহ, সাক্বীম, দ্বইফ, বালাগ, মুরসাল, মুনকাতা মু'দাল হাদিস সমুহ একত্রিত করা হয় কিন্তু জাল বা মওদ্বু হাদিস নয়।
সিরাতে হালাবিয়্যাহ : ১ম : পৃ

অপরদিকে, (আরবি = নাজম) মানে হল তারকা যা রাসুলুল্লাহ (সা) এর অন্যতম নাম মোবারক। অনেক তফসীরকারকগন কুরআন পাকের সুরা""ওয়ান্নাজম"" এর মধ্যে""আন-নাজম"" বলতে রাসুলুল্লাহ (সা) কে বুঝিয়েছেন। যা উক্ত হাদিসের মধ্যে এক শক্তিশালী যুগসুত্রও স্থাপন করে।

®
ইমাম জাফর সাদেক (রহ) বলেন, আন-নাজম বলতে রাসুলুল্লাহ (সা) কে বুঝানো হয়েছে।

ইমাম কুরতুবী : জামিউল আহকামুল কুরআন : ১৭/৮৩ পৃ:
ইমাম বাগভী : মুয়ালিমুত তানযিল : /৪০০ পৃ:
ইমাম আলুসী : তফসীরে রুহুল মা'য়ানী : ১৪/৪৪ পৃ:
কাজী সানাউল্লাহ পানিপথী : তফসীরে মাযহারী : /১০৩ পৃ:
ইমাম সাভী : তফসীরে সাভী : /১২৯ পৃ:
ইমাম খাযেন : তফসীরে খাযেন : /২০৩ পৃ:
ইমাম ইসমাইল হাক্কী : তফসীরে রুহুল বয়ান : /২০৮ পৃ: