চতুর্দশ শতাব্দীর শ্রেষ্ঠ মুজাদ্দিদ আ'লা হযরত আহমদ রেজাখান বেরলভী (রহ) এর লিখা সেই বিখ্যাত নাতে রাসুল (সা):- | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস



আলা হযরতের নিম্নোক্ত নাত শরীফটি বিভিন্ন দেশে মিলাদুন্নবী (সা) এর মাহফিলে প্রসিদ্ধ হিসেবে পাঠ করা হয়: 


কাব্যানুবাদঃ “সবছে আওলা ও আলা, হামারা নবী” 


১।সবছে আওলা ও আলা, হামারা নবী, সবছে বালা ও আলা, হামারা নবী।। সবার সেরা, রবের পেয়ারা, সে আমাদের নূর নবীজী, ভালোর চেয়ে ভালো, সেরাদের সেরা, আমাদের নূর নবীজী।। 


২।আপনে মাওলাকা পেয়ারা, হামারা নবী, দোনো আলমকা দুলহা, হামারা নবী।। আপন প্রভূর প্রিয়ভাজন, আমাদের নূর নবীজী, দুই ভূবনের অতিথি, সে আমাদের নূর নবীজী।। 


৩।বজমে আখেরকা শামা, ফেরুজা হুয়া, নুরে অয়াউয়ালকা জলওয়া, হামারা নবী।। সবার শেষে ধরার মাঝে, জ্বললো যে তাঁর নুরের বাতি। সবার আগে যে নুর পয়দা, নবীজী তাঁর প্রতিচ্ছিবি।। 


৪।জিসকা শায়া হ্যায়, আরশে খোদা পর জুলুছ, হ্যায় উয়হ সুলতানে, ওয়ালা, হামারা নবী।। খোদার পাক আরশ জুড়ে, যাঁর ছায়া বিরাজে, তেমনি এক মহান রাজন, আমাদের নূর নবীজী।।


৫।বুঝগেয়ী জিসকে আগে সবহি মশয়েলে, শামা উয়হ লেকর আয়া, হামারা নবী।। আগমনে যাঁর নিস্প্রভ, সব দীপ শিখার বাতি, এমনি এক নুরের বাতি, নিয়ে এলেন নুর নবীজী।। 


৬।জিনকা তলউকা দো বুন্দ হ্যায় আবে হায়াত, হ্যায় উয়হ জানে মসীহা, হামারা নবী। যাঁর দু’হাতের তালুর মাঝে, আবে হায়াত লুকিয়ে আছে, তেমনি এক প্রাণসঞ্চারী প্রস্রবণ, আমাদের নূর নবীজী।। 


৭।আরশ কুরছি কি থি, আয়না বনদিয়া ছোয়ে হক যব, সুদহারা হামারা নবী।। আরশ কুরছির প্রতিচ্ছিবি, আমাদের নূর নবীজী, সত্য যখন লুক্কায়িত, উদ্ধারিলেন মোর নবীজী। 


৮।খলক সে আউলিয়া, আউলিয়া সে রাসুল, আউর রাসুলুছে আলা হামারা নবী।। সৃষ্টি থেকে আউলিয়া, আউলিয়া থেকে রাসুল বড় আর রাসুলগণের মাঝে সেরা, আমাদের নূর নবীজী।। 


৯।আসমানোহি পর সব নবী রাহ গেয়ে, আরশ আযমপে পৌঁহছা হামারা নবী।। সকল নবী রয়ে গেলেন, আকাশেরি এক কোনে, আরশে গিয়ে মোর নবীজী, দেখা করেন প্রভূর সনে, 


১০।হুসন খাতা হ্যায় জিসকে, নিমক কি কসম হ্যায় উয়হ মলিহে দিলারা,হামারা নবী।। সৌন্দর্য সুধা করে কসম, সে মহান প্রতিপালকের, সে প্রেমাস্পদ, মনের মানুষ, আমাদের নূর নবীজী।। 


১১।জিকর সব ফিকে জবতক না-মজকুর হো, নমকিন হুসনেওয়ালা, হামারা নবী, সবার কথা ব্যর্থ জানি, যদি না নাও তাঁর পাক নাম খানি, মাধুর্য্যমন্ডিত সৌন্দর্যে ভরা, আমাদের নূর নবীজী।। 


১২।জিসকি দো বোন্দ হ্যায় কাওসার ও সাল সাবিল, হ্যায় উয়হ রহমতকা দরিয়া, হামারা নবী।। যার দু’টি দয়ার ফোটা, কাওসার ও সাল সাবিল, সে রহমতের মহাসাগর, আমাদের নূর নবীজী।।


১৩।যেয়ছে ছবকা খোদা এক হ্যায় ওয়ছে হি, ইনকা উনকা তোমহারা, হামারা নবী।। মহান প্রভূ, আল্লাহ মোদের, সবার তরে এক যেমনি, তেমনি ও ভাই, তোমার আমার সর্বজনার নূর নবীজী।। 


১৪।করনো বদলি রাসুলোকি হোতি রাহি, চাঁদ বদলিকা নিকলা, হামারা নবী।। একের পর এক, রাসুলগনের আসাযাওয়া ধরণী পরে মোর নবীজী পূর্ণিমার চাঁদ, দীপ্তি ছড়ান সবার মাঝে।। 


১৫।কওন দেতা হ্যায় দেনেকো মু চাহিয়ে, দেনেওয়ালা হ্যায় সাচ্ছা হামারা নবী।। কে আছে ভাই এমন দাতা, পাবে তুমি, যা চাহ তা, সত্যিকারের দাতা সে যে, আমাদেরি নূর নবীজী।। 


১৬।কেয়া খবর কিতনে তারে খিলে, ছুপ গেয়ে, পর না ডুবে, না ডুবা হামারা নবী।। আকাশেতে কত তারা, ডুবলো যে তার হিসাব কোথা? আমার নবী নক্ষত্র এক, ডুবে না সে, ডুবলে ধরা।। 


১৭।মুলকে কাওনাইন মে আম্বিয়া তাজেদার তাজেদারো কা আঁকা হামারা নবী।। সুবিশাল এ জগত মাঝে, নবীগণই মুকুটধারী, মুকুটধারী সর্বজনার শিরোমনি মোর নবীজী।। 


১৮।লা মঁকা তক উজলা হ্যায় জিসকো উয়হ হ্যায়, হার মঁকা কা উজালা হামারা নবী।। লা মকানে আলো ছড়ায়, সে আমারি নূর নবীজী, সর্বস্থানে, সবার হৃদে দ্যুতি ছড়ান, মোর নবীজী। 


১৯।ছারে আচ্ছো মে আচ্ছা, ছমজিয়ে জিছে, হ্যায় উছ আচ্ছে ছে আচ্ছা হামারা নবী।। ভালো সে যতই ভালো, হোক না গিয়ে, জগতের সব ভালোর মাঝে অনন্য, সে আমার নবী।। ২০।ছারে উঁচুমে উঁচা, ছমজিয়ে জিছে, হ্যায় উছ উঁচোসে উঁচা, হামারা নবী।। জগতের সব উঁচুর মাঝে, এভারেষ্ট যে ঐ বিরাজে, মোর নবীজীর শানটি সদাই, তেমনি সকল উঁচুর ‘পরে। 


২১।আম্বিয়াসে করো আরজ কেঁউ মালেকো, কেয়া নবী হ্যায় তোমহারা হামারা নবী।। নবীর কাছে ফেরেশতারা, পেশ করেন না আরজিনামা, বড়ই মহান, উঁচুতে তাঁর শান, আমাদেরি নূর নবীজীর।। 


২২।জিছনে টুকড়ে কিয়ে হেঁ ক্কমরকো উয়হ হ্যায়, নুরে ওয়াহাদাত কা টুকড়া হামারা নবী।। চাঁদকে দুই টুকরা করেন, আঙ্গূলের এক ঈশারাতে।। একক সত্তার টুকরা যে এক, আমাদেরি নূর নবীজী।। 


২৩।ছব চমক ওয়ালে, উজলুঁমে চমকা কিয়ে, আন্ধে শিশো মে চমকা হামারা নবী।। সকল প্রদীপ আলো বিলায়, আলোকিত ঐ সদনে, আঁধার রাতে পূর্ণ শশী আমাদেরি নূর নবীজী।। 


২৪।জিসনে মুরদা দিলোঁকো দি, উমরে আবদ, হ্যায় উয়হ জানে মসীহা হামারা নবী।। মৃতবৎ অন্তরে যিনি, সঞ্চারিলেন জীবন সুধা, তেমনি এক সঞ্জীবণী, প্রসবন সে আমারি