মুয়াবিয়া (রা:)প্রতি মাওলা আলী (রা:) শ্রদ্ধা ভক্তি | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস



হযরত মুয়াবিয়া রাদিয়াল্লাহু আনহু’র ফজিলতঃ-(কোরানশরীফ ও হাদীসহতে)

১)সুরা হাদিদ ,আয়াতনং ১০- ‘লা ইয়াস্ তাবী মিন কুম.....তামালুনা খাবীর’ অর্থঃ-তোমাদের মধ্যে সমাননয় ওই সকল লোকেরা(সাহাবীগণ)যারা মক্কা বিজয়ের পুর্বে ব্যয় ও জেহাদকরেছে এবং তাঁরামযাদায় ওই সকল লোকেদের(সাহাবী)চেয়েউত্তম যারা বিজয়ের পর ব্যয় ও জেহাদ করেছে এবং তাদের সবার সাথেআল্লাহ জান্নাতের ওয়াদা করেছেন।

 এই আয়াতটি হযরত মুয়াবিয়া সহ ওই সকল সাহাবীদের শানে নাযিল হয়েছেযারা মক্কা বিজয়ের পুর্বে ও পরে ইসলামের পথে ব্যয়ও জেহাদ করেছেন এবং এরা সকলেইহলেন জান্নাতি।(হযরত মুয়াবিয়া হুনাইনের যুদ্ধে হুযুর পাক সাল্লাল্লাহু আলায়হে ওয়া সাল্লামের সহিত অংশ গ্রহনকরেছিলেন)

২) সুরা তাওবা,আয়াতনং ১১৭,’লাক্বাদ তা’বাল্লাহু আলান নবীই ই----র উফুর রহিম’ অর্থঃআল্লাহর রহমত সমুহধাবিত হল নবীরএবং মুহাজির ও আনসারের প্রতি যারাসংকট কালে হুজুরপাকের সংগে ছিল।

হযরত আমীরে মুয়াবিয়া রাদিয়াল্লাহু আনহুহলেন ওই মহানসাহাবী যিনি ‘গযওয়াএ তাবুক’ নামকযুদ্ধের সংকট কালেহুযুর পাক সাল্লাল্লাহু আলায়হে ওয়া সাল্লাম এর সাথে ছিলেন।

  (আরোও অনেককয়েকটি আয়াত যা হযরত আমীরে মুয়াবিয়া রাদিয়াল্লাহু আনহু’র শানেনাযিল হয়েছে,সংক্ষেপের কারনে এখানে শুধুদুটি দেওয়া হল।)



হযরত মুয়াবিয়া রাদিয়াল্লাহু আনহু’র ফজিলতঃ-(হাদিসহতে)

৩)বোখারী শরীফ ২য় খন্ড,হাদিস নং২৯২৪

হযরত উম্মে হারাম বিনতেমুলহান রাদিয়াল্লাহু আনহা বলেন ‘আমি হুযুরপাক সাল্লাল্লাহু আলায়হে ওয়া সাল্লাম কে বলতে শুনেছি 

أولجيش من أمتي يغزون البحر قد أوجبوا
 অর্থঃ-আমারউম্মতের যে প্রথমসৈন্য দলটি নৌ অভিযানে অংশ নেবে,তারা নিজেদের জন্য জান্নাত ওয়াজিব করে নিয়েছে।(the first army of my ummah nation that will invade the sea,all the sins of its solders will be forgiven)

মুহাদ্দিস গণ বলেন এই হাদিসটি হযরত মুয়াবিয়া রাদিয়াল্লাহু আনহু’র শানেবর্ণিত হয়েছে কারনতিনিই হলেন সর্বপ্রথম সেই সাহাবী যার নেত্বত্বে সর্বপ্রথম সৈন্যদল নৌ অভিযানে অংশ গ্রহনকরেছিলেন এবং এরা সকলেই হলেন জান্নাতী যার সু সংবাদহযুর পুর্বেই দিয়েছিলেন।(সংক্ষেপের কারণে শুধু একটি হাদিসবোখারী শ রীফ হতে বর্ণিত হল)

৪)তিরমিযী শরীফ ২য় খন্ড ২২৪ পৃঃ,

 হুযুর পাক সাল্লাল্লাহু আলায়হে ওয়া সাল্লাম হযরত মুয়াবিয়ার জন্য দোওয়া ক রেছিলেন  اللهم اجعله هادياً مهدياً واهد به হে আল্লাহ মুয়াবিয়া(রাদিয়াল্লাহু আনহু)কে হাদি(হেদায়াতকারী)ও মাহদী(হেদায়াত প্রাপ্ত)বানিয়ে দাও এবং তার মাধ্যমে মানুষ কে হেদায়াত প্রদান কর।“O Allah!Make him a guide,guided(to right path ),and guide (others)through him”

৫)ইমাম আহমদ ‘ফাদায়েলু সাহাবা’ একটিহাদিসের মধ্যে উল্ল্যেখ করেছেন হুযুর পাক সাল্লাল্লাহু আলায়হে ওয়া সাল্লাম বলেন اللهم علم معاوية الكتاب والحساب وقه العذاب হে আল্লাহ মুয়াবিয়াকে কেতাব(কোরান)ও হেসাবের জ্ঞান দান করো এবং তাকে আযাবথেকে রক্ষা করো।“O Allah !Teach Muaviya the book(holy Quran)and math,and protect him from punishment”

৬)মুসান্নাফ ইবনে আব্দির রাযযাক হাদিস নং ২০৮৫,আল বেদায়া৮ম খন্ড১৩৫পৃঃ,আল ইসাবাহ ৩য় খন্ড ৪১৩ পৃঃ

হযরত আমীরে মুয়াবিয়া রাদিয়াল্লাহু আনহু’র জ্ঞান,প্রজ্ঞা এবং তাকওয়া ও ধার্মিক তা সর্ম্পকে সাহাবী’য়ে রসুলসাল্লাল্লাহু আলায়হে ওয়া সাল্লাম ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু’র মন্তব্য হল ‘শাসন ক্ষমতার জন্য মুয়াবিয়ার চেয়ে উপযুক্ত কেউ আমারনজরে পড়েনি।

৭)তারিখুল ইসলাম গ্রন্থ আল্লামা হাফেয যাহবীএকটি হাদিস বর্ণনা করেছেন হযুর পাক হযরত মুয়াবিয়ার জন্য দোওয়া করেছিলেন ‘হে আল্লাহ মুয়াবিয়ার সিনাকে জ্ঞান দারা পুর্ণকরে দাও’।

এ সকল ছাড়াও যে সকল হাদিস গ্রন্থে হযরত মুয়াবিয়া রাদিয়াল্লাহু আনহু’র শান বর্ণিত হয়েছে তার মধ্যেমুসলিমশরীফ,মিশকাতশরীফ,আলবেদায়া,ইবনেখালদুন,আলবেদায়া অ নেহায়া প্রভূতি অন্যতম।



অতি ভক্তি চোরের লক্ষণ:

প্রিয় পাঠকগণ বর্তমানে যারা আহলে বাইতের প্রতিঅতি ভক্তি দেখিয়ে রাসূল (দ:)ওনারপ্রিয় সাহাবাগণদের সমালোচনা করে তাদের উপর আল্লাহর লানত বর্ষিত হোকএবং যে সকল পীর নামের ভন্ডদের দরবারে সাহাবীদের সমালোচনা করতেশেখায় তাদের উপর ও আল্লাহর লানত বর্ষিত হোক। যে সকল পীর বা তাদের অনুসারীগণ আহলে বাইতের প্রতি অতি ভক্তি দেখায় বিশেষ করে মাওলা আলী (রা:)প্রতি সেই মাওলা আলী (রা:)একটি ভাষণ পেশ করলাম ইবনে কাসির রচিত ইসলামী ইতিহাসের হাদীস শাস্ত্রের এক বিখ্যাত গ্রন্থ বাংলাদেশ ইসলামিক ফাউন্ডেশন প্রকাশিত আলবেদায়া অ নেহায়ার মধ্যে মাওলী আলী (রা:) এবং আমীরে মূযাবিয়া (রা:)দুজনের পারষ্পরিক শ্রদ্ধাবোধ কেমন ছিলো তা দেখুন হযরত আলী রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু এবং আমীর মুয়াবিয়া রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু পরস্পরের প্রতি যথেষ্ট শ্রদ্ধা ছিল। একদিন  হযরত আমীর মুয়াবিয়া রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু দরবারে উপস্থিত সবাইকে বললেন, যে ব্যক্তি হযরত আলী রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু’র প্রশংসায় যথাযোগ্য কবিতা আবৃত্তি করবে, আমি তাকে প্রতিটি কবিতার বিনিময়ে হাজার দিনার দান করব। উপস্থিত কবিগণ হযরত আলী রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু’র শানে কবিতা আবৃত্তি করে প্রচুর পুরষ্কার লাভ করলেন। কিন্তু হযরত আমীর মুয়াবিয়া রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু প্রতিটি কবিতা ও ছন্দ শ্রবণ করার পর বলতেন-  علیّ افضل منہ (আলীয়্যুন আফদ্বালু মিনহু) অর্থাৎ, “আলী এর চেয়েও অনেক উত্তম”। অতঃপর উক্ত মজলিসে আমর বিন আস রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু হযরত আলী রাদ্বিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু’র প্রশংসায় এমন একটি কবিতা আবৃত্তি করলেন, যা হযরত আমীরে মুয়াবিয়া রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু’র নিকট পছন্দ হল, ফলে ঐ কবিতার বিনিময়ে উক্ত কবিকে হযরত আমীরে  মুয়াবিয়া রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু সাত হাজার দিনার পুরষ্কার প্রদান করলেন।হযরত আলী রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু সিফ্ফীনের যুদ্ধ থেকে প্রত্যাবর্তনের পর আমীরে মুয়াবিয়া রাদ্বিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু সম্পর্কে ইরশাদ করেন-



    ایھا الناس لا تکرہ امارۃ  معاویۃ فانکم لوفقد تموہ رایتم الرؤس تنذر عن لواھلھا کانّما الحنظل-



অর্থাৎ, “হে লোক সকল! তোমরা আমীরে মুয়াবিয়ার শাসন এবং নেতৃত্বকে অপছন্দ করোনা”। যদি তোমরা তাঁকে নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দাও, তবে তোমরা দেখবে ধড় থেকে মাথা এমন ভাবে কেটে পড়েছে, যেভাবে হান্জল (এক প্রকারের তিক্ত ফল) গাছ থেকে পতিত হয়।[আল-বিদায়া: ৮ম খন্ড,২৫২ পৃঃ ]

প্রিয় পাঠকগণ এটা মাওলা আলী (রা:)নিজ বাণী যা এই গ্রন্থে বর্ণিত এখন আপনারাই বিচার করেন যারা মাওলা আলী (রা:)কে অস্বীকার করে এবং আমার রাসূল (দ:)ওনার হাদীসকে অস্বীকার করে তারা কি করে ইসলাম ধর্মে দিক্ষীত এবং তারা কি করে পীরালী বা মুরীদী করে বেড়ায় এই সকল দরবার এবং পীররা নিজেরাই পথভ্রষ্ঠ এবং তাদের মুরীদগণ ও পথভ্রষ্ঠ।তাই আসূণ আমরা কোরান সূন্নাহ মাধ্যমে বিচার করে আহলে বাইতকে ভালবাসি এবং সাহাবাগণদের ভালবাসি....আল্লাহ আমিন...প্রচারে...মোখলেছিয়া সূন্নী খানকা শরীফ।