অন্তরের কঠোরতার আলামত | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস

অন্তরের কঠোরতার আলামত:
-স্বাধীন আহমেদ ক্বাদরী।

প্রিয় ইসলামী ভাইয়েরা! জানতে পারলাম যে, আল্লাহ্ তা'আলার রহমত থেকে দূরত্ব এবং শাশ্বত দূর্ভাগ্যের একটি কারণ হলাে,অন্তরের কঠোরতা। আজকাল অধিকাংশ লােকদের পেরেশানী,বিপদাপদ,আর্থিক দূরাবস্থা এবং ব্যবসায় প্রতিবন্ধকতার হা - হুতাশ করতে দেখা যায়।

চিন্তা করুনঃ

চিন্তা করা উচিৎ যে, এই সব বিপদের কারণ আমাদের অন্তরের কাঠোরতা এবং এর কারণে আল্লাহ তাআলার রহমত থেকে দূরত্ব তাে নয়? কখনাে এমন যেন না হয় যে, আমাদের অন্তরের কঠোরতার কারণে পাথর থেকেও বেশি কঠোর হয়ে গেছে এবং আমাদের এটির ব্যাপারে কোন খবর না নেই? নিঃসন্দেহে প্রত্যেক রােগের কিছু না কিছু আলামত থাকে, যার দ্বারা রােগ নির্ণয় করা সহজ হয়ে যায়। একইভাবে অন্তরের কঠোরতারও কিছু আলামত রয়েছে । আসুন , তা থেকে কয়েকটি শ্রবণ করিঃ

ইবাদতে অলসতা করাঃ

অন্তর কঠিন হওয়ার একটি আলামত এও যে, মানুষ নেক আমল থেকে দূরে থাকে। যদি কখনাে মসজিদে যাওয়ার সৌভাগ্য হয়েও যায় তবে বিনয় ও নম্রতা ছাড়া তাড়াতাড়ি এভাবে নামায পড়ে যেন খাঁচায় বন্দী পাখি,  যে তাড়াতাড়ি মুক্ত হওয়ার চেষ্টা করছে। ঠিক এভাবে অন্যান্য ফরয ও ওয়াজিব সমূহও বােঝা মনে হতে থাকে।
অন্তরের কঠোরতার এই আলামত খুবই মারাত্মক, কেননা কোরআনে পাকে মুনাফিকদেরও এসব আলামত বর্ণনা করা হয়েছে। যেমন- আল্লাহ তা'আলা ইরশাদ করেন :
কানযুল ঈমান থেকে অনুবাদ : "আর যখন নামাযে দাঁড়ায় তখন মনভােলা অবস্থায়।"
[পারা - ৫, সুরা নিসা, আয়াত - ১৪২]

দোয়াঃ

আল্লাহ তা'আলা আমাদের এই আপদ (অর্থাৎ অন্তরের কঠোরতা) থেকে মুক্তি দান করুক এবং আমাদের ইবাদত ও তিলাওয়াতে বিনয় ও নম্রতা এবং একাগ্রতা ও অটলতার দৌলত দান করুন।

উপদেশ প্রভাব বিস্তার না করাঃ

একইভাবে অন্তরের কঠোরতার একটি আলামত এও যে, যখন ওয়াজ ও নসিহত এবং আখিরাতের স্মরনমূলক কাজ বা হঠাৎ মৃত্যুর ঘটনা পড়ে বা শুনে কারাে মনে আখিরাতের চিন্তা বা নেককাজে আগ্রহ সৃষ্টি না হয় তবে এটাও অন্তর কঠিন হওয়ার আলামত।

আখিরাতের উপর দুনিয়াকে প্রাধান্য দেয়াঃ

অন্তরের কঠোরতার একটি আলামত এও যে,  বান্দা চিরস্থায়ী অবস্থান আখিরাতের উপর এই দুনিয়ার অস্থায়ী জীবনকে প্রাধান্য দেয়া শুরু করে এবং দুনিয়াকে নিজের সবকিছু ভেবে তাকে পেতে অস্তির হয়ে যায়, এর ফলাফল এটা বের হয় যে,  সেই ব্যক্তি দুনিয়ার ভালবাসায় অন্ধ হয়ে, গুনাহের অতল গহ্বরে হারিয়ে যায় তার দুনিয়া ও আখিরাতের ধ্বংস ছাড়া আর কিছু অর্জন হয় না।

ঈমান দুর্বল হয়ে যাওয়াঃ

অন্তরের কঠোরতার একটি আলামত এও যে,  যখন বান্দার সামনে আল্লাহ্ তাআলার বিধান লংঘন করা হয় এবং নির্লজ্জ ও বেহায়াপনার মাধ্যমে গুনাহের বন্যা বইয়ে দেয়, তখনও তার ঈমানী চেতনা জাগ্রত হয় না এবং সে এই মন্দ কাজকে থামায় না বা থামানাের ক্ষমতা না থাকাবস্থায় অন্তরে খারাপও জানে না তবে বুঝে নিতে হবে যে, তার অন্তর পাষাণ হয়ে গেছে।

মাদানী উপদেশঃ

প্রিয় ইসলামী ভাইয়েরা! এই আলামত এবং নিদর্শন সমূহ থেকে সম্পূর্ণরূপে ধারনা করা যায় যে, অন্তরের কঠোরতা কিরূপ বিপদজনক রােগ,  অন্তরের কঠোরতা এমন একটি রােগ, যা বান্দাকে আল্লাহ তা'আলার পথ থেকে সরিয়ে নফস ও শয়তানের অনুসারী বানিয়ে দেয়। অন্তরের কঠোরতা থেকে মুক্তি পাওয়ার একটি পদ্ধতি হলাে যে, বান্দা যেন সেই কারণসমূহ সম্পর্কে ভাবে, যা অন্তরকে কঠিন করে দেয় এবং তা নির্মূল করার চেষ্টাও করে।