ফিদিয়ার বর্ণনা | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস

ফিদিয়ার বর্ণনা
✍ কৃতঃ আল্লামা আজিজুল হক আল কাদেরী (رحمة الله) মুনিয়াতুল মুছলেমীন [১ম খন্ড]

❏ মাসয়ালা: (২০০)
ফিদিয়া এর পরিমাণ এবং কোন জিনিস দ্বারা ফিদিয়া দেয়া যাবে?
উলে­খ্য যে ফিদিয়া এর পরিমাণ হচ্ছে একজন অভাবীকে এই পরিমাণ শস্য ফসল দিবে যে পরিমাণ ছদকায়ে ফিতরায় দেয়া হয়। অর্থাৎ পৌনে ২ সের গম অথবা সাড়ে ৩ সের যব। কিংবা এর মধ্য হতে যে কোন একটির মূল্য। যদি গম এবং যব ব্যতিত অন্য কোন শস্য ফিদিয়া দেয়া হয় সেক্ষেত্রে পৌনে ২ সের গম কিংবা সাড়ে ৩ সের যবের যে মূল্য হয় সে মূল্য সমপরিমাণ অন্য কোন শস্য দেয়া যাবে।
ফিদিয়ার মধ্যে যদি শস্য না দিয়ে বরং একজন অভাবীকে দুই বেলার খাবার পেট ভর্তি তথা আসুদা করে খাওয়ায়ে দিলে এর দ্বারাও ফিদিয়া আদায় হয়ে যাবে। তবে শর্ত হচ্ছে সে খাবার দিতে হবে যা নিজে খেয়ে থাকে।

❏ মাসয়ালা: (২০১)
ফিদিয়া শস্য কিংবা শস্যের মূল্য কয়েকজন অভাবীকেও দেওয়া জায়েজ আছে।

❏ মাসয়ালা: (২০২)
ফিদিয়ার পরিমাণ: ফিদিয়ার পরিমাণ হল একজন অভাবী ব্যক্তিকে এত পরিমাণ খাবার দিবে যত পরিমাণ সদকায়ে ফিতর দেওয়া হয়। অর্থাৎ, পৌনে দু’সের গম বা সাড়ে তিন সের যব বা খেজুর বা তার মূল্য। যদি গম এবং যব ছাড়া অন্য কোনো ফসল দিতে চায় তখন পৌনে দু’সের গমের মূল্য বা সাড়ে তিন সের যবের মূল্য হিসাবে আদায় করবে।
যদি ফিদিয়াতে দু’বেলা খাবার আহার করায় তখনও ফিদিয়া আদায় হবে। তবে সে যা খায় তা দিতে হবে।

❏ মাসয়ালা: (২০৩)
একটি রোজার ফিদিয়া কয়েকজনকে দেওয়া বৈধ।