ছবির বর্ণনা

ছবির বর্ণনা
✍ কৃতঃ আল্লামা আজিজুল হক আল কাদেরী (رحمة الله) মুনিয়াতুল মুছলেমীন [১ম খন্ড]

❏ মাসয়ালা: (২০৯)
যদি নামাজীর মাথার উপরে কিংবা ছাদের উপর ছবি (তাছ্বীর) ঝুলানো হয় অথবা নামাজীর আগে কিংবা নামাজীর ডানে-বামে অথবা সিজদার স্থানে ছবি থাকে, এ সমস্ত অবস্থায় নামাজ মাকরূহে তাহরীমি হবে। তেমনি স্থানে যদি কেউ নামাজ আদায় করে থাকে তবে সেক্ষেত্রে অন্য স্থানে গিয়ে দ্বিতীয়বার নামাজ আদায় করা আবশ্য হবে। যেখানে সে বস্তু না থাকবে যার দ্বারা নামাজ মাকরূহ হয়। নামাজীর পিছনে যদি ছবি হয় সেক্ষেত্রেও মাকরূহ হতে খালি নয়। তবে তা হবে সূক্ষ্ম ও হালকা মাকরূহ। অতএব নামাজ এরকম রুমে বা কামরায় আদায় করতে হবে যাতে নামাজীর সামনে, ডানে, বামে, উপরে এবং সিজদার স্থানে কোন প্রাণীর ছবি না হয়।
জ্ঞাতব্য যে, ছবি ছাপানো হউক কিংবা হাত দ্বারা অঙ্কিত হউক ইত্যাদির ক্ষেত্রে একই হুকুম প্রযোজ্য। অর্থাৎ মাকরূহে তাহরীমি হবে। আর প্রাণহীন কোন ছবি কিংবা ফটো থাকলে নামাজ মাকরূহ সৃষ্টি করবে না। যেমন- স্থান, বিল্ডিং, দালান, মসজিদ, মাদ্রাসা, গাছ, জমিন, আসমান ও বাগান ইত্যাদির ফটো। তেমনিভাবে ছবিযুক্ত টাকা, নোট, পয়সা, পাসপোর্ট, পরিচয়পত্র যদি নামাজির পকেটে অথবা ব্যাগের মধ্যে লুকায়িত বা গোপনীয় ভাবে হয়, সে সব ক্ষেত্রে নামাজের মধ্যে মাকরূহ (কারাহাত) সৃষ্টি হবে না। 
➥ [আলমগীরি, দুররে মোখতার, ফতোয়ায়ে বরকাতুল উলুম ইত্যাদি]
Previous Next

نموذج الاتصال