ইন্তিকালের সময় মালাকুল মওতের সাথে রসুলে পাকﷺএর কথাবার্তা | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস

রাসূল (সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর ইন্তিকালের সময় মালাকুল মাওতের আগমন ও কথাবার্তা
=======================
রাসূল (সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) আজরাঈল (আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর সাথে কথা বলেছেন, এ মর্মে সহিহ সূত্রে অনেক হাদিস বর্ণিত হয়েছে।
মিশকাত শরীফে ’’বাবু ওফাতুন্নাবী’’ সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম অধ্যায়ে হযরত আলী ইবনে হুসাইন (রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু) এর একটি দীর্ঘ হাদিস রয়েছে, উক্ত হাদীসে আজরাঈল (আলাইহি ওয়াসাল্লাম) ঘটনাটি এভাবে উল্লেখ আছে।
** -‘‘অতঃপর আজরাঈল (আলাইহি ওয়াসাল্লাম) রাসূল (সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর হুযরা মোবারকে প্রবেশের অনুমতি চাইলেন। তারপর জিবরাঈল (আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বললেন যে, ইয়া রাসূলাল্লাহ (সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম)! এই যে মালাকুল মওত আজরাঈলও আপনার নিকট আসবার অনুমতি চাই”ছেন। তিনি একমাত্র আপনি ব্যতিত আর কখনও কোন মানুষের নিকট আসতে অনুমতি চাননি। অতএব তাকে প্রবেশের অনুমতি দিন। তখন হুযুর পাক (সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) তাকে অনুমতি দিলেন। তিনি এসে হুজুর (সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) কে সালাম করলেন এবং বললেন, আপনি অনুমতি দিলে আপনার রূহ মোবারক কবজ করব। আর আমাকে তা বাদ দিতে বললে, আমি তা বাদ দিব। তখন হুযুর (সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বললেন, হে আজরাঈল (আলাইহি ওয়াসাল্লাম) আপনি কি এইরূপ করতে পারবেন? আজরাঈল (আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বললেন, হ্যাঁ, আমি এরূপও আদিষ্ট হয়েছি যে, আমি যেন আপনার নির্দেশ অনুযায়ী চলি। রাবী বলেন, এই সময় হুযুর (সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) হযরত জিবরাঈল (আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর দিকে তাকালেন। জিবরাঈল (আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বললেন, হে মুহাম্মদ (সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম)! আল্লাহ পাক আপনার সাক্ষাত লাভের জন্য অত্যন্ত আগ্রহী। এটা শুনামাত্র হুযুরে পাক (সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) আজরাঈল (আলাইহি ওয়াসাল্লাম) কে বললেন, যে জন্য আপনি আদিষ্ট হয়েছেন তা বাস্তবায়ন কর“ন। তারপর রূহ মোবারক কবজ করলেন।’’
সুত্র:—-
ক. ইমাম বায়হাকী : দালায়েলুন নবুওয়াত : ৭/২৬৭পৃ., দারুল হাদিস, মিশর হতে প্রকাশিত।
খ. খতিব তিবরিযী : মিশকাত শরীফ : হাদিস : ৫৭২০ প:ৃ
গ. ইমাম ইবনে সা‘দ : আত্-তবকাতুল কোবরা : ২/২৬০ পৃ:
ঘ. আল্লামা ইমাম জালালুদ্দীন সুয়ূতি : আল-খাসায়েসুল কোবরা : ২/৫৩০ পৃ. হাদিস : ৩৩৯৯
ঙ. ইমাম তাবরানী : মুজামুল কবীর : ৩/১২৮ প:ৃ হাদিস : ২৮৯০
চ. ইমাম আদনী : আল মুসনাদ : ৫/২৪৫ পৃ:
ছ. ইমাম জুরজানী : তারীখে জুরজান : ১/৩৬২ পৃ.
জ. ইমাম ইবনে হাজার হায়সামী : মাযমাউয যাওয়াইদ : ৭/৩৫ পৃ
ঝ. ইমাম শাফেয়ী : আস সুনানিল নাক্কাস : ১/৩৩৪ পৃ :
ঞ. ইমাম কুস্তালানী : মাওয়াহেবে লাদুন্নীয়া : ৩/৩৬০ পৃ.
ট.যুরকানী,শরহুল মাওয়াহেব,১২/১২৭পৃ.দারুল কুতব ইলমিয়্যাহ,বযরুত।


**-‘‘হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু) বর্ণনা করেন- রাসূল (সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর কাছে মালাকুল মওত আযরাঈল আলাইহি ওয়াসাল্লাম (মানব বেশে) আগমন করল। হুযুর (সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর মাথা মোবারক তখন হযরত আলী (রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু) এর কোলে ছিল। মালাকুল মওত ভেতরে আসার অনুমতি চেয়ে বলল, আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু।
হযরত আলী (রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু) বললেন, আপনি চলে যান। এখন আমরা আপনার প্রতি মনোযোগ দিতে পারব না। নবী করীম (সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বললেন, আবুল হাসান! তুমি কি তাকে চেন? ইনি মালাকুল মাওত। অতঃপর তিনি মালাকুল মাওতকে প্রবেশের অনুমতি দিলেন। মালাকুল মওত প্রবেশ করে বললেন,আপনার পরওয়ারদিগার আপনাকে সালাম প্রেরণ করেছেন। হযরত আলী (রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু) বলেন, আমরা জানতে পেরেছি যে, মালাকুল মাওত এর আগে কারও পরিবারকে সালাম বলেন নি এবং পরেও আর কাউকে সালাম বলবেন না।’’
সুত্র:—-
ক. ইমাম তাবরানী : মুজামুল কবীর : ১২/১৪১ : হাদিস : ১২৭০৮
খ. আল্লামা ইমাম জালালুদ্দীন সূয়তী : খাসায়েসুল কোবরা : ২/৫৩১ পৃ : হাদিস : ৩৪০১
গ. আল্লামা ইমাম বায়হাকী : দালায়েলুন নবুওয়াত : ৭/২৬৮ পৃ.
ঘ. ইমাম কুস্তালানী : মাওয়াহেবে লাদুন্নীয়া : ৩/৩৬০ পৃ.
ঙ. ইমাম যুরকানী : শরহুল মাওয়াহেব : ১২/১২৭ পৃ. দারুল কুতুব ইলমিয়্যাহ, বয়রুত।

** তারপরে আজরাঈল  আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর অবস্থা সম্পর্কে অন্য হাদিস এসেছে এভাবে-
-‘‘হযরত আলীরাদ্বিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসূল সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ওফাত হয়ে গেলে মালাকুল মাওত আযরাঈল সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আকাশে কাঁদতে কাঁদতে গেলেন। যিনি হুযুর সল্লল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সত্য নবীরূপে প্রেরণ করেছেন, তার কসম, আমি আকাশে ‘ওয়া মুহাম্মদ’ বলে (আজরাঈলকে) কাঁদতে শুনেছি।’’
সুত্র:—-
ক. ইমাম আবু নঈম : হুলিয়াতুল আউলিয়া :
খ. আল্লামা ইমাম জালালুদ্দীন সূয়তী : খাসায়েসুল কোবরা : ২/৫৩২ : হাদিস : ৩৪১১