নামাযে পায়ের সাথে পা মিলিয়ে রাখা বিদয়াত | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস

নামাযে নব আবিষ্কৃত বিদয়াতের পত্তির কারণ সম্পর্কে আলোচনা করতে গিয়ে . বকর আবু যায়েদ লিখেছেন, “ নামাযের অধিকাংশ নব আবিষ্কৃত মাসআলার ক্ষেত্রে কিছু মানুষ যে ভ্রান্ত বুঝের স্বীকার হয়েছে এর মৌলিক কারণ হলো, হাদীসের বুঝ অর্জনে বাড়াবাড়ি, প্রসিদ্ধ প্রচলিত অর্থ, আরবী ভাষার গ্রহণযোগ্য ব্যবহার মূলনীতি, হাদীসের মূলনীতি ফিকহের মূলনীতির প্রতি দৃষ্টি না দেয়া দলিল প্রদানে সুস্থ ধারার ব্যত্যয় এবং গ্রহণযোগ্য পদ্ধতির থেকে দূরে সরে যাওয়ার ভয়ংকর পরিণতি হলো এসব নতুন আবিষ্কৃত বিদয়াতসমূহ সেই সাথে নামাযের ধীরস্থির ভারসাম্যপূর্ণ প্রচলিত সুন্নাহ থেকে বিমুখ থাকা, ফিকহের কিতাবসমূহ থেকে দূরে থাকা এবং ইমামগণের মতবিরোধ সম্পর্ক অনবহিত থাকার একটি মারাত্মক পরিণতি হলো নামাযের শরীয়তের বিধি-বিধানে এসব বিদয়াতের সৃষ্টি অথচ ফিকহের কিতাব ইমামগণের মতবিরোধ সম্পর্কে অবগত হলে সে কুরআন হাদীস থেকে মাসআলা আহরণের , পদ্ধতি সুস্থ ধারা সম্পর্কে সচেতন থাকার কারণে এসব বিদয়াত থেকে দূরে থাকতো
** প্রথম বিদয়াত: নামাযে পায়ের সাথে পা মিলিয়ে রাখা
নামাযে নতুন সৃষ্ট একটি বিদয়াত হলো পায়ের সাথে পা মিলিয়ে দাড়ানো। চৌদ্দ বছরের ইতিহাসে তথাকথিত আহলে হাদীসদের পূর্বে কেউ এই মাসআলার উপর আমল করেনি। চার মাজহাবের একটি মাজহাবেও এই মাসআলা গ্রহণ করা হয়নি। বর্তমানে আহলে হাদীস তথাকথিত আলবানী পন্থী কিছু সালাফী এই বিদয়াত চালু করেছে। রাসূল . এর সুন্নতের সাথে এর বিন্দুমাত্র কোন সম্পর্ক নেই। বর্তমানে আহলে হাদীসদের আমল থেকে দেখা যায়, তারা সম্পূর্ণ নামাযে পায়ের সাথে পা মিলিয়ে দাড়ায় না, বরং পায়ের বৃদ্ধাঙ্গুলির সাথে অপরের বৃদ্ধাঙ্গুল মিলিযে দাড়ায়। এভাবে বৃদ্ধাঙ্গুল মিলিয়ে দাড়াবার কথা ইসলাম শরীয়তের কোথাও নেই। এটি আহলে হাদীসদের মনগড়া একটি আবিষ্কার
আমরা প্রথমে এবিষয়ে সালাফী আলেমসহ বিখ্যাত আলেমদের ফতোয়া উল্লেখ করবো। এরপর হাদীস, খোলাফায়ে রাশেদীন সালাফে-সালেহীনের আমলের আলোকে বিস্তারিত আলোচনা করবো
পায়ের সাথে পা মিলিয়ে রাখা সম্পর্কে বিখ্যাত আলেমগণের বক্তব্য:

. ইবনে উসাইমিনের বক্তব্য:
================
সালাফী শায়খ সালেহ আল-উসাইমিনকে পায়ের সাথে পা মিলিয়ে রাখা সম্পর্কে প্রশ্ন হয
কাতার সোজা করার ক্ষেত্রে সঠিক কোনটি? পায়ের আঙ্গুলের অগ্রভাগের মাধ্যমে কাতার সোজা করতে হবে, না কি গোড়ালীর সাথে গোড়ালী মিলাতে হবে? পাশের মুসল্লীর পায়ের সাথে পা মিলানো কি সুন্নত?”
শায়খ ইবনে উসাইমিন এর উত্তরে লিখেছেন,
“الصحيح أنّ المعتمد في تسوية الصف ، محاذاة الكعبين بعضهما بعضا ، لا رؤوس الأصابع ، و ذلك لأنّ البدن مركب على الكعب . و الأصابع تختلف الأقدام فيها ، فقدم طويل و آخر صغير فلا يمكن ضبط التساوي إلا بالكعبين. وأما إلصاق الكعبين بعضهما ببعض فلا شك أنه وارد عن الصحابة رضي الله عنهم ، فإنهم كانوا يسوون الصفوف بإلصاق الكعبين بعضهما ببعض ، أي : أنّ كل واحد منهم يلصق كعبه بكعب جاره لتحقيق المساواة . و اهذا إذا تمت الصفوف و قام الناس ،ينبغي لكل واحد أن يلصق كعبه بكعب صاحبه لتحقيق المساواة فقط و ليس معنى ذلك أنه يلازم هذا الإلصاق و يبقى ملاصقا له في جميع الصلاة. و من الغلو في هذه المسألة ما يفعله بعض الناس: تجده يلصق كعبه بكعب صاحبه و يفتح قدميه فيما بينهما حتى يكون بينه و بين جاره في المناكب فرجة ، فيخالف السنة في ذلك. و المقصود أنّ المناكب و الأكعب تتساوى.
কাতার সোজা করার ক্ষেত্রে সঠিক পদ্ধতি হলো, গোড়ালীসমূহ বরাবর রাখা। পায়ের আঙ্গুলসমূহ মেলানাো বা বরাবর রাখা সঠিক পদ্ধতি নয়। কেননা মানুষের গোড়ালী একই গঠনের হয় অর্থাকিছুটা উত্থিত গোলাকার। কিন্তু পায়ের আঙ্গুলসমূহ বিভিন্ন রকম হয়। কারও পা বড় হয, কারও পা ছোট হয়। সুতরাং কাতার সোজা করার জন্য পায়ের গোড়ালীসমূহ বরাবর রাখাটাই সঠিক পদ্ধতি। পাশের মুসল্লীর গোড়ালীর সাথে গোড়ালী মেশানোর মাসআলা হলো, নি:সন্দেহে সাহাবায়ে কেরাম রা. থেকে এটি বর্ণিত। কেননা তারা কাতার সোজা করার জন্য গোড়ালীর সাথে গোড়ালী মেলাতেন। অর্থাকাতার সোজা হয়েছে কি না এটা দেখার জন্য তারা গোড়ালীর সাথে গোড়ালী মেলাতেন। মানুষ যখন কাতার সোজা করবে এবং নামাজের জন্য দাড়াবে তখন একজন অপরজনের গোড়ালীর সাথে গোড়ালী মিলিয়ে দেখবে যে কাতার সোজা হয়েছে কি না। গোড়ালীর সাথে গোড়ালী মেলানো দ্বারা কখনও এটি উদ্দেশ্যনয় যে, সব সময় গোড়ালীর সাথে
গোড়ালী মিলিয়ে রাখবে এবং সম্পূর্ণ নামাযে এভাবে লাগিয়েরাখবে।
এই মাসআলায় কিছু মানুষ বাড়াবাড়ি করে থাকে। তারা একজনের
গোড়ালীর সাথে অপরেরগোড়ালী লাগিয়ে রাখে এবং দুপায়ের
মাঝে অস্বাভাবিক ফাকা রাখে, ফলে তাদের দুজনের কাধেরমাঝে ফাকা থাকে।
এক্ষেত্রে তারা সুন্নতের বিরোধী কাজ করে থাকে। মূল উদ্দেশ্য হলো, কাধ ওগোড়ালী বরাবর থাকবে।
মাজমুয়াতুল ফাতাওয়া, .১৩, ফতোয়া নং ৪২৮
. ইবনে বাজের বক্তব্য:
==============
ইবনে বাজ রহ. কে পায়ের সাথে পা মিলানোর বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি তথাকথিত আহলে হাদীসদের এই বেদয়াতী মতবাদ খন্ডন করেন
س: ما هي السنة في رص الصفوف للمصلين هل يضع المصلي بين قدمه مقدار أربعة أصابع أم يلزق قدمه بقدم الذي بجانبه؟
ج: السنة التراص في الصفوف وعدم ترك شيء بين الأقدام تكون قدمه ملزقا بقدم صاحبه من غير إيذاء ، من غير محاكة ولا إيذاء، بل يقرب قدمه من قدمه ولا يفشح يقوم بجملته كله بعض الناس يفشح يأخذ مكان اثنين ، هذا لا يصلح، ولكنه يقرب منه كل واحد يدنو من الآخر حتى يسدوا الفرجة، ولهذا قال النبي صلى الله عليه وسلم: « “تراصوا وسدوا الخلل وسدوا الفرج ولا تتركوا فرجات للشيطان” » قال أنس، وكان الرجل ليلزق قدمه بقدم صاحبه، يعني يسدون الخلل، وليس معناه أن يحاكه ويؤذيه لا، لا يحاكك الرجل بالرجل، ولكنه يلزقها حتى لا تكون فرجة بينهما.
প্রশ্ন: কাতার সোজা করার ক্ষেত্রে সুন্নত নিয়ম কী? মুসল্লী নিজের উভয় পায়ের মাঝে চার আঙ্গুল ফাকা রাখবে না কি পাশের মুসল্লীর পায়ের সাথে পা লাগিয়ে দাড়াবে?
উত্তর: সুন্নত হলো কাতারগুলো সোজা রাখা এবং অন্যের পা স্পর্শ করা, তাকে কষ্ট দেয়া অথবা পায়ের সাথে ঘষাঘষি করা ব্যতীত অপর মুসল্লীর পায়ের বরাবর পা রাখবে যেন উভয পায়ের মাঝে বেশি ফাকা না থাকে। এমনভাবে পারাখবে যেন অন্যের পায়ের কাছাকাছি হয়।
তবে এক্ষেত্রে নোংরাভাবে দাড়াবে না। সাধারণভাবেদাড়াবে। কিছু কিছু মানুষ নিকৃষ্ট নোংরাভাবে দাড়ায়
পায়ের সাথে পা মিলাতে গিয়ে দুজনের জায়গা নিয়ে দাড়ায়।
এটা সঠিক নয়। বরং একে অপরের কাছাকাছি দাড়াবে যেন উভয়ের মধ্যকারফাকা জায়গা বন্ধ হয়।
এজন্য রাসূল . বলেছেন, তোমরা পরস্পর মিলে দাড়াও। মাঝের ফাকা জায়গাবন্ধ করো।
শয়তানের জন্য কোন ফাকা জায়গা রেখো না। হযরত আনাস রা. বলেন, সাহাবায়ে কেরাম
একজনের পায়ের সাথে অপরের পা মিলাতেন। কিন্তু পায়ের সাথে পা মিলোনার অর্থ এই নয় যে, একজনের পা অপরজনের
পাশের সাথে স্পর্শ করাতেন এবং তাকে কষ্ট দিতেন। এক্ষেত্রে একজন অপরজনের পা স্পর্শ করবে না।
বরং এমনভাবে মিলিয়ে দাড়াবে যেন মাঝে ফাকা না থাকে
মূল বইযের স্ক্রিনশট:
ইবনে বাজ রহ. যেই রুচিহীন নোংরা পদ্ধতিতে দাড়াতে নিষেধ করেছেন সেটি বাস্তবেই রুচিহীন। এটি কখনও ইসলামী পদ্ধতি হতে পারে না। রাসূল . একটি সভ্য, রুচিশীল স্বভাবজাত ধর্ম নিয়ে এসেছেন। তিনি এধরনের কদর্য নোংরা দ্বীন নিয়ে আসেননি। আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কুরআনে বিনয়ের সঙ্গে দাড়ানোর নিদের্শ দিয়েছেন। অথচ আহলে হাদীসরা বিদয়াতী পদ্ধতিতে এমন ঔদ্ধত্যের সাথে দাড়ায় যাকে ইবনে বাজ রহ. ফাহিশা বা নোংরা আখ্যায়িত করেছেন। এধনরের একটি নোংরা পদ্ধতির নামায দেখুন,

. শায়খ আহমাদ ইবনে ইয়াহইয়া নাজমীর বক্তব্য:
” كذلك أيضاً من المساواة أن تجعل بين قدميك شبراً – بس- فإذا جعلت بين قدميك شبراً فإنه يكون مع القدمين بقدر منكبيك، لا تجمع القدمين سواء فتأخذ منكبيك مساحةً أكثر من مساحة القدمين، ولا تجعل قدميك متباعدة؛ فإذا باعدت بين قدميك حينئذ لا يمكن أن يكون جارك يتمكن من وضع منكبه مع منكبك مساوياً له”
পরস্পর সোজা হয়ে দাড়ানোর একটি অংশ হলো উভয় পায়ের মাঝে এক বিঘাত পরিমাণ ফাকা রাখা। ব্যাস। যখন আপনি উভয় পায়ের মাঝে এক বিঘাত পরিমাণ ফাকা রাখবেন তথন তা আপনার কাধের সমান হবে। উভয় পা একেবারে মিশিয়ে রাখবে না, তখন আপনার কাধের পরিমাণ পায়ের থেকে বেশি হবে। আবার উভয় পা খুব বেশি ছড়িয়ে রাখবে না। যদি উভয় পা বেশি ছড়িয়ে দাড়ান, তখন আপনার পাশের মুসল্লী আপনার কাধের সাথে কাধ মিলিয়ে দাড়াতে পারবে না
আদদাওরাতুল ইলমিয়্যা বিহুফরিল বাতিন, ক্যাসেট নং , শায়খ নাজমী
. . বকর আবু যায়েদের বক্তব্য:
সৌদি মুফতী বোর্ডের সম্মানিত সদস্য . বকর আবু যায়েদ তার লা জাদিদা ফি আহমকামিস সালাহ (নামাযের বিধানে নতুনত্ব নেই) বইয়ে লিখেছেন,
কোন দলিল ছাড়া নামাযে কাতার সোজা করার নতুন একটি পদ্ধতি আবিষ্কৃত হয়েছে। যেটি আমরা বর্তমানে কিছু মুসল্লীকে করতে দেখি। তারা ডান বামপাশের মুসল্লীর পায়ের পিছনের অংশের সাথে নিজের পায়ের পিছনের অংশ মিলিয়ে দাড়ায়, যেন তাদের গোড়ালীর সাথে গোড়ালী মিলে থাকে। এটি হাদীসে বর্ণিত পদ্ধতি থেকে সম্পূর্ণ ভিন্ন একটি নতুন আবিষ্কৃত পদ্ধতি। সুন্নাহ অনুসরনে এটি সীমাহীন বাড়াবাড়ি বৈ কিছুই নয়।
[
লা জাদিদা ফি আহকামিস সালাহ, পৃ.১২]