মু'মিনের কলব আল্লাহর আরশ" এটি কি জাল হাদিস? | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস



মু'মিনের কলব আল্লাহর আরশ" এটি কি জাল হাদিস?
পর্ব নং -

এটিকে ওহাবীদের ইমাম ইমাম ইবনে তাইমিয়া হাদিসটি কে জাল বলেছেন জাল সে বলতে পারে, কারন সে যেহেতু তাসাওফে বিশ্বাসী নয় মাওলানা মতিউর রহমান কওমী তার প্রচলিত জাল হাদিস বইয়ের ৮৯ পৃষ্ঠায় হাদিসটি কে জাল বলে বিষয়টি কে অস্বিকার করেছে তার মত বহু প্রতারক মৌলভী বিষয়টি অস্বিকার করে বসেছে সমস্ত মুহাদ্দিসগন বলেছেন যে শব্দগত হাদিসটির বর্ণনা পাওয়া গেলেও এটির মর্মার্থ সঠিক ( সুত্রঃ১. ইমাম সাখাভী, মাকাসিদুল হাসানা, ৪২৯পৃ.হাদিসঃ৯৮৮(,.) আজলুনী, কাশফুল খাফা,/১৯৫পৃ.হাদিসঃ২২৫৪) আমরা গভেষনা করে হাদিসটির সমর্থনে তিনটিরও বেশী হাদিস পাই
হাদিস নং .
হযরত আবি ইনাবাতাল খোলানী (রা.) হতে বর্নিত রাসুল (.) ইরশাদ করেন " যমিন বাসী থেকে অবস্থানের পাত্র রয়েেছ তোমাদের প্রভুর সেই অস্থানের পাত্র হলো মু'মিনের ক্বলব বা অন্তর ( সুত্রঃ তাবরানী, মুসনাদে সামীন,/১৯পৃ.হাদিসঃ ৮৪০,() জালালুদ্দিন সুয়ূতী, জামেউস সগীর,/৩৬৪পৃ. হাদিসঃ ২৩৭৫ জামিউল আহাদিস, /১৯৬পৃ.৮২৩৩ () সাখাভী, মাকাসিদুল হাসানা, ৩৮০পৃ.হাদিসঃ ৯৯০() আজলূনী, কাশফুল খাফা, /১৭৫পৃ.হাদিসঃ২২৫৪ () ইরাকী, তাখরীজে ইহইয়াউল উলূমুদ্দিন, /৮৯০পৃ. () শায়খ ইউসুফ নাবহানী,ফতহুল কাবীর,/৩৭৭পৃ. হাদিসঃ৪০৯১ () মানাভী, ফয়যুল কাদীর,/৬২৯পৃ. () আহলে হাদিস নাসিরুদ্দীন আলবানী তার সহিহ হাদিসের গ্রন্থ " সিলসিলাতুল আহাদিসুস সহিহা,হাদিসঃ ১৬৯১ সহিহুল জামে, হাদিসঃ ২১৬৩ তার দু'টি গ্রন্থের মধ্যে হাদিসটি কে হাসান বা গ্রহনযোগ্য বলে উল্লেখ করতেছেন, কিন্তু আহলে হািদসরা আবার সুযোগ বুঝে তাদের ইমামের কথাও অস্বীকার করে বসে
হাদিস নং
চার মাযহাব এর অন্যতমএকজন ইমাম আহমদ ইবনে হাম্বল (রহ.) বর্ণনা করেন হযরত ওহ্হাব ইবনে মুনাব্বাহ (রা.) হতে বর্নিত তিনি বলেন " নিশ্চয় মহান আল্লাহ তা'য়ালা আসমান সমূহকে খুলে দিয়েছেন হিযকিল নামক এক ফিরেশতার জন্য তিনি আরশ পর্যন্ত দেখতে পেলেন এবং বললেন আল্লাহ তুমি পাকত পবিত্র, তোমার শান মহান অতঃপর মহান আল্লাহ বললেন নিশ্চই আসমান সমূহ আরশ দূর্বলতা প্রকাশ করছে আমাকে স্থান দিতে কিন্তু মু'মিনের কলব বা অন্তর নম্রতা প্রকাশ করে আমাকে গ্রহন করতেছেন ( সুত্রঃ১. ইমাম আহমদ ইবনে হাম্বল, কিতাবুল যুহুদ,/৬৯পৃ. দারুল কুতুব ইলমিয়্যাহ, বয়রুত, লেবানন,() সাখাভী, মাকাসিদুল হাসানা,৪২৯পৃ.হাদিসঃ৯৮৮() আজলূনী,কাশফুল খাফা,/১৯৫পৃ. হাদিসঃ ২২৫৪() মোল্লা আলী ক্বারী,আসারুল মারফূআ ফি আখবারিল মাওদ্বুআত,৩১০পৃ.() মানাভী, ফয়যুল কাদীর, /২৮২পৃ.() ইবনুল ইরাক,তানযিহুশ শরিয়াহ,/১৪৮পৃ.() আব্দুল হাই লাখনৌভি, আসারুল মারফূআ, ৩১০পৃ.() সুয়ূতী, লা-আলিল মাসনূ, /২৯৩পৃ. ইমাম সাখাভী, আজলূনী হাদিসটি কে গ্রহনযোগ্য বলেছেন তাই প্রমানিত হয়ে গেল বিষয়টি প্রমানিত বিষয়ে আরও অনেক হাদিস রয়েেছ যা সামনে দেয়া হবে (চলবে ইনশাআল্লাহ)