ঈমান ছাড়া আমল মূল্যহীন | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস

ঈমান এবং নেক আমল আল্লাহ তাআলার নিয়ামত। দুনিয়ার সব মানুষই ঈমান এবং নেক আমলের নিয়ামত লাভে আল্লাহর রহমতের আকাঙ্ক্ষী। কারণ তাঁর রহমত ছাড়া কোনো মানুষ ঈমান লাভ করতে পারে না। আর ঈমান ছাড়া আমল কোনো কাজে আসে না।

মানুষের কাজ যত ভালো ও কল্যাণেরই হোক না কেন; ঈমান ছাড়া আমল বা কল্যাণের কাজ কোনো ভাবেই আল্লাহ তাআলার নিকট গ্রহণযোগ্য নয়। এ কারণেই আল্লাহ তাআলা কুরআনুল কারিমের অনেক আয়াতে এ কথার ঘোষণা দিয়েছেন। আল্লাহ তাআলা সুরা আসরে উল্লেখ করেন-

‘কসম সময়ের; নিশ্চয়ই মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত; কিন্তু তারা নয়, যারা বিশ্বাস স্থাপন করে ও সৎকর্ম করে, পরস্পরকে সত্যের উপদেশ দেয় এবং ধৈর্যের উপদেশ দেয়।’

আবার যারা ঈমান গ্রহণের পাশাপাশি নেক আমল বা ভালো কাজ করেছে, তাদের জন্য আল্লাহ তাআলা অনেক সুসংবাদ প্রদান করেছেন। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘নিশ্চয়ই যারা বিশ্বাস স্থাপন করে ও সৎকর্ম সম্পাদন করে, তাদের অভ্যর্থনার জন্যে আছে জান্নাতুল ফেরদাউস। সেখানে তারা চিরকাল থাকবে, সেখান থেকে স্থান পরিবর্তন করতে চাইবে না।’ (সুরা কাহাফ : আয়াত ১০৭-১০৮)

এ ঈমানের ওপরেই মানুষের ইহ ও পরকালীন জীবনের ব্যর্থতা এবং সফলতা নির্ভর করে। ঈমানবিহীন আমলের কোনো মূল্য নেই; তা কুরআনে প্রমাণিত। তাই মানুষের ভালো কাজ এবং ভালো গুণ তখনই আল্লাহর দরবারে গণ্য হবে যখন তার অন্তরে ঈমান থাকবে।

চাই সে ঈমান কম হোক আর বেশি হোক। এ প্রসঙ্গে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের একটি গুরুত্বপূর্ণ হাদিস তুলে ধরা হলো-

হজরত আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম থেকে বর্ণনা করেন যে, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘অন্তরে জবের দানা পরিমাণ ঈমান নিয়ে যে ব্যক্তি ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ বলেছে; সে জাহান্নাম থেকে বের হবে।অন্তরে গমের দানা পরিমাণ ঈমান নিয়ে যে ব্যক্তি ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ বলেছে সে জাহান্নাম থেকে বের হবে।অন্তরে অনু পরিমাণ ঈমান নিয়ে যে ব্যক্তি ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ বলেছে সে জাহান্নাম থেকে বের হবে। (বুখারি ও মুসলিম)

পরিশেষে…কুরআন ও হাদিসের আলোকে বুঝা যায় যে, ‘ঈমান ছাড়া কোনো নেক আমল ও ইবাদতই আল্লাহ তাআলার দরবারে গ্রহণযোগ্য নয়। সুতরাং দুনিয়া ও পরকালের কল্যাণ লাভে মানুষের ঈমান অত্যন্ত জরুরি।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে শিরকমুক্ত ঈমান লাভের তাওফিক দান করুন। দুনিয়া ও পরকালের কল্যাণ লাভে ঈমানের সঙ্গে নেক আমল ও ইবাদত করার তাওফিক দান করুন। আমিন।