প্রেমিকার দেয়া কাপড় পড়ে কি নামাজ হবে? | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস

জিজ্ঞাসা–৮৯২: প্রেমিকার দেয়া কাপড় পড়ে কি নামাজ হবে?–সারোয়ার।

জবাব: ফেতনার আশঙ্কা না থাকলে বেগানা নারীর কাছ থেকে হাদিয়া গ্রহণ করা নিষেধ নয়। তবে ইসলামি-শরিয়তের দৃষ্টিতে বিবাহ-বহির্ভূত প্রেম এক প্রকার যিনা বা ব্যভিচার। এজন্য প্রেমিকার দেয়া হাদিয়া গ্রহণ করা নাজায়েয। কেননা, এজাতীয় হাদিয়া লেনদেন করতে গেলে ফেতনায় জড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা প্রায় নিশ্চিত। সুতরাং প্রেমিকার দেয়া কাপড়ের হুকুম অবৈধ উপায়ে উপার্জিত অন্যান্য সম্পদের মত। এই কাপড় সাওয়াবের নিয়ত ছাড়া দান করে দিতে হবে। আর এ ধরণের পোশাকে নামায হয়ে যাবে কিন্তু পরিহার করতে পারলে সবচেয়ে উত্তম হবে। কেননা রাসুলুল্লাহ বলেছেন,

أَيُّهَا النَّاسُ إِنَّ اللَّهَ طَيِّبٌ لا يَقْبَلُ إِلاَّ طَيِّبًا وَإِنَّ اللَّهَ أَمَرَ الْمُؤْمِنِينَ بِمَا أَمَرَ بِهِ الْمُرْسَلِينَ فَقَالَ: {يَا أَيُّهَا الرُّسُلُ كُلُوا مِنْ الطَّيِّبَاتِ وَاعْمَلُوا صَالِحًا إِنِّي بِمَا تَعْمَلُونَ عَلِيمٌ} [المؤمنون:51]، وَقَالَ: {يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا كُلُوا مِنْ طَيِّبَاتِ مَا رَزَقْنَاكُمْ وَاشْكُرُواْ لِلّهِ إِن كُنتُمْ إِيَّاهُ تَعْبُدُونَ} [البقرة:172]. ثُمَّ ذَكَرَ الرَّجُلَ يُطِيلُ السَّفَرَ أَشْعَثَ أَغْبَرَ يَمُدُّ يَدَيْهِ إِلَى السَّمَاءِ: يَا رَبِّ يَا رَبِّ، وَمَطْعَمُهُ حَرَامٌ، وَمَشْرَبُهُ حَرَامٌ، وَمَلْبَسُهُ حَرَامٌ، وَغُذِيَ بِالْحَرَامِ، فَأَنَّى يُسْتَجَابُ لِذَلِكَ

হে মানব সকল! আল্লাহ পবিত্রতিনি পবিত্র বস্তু ছাড়া কোনো কিছু গ্রহণ করেন না। তিনি এ ব্যাপারে মুমিনদের সে নির্দেশই দিয়েছেন যে নির্দেশ তিনি দিয়েছিলেন রাসূলদেরকে। তিনি বলেছেন, হে রাসূলগণ! তোমরা পবিত্র বস্তু হতে আহার কর ও সৎকর্ম করতোমরা যা কর সে সম্বন্ধে আমি সবিশেষ অবহিত। এবং তিনি (মুমিনদের উদ্দেশে) বলেন, হে মুমিনগণ! তোমাদের আমি যেসব পবিত্র বস্তু দিয়েছি তা হতে আহার কর। এ কথা বলার পর রাসূলুল্লাহ  এমন এক ব্যক্তির কথা বললেনযে দীর্ঘ সফর করে মাথার চুলগুলোকে এলোমেলো করেছে এবং পদযুগল ধুলায় ধুসরিত করেছে অতঃপর আকাশের দিকে হাত তুলে দোয়া করেহে প্রভু! হে প্রভু! কিন্তু তার খাদ্য হারামতার পোশাক হারামতার শরীর গঠিত হয়েছে হারাম দিয়েকিভাবে তার দোয়া কবুল করা হবে? (মুসলিম ২৭৬০)

والله اعلم بالصواب
উত্তর দিয়েছেন
মাওলানা উমায়ের কোব্বাদী