অমুসলিমের সাথে মুসাফাহা করা যাবে কি? | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস

জিজ্ঞাসা–৯০৭: অমুসলিমের সাথে মুসাফাহা করা যাবে কি?–আরিফ।

জবাব: ফকিহগণ এ ব্যাপারে একমত যে, কোনো অমুসলিমকে সালাম দেওয়া যাবে না। কেননা, রাসূলুল্লাহ  স্পষ্ট ভাষায় বলেছেন,

لا تَبْدَؤُوا اليَهُودَ ولا النَّصارَى بالسَّلامِ

তোমরা ইয়াহূদী ও খৃষ্টানদের প্রথমে সালাম দেবে না। (মুসলিম ২১৬৭)

তবে সালাম ব্যতীত কেবল মুসাফাহা করা যাবে কিনা–এ ব্যাপারে ফকিহগণ বলেন, প্রকৃতপক্ষে মুসাফাহার মাধ্যমে অমুসলিমদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন হয়। তাছাড়া মুসাফাহা কেবল মুসলমানদের সাক্ষাতের সময়ের অভিবাদনের জন্য নির্ধারিত। তাই অমুসলিমদের সঙ্গে মুসাফাহার প্রচলন করা উচিত নয়। কেননা, আল্লাহ তাআলা বলেন,

لَّا تَجِدُ قَوْمًا يُؤْمِنُونَ بِاللَّهِ وَالْيَوْمِ الْآخِرِ يُوَادُّونَ مَنْ حَادَّ اللَّهَ وَرَسُولَهُ

যারা আল্লাহ ও পরকালে বিশ্বাস করে, তাদেরকে আপনি আল্লাহ ও তাঁর রসূলের বিরুদ্ধাচরণকারীদের সাথে বন্ধুত্ব করতে দেখবেন না। (সূরা মুজাদালাহ ২২)

তবে প্রচলন ব্যতিরেকে কোনো প্রয়োজনে তাদের সঙ্গে মুসাফাহা করা যাবে কিনা–এব্যপারে আলমাউসুয়া’তুল ফিকহিয়া-এ (৩৭/৩৬১) এসেছে,

ذَهَبَ الْحَنَفِيَّةُ وَالْحَنَابِلَةُ إِلَى الْقَوْل بِكَرَاهَةِ مُصَافَحَةِ الْمُسْلِمِ لِلْكَافِرِ إِلاَّ أَنَّ الْحَنَفِيَّةَ اسْتَثْنَوْا مُصَافَحَةَ الْمُسْلِمِ جَارَهُ النَّصْرَانِيَّ إِذَا رَجَعَ بَعْدَ الْغَيْبَةِ وَكَانَ يَتَأَذَّى بِتَرْكِ الْمُصَافَحَةِ

‘হানাফি ও হাম্বলি মাযহাব মতে অমুসলিমের সঙ্গে  মুসলিমের মুসাফাহা করা মাকরুহ। তবে হানাফি মাযহাব মতে যদি খ্রিস্টান প্রতিবেশীর সঙ্গে দীর্ঘ দিন পর দেখা হয় এবং মুসাফাহা না করলে সে কষ্ট দেয় তাহলে তার সঙ্গে মুসাফাহা করা যাবে।’

হাশিয়া ইবন আবেদীন (৬/৪১২)-এ এসেছে,

فذهب الجمهور من الحنفية والشافعية والحنابلة لكراهة ابتداء المصافحة بدون حاجة

‘অধিকাংশ হানাফি, শাফিঈ ও হাম্বলি ফকিহর মতে, (অমুসলিমের সঙ্গে) বিনা প্রয়োজনে আগে মুসাফাহা করা মাকরুহ।’

والله اعلم بالصواب
উত্তর দিয়েছেন
মাওলানা উমায়ের কোব্বাদী