হায়াতুন্নবীর চাক্ষুষ প্রমাণ | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস

বাষট্টিতম অধ্যায়ঃ হায়াতুন্নবীর চাক্ষুস প্রমাণঃ
প্রসঙ্গঃ মসজিদে নববীর সম্প্রসারণ ও রওযা মোবারককে মসজিদের ভিতরে আনায়নঃ হযরত ওমর (رضي الله عنه)-এঁর পা এবং রাসুল্লাহ [ﷺ]-এঁর হাত মোবারক প্রকাশ।
===========
৮৬ হিজরী সনের ঘটনাঃ
৮৬ হিজরী সনে উমাইয়া খলিফা ওয়ালিদ ইবনে আবদুল মালিক-এঁর যুগে মসজিদে নববী দ্বিতীয়বার সম্প্রসারিত হয়। তখন মদিনার গভর্ণর ছিলেন হযরত ওমর ইবনে আবদুল আযিয (رضي الله عنه)। তিনি যাজান নামক এক কারিগরের দ্বারা মসজিদে নববীর সম্প্রসারণ কাজ সমাধা করেন। তিনি মসজিদকে পূর্বদিকে সম্প্রসারণ করে রওযা মোবারককে মসজিদের ভিতরে নিয়ে আসেন।

সেসময়ে একটি আশ্চর্যজনক ঘটনা ঘটেছিল-রওযা মোবারকের এক দিকের দেয়াল ঐ সময় ভেঙ্গে যায়। রওযা মোবারকের ভিতর থেকে একখানা পা মোবারক দৃষ্টিগোচর হয়। উপস্থিত সকলে ভীত ও সন্ত্রস্ত্র হয়ে পড়লেন এ কথা ভেবে যে, হয়তো বা তা নবী করিম [ﷺ]-এঁর কদম মোবারক হবে। কিন্তু উপস্থিত হযরত উরওয়াহ্ ইব্নে যোবাইর (رضي الله عنه) অনুসন্ধান করে বললেন-এটা হযরত ওমর (رضي الله عنه)-এঁর কদম মোবারক - রাসুল্লাল্লাহর নয়। সুব্হানাল্লাহ্! ২৩ হিজরীতে হযরত ওমর (رضي الله عنه) শহীদ হন। ৮৬ হিজরীতে এসেও তাঁর কদম মোবারক তরতাজা ছিল। মূলতঃ শহীদগণ অমর।

৫০৯ ও ৫৫৭ হিজরী সনের ঘটনাঃ
অনুরূপভাবে ৫০৯ হিজরী সালে এবং ৫৫৭ হিজরীতে যথাক্রমে হযরত বড়পীড় আবদুল কাদে জিলানী (رضي الله عنه) সাইয়েদ আহমদ রেফায়ী (رضي الله عنه) মদিনা শরীফ যিয়ারতকালে তাঁদের ফরিয়াদে জিন্দা নবীরাসুলে করিম [ﷺ]-এঁর ডান হাত মোবারক রওযা শরীফ থেকে উপরে উঠে আসে এবং তাঁরা হস্ত মোবারক চুম্বন করেন। (বাহ্জাতুল আসরার, নুজহাতুল খাতির, হুসনুল মার্কাসিদ-প্রভৃতি গ্রন্থ)। নবীগণ এবং অলীগণ কবরে যিন্দা থাকেন- তার বাস্তব প্রমাণ উক্ত তিনটি ঘটনা। জালালুদ্দীন সূয়ুতির হুসনুস মাকাসিদ, আবুল হাসান শাত্নুফীর বাহ্জাতুল আসরার ও মোল্লা আলী ক্বারীর নুজহাতুল খাতির গ্রন্থের নির্ভরযোগ্যতা সম্পর্কে কারো কোন সন্দেহ থাকতে পারেনা। অধমের রচিত কারামাতে গাউসুল আযম (رضي الله عنه) গ্রন্থে হুযুরের হাত উত্তোলনের আরবী দলীল দেখুন।