কালিমার মর্মকথা | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস

কালিমার মর্মকথা হচ্ছে   আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের   প্রতি বিশ্বাস      স্থাপন    করা।     আল্লাহতা’য়ালার    প্রতি    ঈমান আনার      সাথে     সাথে     তাঁর     প্রিয়     হাবিব      মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ   সাল্লাল্লাহু   আলাইহি   ওয়াসাল্লাম   এর   প্রতি  ঈমান  আনাকে    আবশ্যক  করেছেন।  তাই    কেউ   যদি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে ব্যতিরেখে শুধুমাত্র আল্লাহর প্রতি ঈমান আনয়ন করার দাবি করে, তাহলে তার এ দাবি মিথ্যা। সে কখনো ঈমানদার হতে পারবে   না।   এ    ব্যাপারে   কুরআনুল    কারীমের   মধ্যে  আল্লাহতা’য়ালা   বারংবার    হুকুম   প্রদান   করেছেন    যে, তোমরা   আল্লাহ  ও  তাঁর  রাসূলের   প্রতি  বিশ্বাস   স্থাপন কর। নিম্নে কয়েকখানা আয়াত উল্লেখ করা হল।

১. সূরা নিসার মধ্যে আল্লাহতা’য়ালা বলেন-
يا يها  الذين   امنوا  امنوا بالله   ورسوله والكتاب الذى نزل على رسوله
অর্থ: হে ঈমানদারগণ! বিশ্বাস স্থাপন কর  আল্লাহ  এবং তাঁর    রাসূলের     প্রতি    এবং      বিশ্বাস     স্থাপন    কর     সে কিতাবের প্রতি যা তিনি নাজিল করেছেন স্বীয় রাসূলের প্রতি। (সূরা নিসা- ১৩৬)

২. আল্লাহতা’য়ালা সূরা হাদিদে বলেছেন-
امنوا   بالله    ورسوله     وانفقوا   مما    جعلكم   مستخلفين   فيه
অর্থ:   তোমরা  আল্লাহ     ও  তাঁর   রাসূলের   প্রতি  বিশ্বাস স্থাপন কর। এবং তিনি তোমাদেরকে যার উত্তরাধিকারী করেছেন তা থেকে ব্যয় কর। (সূরা হাদিদ- ৭)

৩. সূরা হুজরাতে আল্লাহতা’য়ালা বলেছেন-
انما المؤمنون الذين امنوا بالله ورسوله ثم لم يرتابوا
অর্থ:  নিশ্চয়     তারাই   মুমিন,   যারা  বিশ্বাস  স্থাপন  করে আল্লাহ   এবং   তাঁর   রাসূলের   প্রতি।    অতঃপর   সন্দেহ  পোষন করে না। (সূরা হুজুরাত ১৫)

৪. সূরা আরাফে বর্ণিত হয়েছে-
فامنوا    بالله    ورسوله     النبى     الامى     الذى    يؤمن    بالله  وكلمته
অর্থ:  সুতরাং তোমরা  বিশ্বাস স্থাপন  কর আল্লাহর প্রতি এবং তাঁর উম্মি নবীর প্রতি। যিনি বিশ্বাস স্থাপন  করেন আল্লাহর উপর এবং  তাঁর সমস্ত কালিমার উপর।  (সূরা আরাফ- ১৫৮)

৫. সূরা সাফ এ বর্ণিত হয়েছে-
يايها   الذين  امنوا   هل  ادلكم  على   تجارة  تنجيكم  من عذاب اليم- تؤمنون بالله ورسوله وتجاهدون فى سبيل الله باموالكم وانفسكم
অর্থ: হে মুমিনগণ- আমি কি তোমাদেরকে এমন একটি ব্যবসার   সন্ধান      দিব,   যা   তোমাদেরকে    যন্ত্রনাদায়ক শাস্তি  থেকে মুক্তি   দিবে?   তা এই  যে, তোমরা আল্লাহ এবং  তাঁর  রাসূলের  প্রতি  বিশ্বাস  স্থাপন  করবে।  এবং  আল্লাহর    পথে     তোমাদের   ধন   সম্পদ     ও    জীবনপণ জিহাদ করবে। (সূরা সাফ ১০-১১)

ইমাম বুখারি রহমতল্লাহি আলাইহি বুখারিশরীফে বর্ণনা করেছেন-

عن  ابن عمر رضى الله عنه قال قال  رسول  الله صلى الله عليه   وسلم بنى  الاسلام على خمس شهادة ان  لا  اله  الا الله  وان   محمدا  رسول   الله  واقامة   الصلوة   وايتاء  الزكاة والحج وصوم رمضان

অর্থ:  হযরত  আব্দুল্লাহ  ইবনে  উমর  রাদিয়াল্লাহু  আনহু  থেকে      বর্ণিত,     তিনি      বলেন-      রাসূলুল্লাহ     সাল্লাল্লাহু আলাইহি  ওয়াসাল্লাম  বলেছেন-  ইসলামের  স্তম্ভ  ৫টি।  ১.   এই    স্বাক্ষ্য  প্রদান  করা   যে    আল্লাহ  ব্যতীত  কোন উপাস্য      নেই       এবং      মুহাম্মদ      সাল্লাল্লাহু      আলাইহি  ওয়াসাল্লাম আল্লাহর রাসূল।    ২.  নামায প্রতিষ্ঠা  করা।  ৩.  যাকাত  প্রদান  করা।  ৪.  হাজ্জ্ব  করা।  ৫.  রামাদান  মাসে রোযা রাখা। (কিতাবুল ঈমান)

এ  প্রসঙ্গে   বুখারিশরীফের   আরো  একটি  হাদিস  লক্ষ্য করুন-

عن ابن عمر رضى الله  عنه ان رسول  الله صلى الله عليه وسلم قال امرت ان اقاتل الناس حتى يشهدوا ان لا اله الا الله وان محمدا رسول الله

অর্থ:      হযরত    ইবনে   উমর   রাদিয়াল্লাহু   আনহু   থেকে বর্ণিত-     রাসূলুল্লাহ      সাল্লাল্লাহু     আলাইহি     ওয়াসাল্লাম  ইরশাদ  করেছেন, আমাকে নির্দেশ  প্রদান  করা হয়েছে যে,   মানুষের   সাথে   ততক্ষণ    পর্যন্ত   যুদ্ধ   করতে    হবে যতক্ষণ না তারা   স্বাক্ষ্য  দেয় ‘লা ইলাহা  ইল্লাল্লাহু এবং মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ’ (সংক্ষেপিত) কিতাবুল ঈমান।

এ  ব্যাপারে   সকল  মুহাদ্দিসীন,   মুফাসসিরীন,  উলামা, ফুকাহাগণ একমত পোষণ করেছেন যে, আল্লাহ ও তাঁর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম  এর প্রতি বিশ্বাস স্থাপন  করার নামই হচ্ছে ঈমান। অতএব সে  ঈমানের বাক্য    শাহাদত   শব্দ    সহকারে    অথবা   শাহাদত    শব্দ  ব্যতিরেকে            উভয়ভাবেই           ব্যক্ত          করা           যাবে। হাদিসশরীফে উভয়ভাবেই বর্ণিত হয়েছে।