দলিলসহ নামাজের মাসায়েল : (পর্ব ৫)একটি ভুলব্যাখ্যা | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস

একটি ভুলব্যাখ্যা

যে হাদীসটির ভুল ব্যাখ্যা করে লা-মাযহাবী বন্ধুরা বাম হাতের কনুই পর্যন্ত ডান হাত বিস্তার করে দেন সেটি এখানে ১নং দলিলে উল্লেখ করা হয়েছে। হাদীসটি বুখারী শরীফে উদ্ধৃত হয়েছে। হাদীসটি সম্পর্কে বুখারী শরীফের বিখ্যাত ভাষ্যকার হাফেজ ইবনে হাজার আসকালানী র. ফতহুল বারী গ্রন্থে বলেছেন,

أبهم موضعه من الذراع وفي حديث وائل عند أبي داود والنسائي ثم وضع يده اليمنى على ظهر كفه اليسرى والرسغ والساعد وصححه ابن خزيمة وغيره وسيأتي أثر علي نحوه في أواخر الصلاة. ٢/٢٧٥

অর্থাৎ বাম বাহুর কোন জায়গায় ডান হাত রাখতেন সেটা এই হাদীসে অস্পষ্ট। আবূ দাউদ ও নাসাঈ বর্ণিত ওয়াইল রা. এর হাদীসে বলা হয়েছে: অতঃপর তিনি তাঁর ডান হাত বাম হাতের পিঠ, কব্জি ও বাহুর উপর রাখলেন। ইবনে খুযায়মা র. প্রমুখ এটিকে সহীহ বলেছেন। সালাত অধ্যায়ের শেষ দিকে হযরত আলী রা. এর অনুরূপ আছার (আমল) এর উল্লেখ আসছে। (২খ, ২৭৫ পৃ)

একইভাবে শাওকানী সাহেবও নায়লুল আওতার গ্রন্থে বলেছেন,

قوله ( على ذراعه اليسرى ) أبهم هنا موضعه من الذراع وقد بينته رواية أحمد وأبي داود في الحديث الذي قبل هذا . )وقال تحت الحديث الذي قبله:( والمراد أنه وضع يده اليمنى على كف يده اليسرى ورسغها وساعدها . ولفظ الطبراني : ( وضع يده اليمنى على ظهر اليسرى في الصلاة قريبًا من الرسغ ) ٢/١٨٧

অর্থাৎ হাদীস শরীফে যে বলা হয়েছে ‘বাম বাহুর উপরে’, বাহুর কোন জায়গায় তা এখানে অস্পষ্ট। আহমদ ও আবূ দাউদ শরীফে বর্ণিত পূর্বের হাদীসটিতে তার ব্যাখ্যা দেওয়া হয়েছে।

আহমদ ও আবূ দাউদ বর্ণিত পূর্বের হাদীসটি আলোচনা প্রসঙ্গে শাওকানী সাহেব বলেছেন, এর মর্ম হলো তিনি তাঁর ডান হাত বাম হাতের তালুর পিঠ, কব্জি ও বাহুর উপরে রেখেছেন। তাবারানী র. এর বর্ণনায় এসেছে: তিনি নামাযে তাঁর ডান হাত বাম হাতের পিঠের উপর কব্জির কাছাকাছি রেখেছেন। (২খ. ১৮৭ পৃ)

লা-মাযহাবী ঘরানার শীর্ষ আলেম নওয়াব সিদ্দীক হাসান খান তাঁর বুখারী শরীফের আরবী ভাষ্যগ্রন্থ আওনুল বারীতে বুখারীর হাদীসটির ব্যাখ্যায় লিখেছেন:

أي على ظهر كفه اليسرى والرسغ من الساعد (২/৫৪০)

অর্থাৎ বাম হাতের তালুর পিঠ ও কব্জির উপর রাখবে। (২/৫৪০)

শায়খ আব্দুল আযীয ইবনে বায রহ.ও তাঁর ফাতাওয়ায় বলেছেন, فيضع كف اليمنى على كف اليسرى অর্থাৎ ডান হাতের তালু বাম হাতের তালুর পিঠে রাখবে। তিনি বুখারী রহ. বর্ণিত হযরত সাহল ইবনে সাদ রা. এর হাদীসটি উল্লেখ করার পর বলেন,

فدل ذلك على أن المصلي إذا كان قائما يضع يده اليمنى على ذراعه اليسرى , والمعنى على كفه والرسغ والساعد لأن هذا هو الجمع بينه وبين رواية وائل بن حجر فإذا وضع كفه على الرسغ والساعد فقد وضعت على الذراع ؛ لأن الساعد من الذراع , فيضع كفه اليمنى على كفه اليسرى وعلى الرسغ والساعد كما جاء مصرحا في حديث وائل المذكور

অর্থাৎ বোঝা গেল মুসল্লি দাঁড়ানো অবস্থায় তার ডান হাত বাম যেরার উপর রাখবে। তার মানে বাম হাতের তালুর পিঠ, কব্জি ও কব্জি সংলগ্ন বাহুর উপর রাখবে। কেননা এতে করে এই হাদীস এবং হযরত ওয়াইল রা. এর বর্ণনার মধ্যে সমন্বয় সাধিত হবে। সে যখন ডান হাত বাম হাতের পিঠ, কব্জি ও কব্জি সংলগ্ন বাহুতে রাখবে তখন যেরার উপর রেখেছে বলেও বিবেচিত হবে। কারণ কব্জি সংলগ্ন বাহু (الساعد) তো যেরা বা বাহুরই অংশ। তাই মুসল্লি তার ডান হাতের তালু বাম হাতের পিঠ, কব্জি ও কব্জি সংলগ্ন বাহুর উপর রাখবে। যেমনটি হযরত ওয়াইল রা.এর হাদীসে স্পষ্ট উল্লেখ করা হয়েছে। (মাজমূউ ফাতাওয়া ইবনে বায, ১১/৩১)

আলবানী সাহেবও আসলু সিফাতিস সালাহ, তালখীসু সিফাতিস সালাহ (নং ৩৭) ও আহকামুল জানাইয (নং ৭৬) গ্রন্থত্রয়ে লিখেছেন,

وكان صلى الله عليه وسلم يضع اليمنى على ظهر كفه اليسرى والرسغ والساعد

অর্থাৎ রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁর ডান হাত বাম হাতের তালুর পিঠ, কব্জি ও বাহুর উপর রাখতেন।

এসব থেকে স্পষ্ট বোঝা গেল, লা-মাযহাবী ভাইয়েরা হাদীসটির ভুল অর্থ বুঝে কনুই পর্যন্ত হাত বিস্তার করে থাকেন।