দলিলসহ নামাজের মাসায়েল : (পর্ব ৪৫)তাশাহহুদে বসার সুন্নত পদ্ধতি | ইসলামী বিশ্বকোষ ও আল-হাদিস

তাশাহহুদে বসার সুন্নত পদ্ধতি

নামাযে ১ম ও শেষ বৈঠকে বাম পা বিছিয়ে তার উপর বসা ও ডান পা খাড়া রাখা সুন্নত।

ডান পা বিছিয়ে দেওয়া ও বাম পা খাড়া রাখার দলিল

১. হযরত আয়েশা রা. বলেন,

كَانَ )رَسُولُ اللَّهِ -صلى الله عليه وسلم-( يَقُولُ فِى كُلِّ رَكْعَتَيْنِ التَّحِيَّةَ وَكَانَ يَفْرِشُ رِجْلَهُ الْيُسْرَى وَيَنْصِبُ رِجْلَهُ الْيُمْنَى. أخرجه مسلم في باب صفة الصلاة (٤٩٨) وابن أبي شيبة، (٢٩٤٣)

অর্থ: তিনি ( রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) প্রত্যেক দুই রাকাতে আত্তাহিয়্যাতু পড়তেন। এবং বাম পা বিছিয়ে দিতেন ও ডান পা খাড়া রাখতেন। মুসলিম শরীফ, হাদীস নং ৪৯৮; মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস নং ২৯৪৩; আবু দাউদ তায়ালিসী, হাদীস নং ১৬৫১, আব্দুর রাযযাক, হাদীস নং ৩০৫০; মুসনাদে ইসহাক, হাদীস নং ১৩৩১, মুসনাদে আহমদ, হাদীস নং ২৪০৩০, ইবনে মাজাহ,হাদীস নং ৮৯৩; আবু দাউদ, হাদীস নং ৭৮৩; আবু আওয়ানা, হাদীস নং ২০০৪।

২: হযরত ওয়াইল ইবনে হুজর রা. বলেন,

قدمت المدينة قلت لأنظرن إلى صلاة رسول الله صلى الله عليه وسلم فلما جلس يعني للتشهد افترش رجله اليسرى ووضع يده اليسرى يعني على فخذه اليسرى ونصب رجله اليمنى. أخرجه الترمذي(٢٩٢ )وقال حسن صحيح وابن أبي شيبة، (٢٩٤٢).

অর্থ: আমি মদীনা আসলাম, আর (মনে মনে) বললাম, আমি অবশ্যই রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নামায দেখবো। (তিনি বলেন), যখন তিনি বৈঠক করলেন, অর্থাৎ তাশাহহুদের জন্য তখন তাঁর বাম পা বিছিয়ে দিলেন, এবং তাঁর বাম হাত বাম উরুর উপর রাখলেন। আর ডান পা খাড়া রাখলেন। তিরমিযী শরীফ, হাদীস নং ২৯২; তিনি বলেছেন, এটি হাসান সহীহ। মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস নং ২৯৪২; নাসাঈ, হাদীস নং ১১৫৯; সুনানে দারিমী, ১/৩১৪, মুসনাদে আহমদ, ৪/৩১৮, তাহাবী ১/১৫২; বায়হাকী, ২/১৩২।

৩ : হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে উমর রা. বলেছেন,

إنما سنة الصلاة أن تنصب رجلك اليمنى وتثنى اليسرى. أخرجه البخاري(٨٢٧) والنسائي(١١٥٧-١١٥٨) وابن أبي شيبة (٢٩٤٤).

অর্থ: নামাযে সুন্নত হলো ডান পা খাড়া রাখবে এবং বাম পা বিছিয়ে দেবে। বুখারী শরীফ, হাদীস নং ৮২৭; নাসায়ী শরীফ, হাদীস নং ১১৫৭, ১১৫৮; মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস নং ২৯৪৪।

নাসায়ী শরীফে বাম পায়ের উপর বসার কথাও বর্ণিত হয়েছে।

মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বায় হযরত কা’ব রা., হযরত আলী রা., মুহাম্মদ ইবনে সীরীন র. ও ইবরাহীম নাখায়ী র. প্রমুখের আমলও অনুরূপ বর্ণিত হয়েছে।

এসব হাদীসে ১ম ও ২য় বৈঠকের মাঝে কোন পার্থক্য করা হয়নি। শুধু আবূ হুমায়দ আস সাইদী রা. বর্ণিত হাদীসে আছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম শেষ বৈঠকে উভয় পা ডান দিকে বের করে দিয়ে (বুখারী শরীফের বর্ণনানুসারে বাম পা এগিয়ে দিয়ে ডান পা খাড়া করে) নিতম্বের উপর বসে পড়তেন। এ হাদীসটির কারণে কোন কোন ফকীহ ও মুহাদ্দিস মনে করেন, উপরোক্ত হাদীসগুলো ১ম বৈঠক সম্পর্কে। কিন্তু হাদীসগুলোর বর্ণনাভঙ্গি দ্বারা তা সঠিক মনে হয় না। অনেকেই মনে করেন, আবূ হুমায়দ রা. এর হাদীসটিতে যে পদ্ধতিতে বসার কথা বর্ণিত হয়েছে, সেটা বরং উযরের কারণে ছিল। স্বাভাবিক অবস্থায় উভয় বৈঠকে একইভাবে বসা হতো। যা উপরের হাদীসগুলোতে উল্লেখ করা হয়েছে। এ কারণে কম সংখ্যক ফকীহ হযরত আবু হুমায়দ রা. বর্ণিত হাদীসের নিয়মানুসারে আমল করতেন। ইমাম তিরমিযী র. আবু হুমায়দ রা.এর হাদীসটি উল্লেখপূর্বক লিখেছেন,

وبه يقول بعض أهل العلم وهو قول الشافعي وأحمد وإسحاق

অর্থাৎ কিছু কিছু আলেম এই মত অবলম্বন করেছেন। শাফেয়ী র. আহমাদ র. ও ইসহাক র. এর মতও অনুরূপ।

পক্ষান্তরে হযরত ওয়াইল রা.এর হাদীসটি উদ্ধৃত করার পর তিরমিযী র. লিখেছেন,

والعمل عليه عند أكثر أهل العلم وهو قول سفيان الثوري وابن المبارك وأهل الكوفة

অর্থাৎ অধিকাংশ আলেমের আমল হযরত ওয়াইল ইবনে হুজর রা. এর হাদীস অনুসারে। সুফিয়ান ছাওরী র., আব্দুল্লাহ ইবনে মুবারক র. ও কূফাবাসীর মতও ছিল অনুরূপ।

লক্ষ্য করুন, পূর্বসূরি আলেমগণের অধিকাংশের আমল কি প্রমাণ করে না যে, হযরত আবূ হুমায়দ রা. বর্ণিত পদ্ধতিটি উযরের কারণে ছিল? অধিকন্তু এরা নিজেদেরকে সালাফী (পূর্বসূরিদের অনুসারী) বলে পরিচয় দেয়। অথচ তারা পূর্বসূরিগণের অধিকাংশের আমল ছেড়ে দিয়েছে! শুধু ছেড়ে দিয়েছে তাই নয়, বরং সেটিকে সুন্নতের পরিপন্থী আখ্যা দিচ্ছে। অবস্থাদৃষ্টে মনে হয়, সুফিয়ান ছাওরী র. ও ইবনুল মুবারক র. প্রমুখ হাদীসের সাগর-মহাসাগর বেঁচে থাকলে তাদেরকেও এরা সুন্নত শিখিয়ে দিত। আল্লাহ তায়ালা সবাইকে সুমতি দান করুন।